এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > রাজ্যসভাতে আটকাতেই হবে “তিন তালাক বিল”, বিরোধীদের সঙ্গে আলোচনা করে হুইপ জারি তৃণমূলের

রাজ্যসভাতে আটকাতেই হবে “তিন তালাক বিল”, বিরোধীদের সঙ্গে আলোচনা করে হুইপ জারি তৃণমূলের

কেন্দ্রের পক্ষ থেকে মুসলিম মহিলাদের সুবিচারের জন্য “তিন তালাক বিল” আনা হলেও প্রথম থেকেই এর প্রবল বিরোধী তৃণমূল কংগ্রেস। কিন্তু তীব্র বিরোধিতা করেও লোকসভায় সেই বিলকে আটকাতে পারেনি তারা। লোকসভায় এই বিলের সংশোধনীর ব্যাপারে কংগ্রেসের অধীর রঞ্জন চৌধুরী, কেরলের এম কে প্রেমচন্দনরা সরব হলেও সংখ্যাগরিষ্ঠের ভিত্তিতে তা পাস করাতে সক্ষম হয় বিজেপি। তবে লোকসভায় এই বিলটি পাস হলেও রাজ্যসভায় সেই তিন তালাক বিলকে আটকাতে এখন একজোট বাঁধছে বিরোধীরা।

সূত্রের খবর, আগামী সোমবার সরকারের পক্ষ থেকে এই বিলটি রাজ্যসভায় আনা হবে। আর তাই তার আগে এই বিলকে ঠিক কি করে আটকানো যায় সে নিয়ে কংগ্রেস, তৃণমূল, এসপি, বিএসপি, সিপিআই, সিপিএম সহ বিরোধী দলের একাধিক নেতারা নিজেদের মধ্যে একটি বৈঠকও সেরে নিয়েছেন। এমনকি কেন্দ্রের সমর্থক বলে পরিচিত তামিলনাড়ুর এআইডিএমকেও এই ব্যপারে বিরোধীদেরকে সমর্থন দেবে বলে জানা গেছে। কিন্তু ঠিক কোন কারণে এই বিলের বিরোধিতা করছে বিরোধীরা?

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

জানা গেছে, মুসলিম মহিলাদের বৈবাহিক সম্পর্কের নিরাপত্তার প্রশ্নে বিরোধীদের কোনো আপত্তি না থাকলেও স্বামীর শাস্তি নিদানের বিষয়টি নিয়ে তাঁদের তীব্র আপত্তি রয়েছে। আর তাই লোকসভাতে এই ব্যাপারে সংশোধনীর দাবি তোলেন তাঁরা। সূত্রের খবর, রাজ্যসভায় সরকারের পক্ষ থেকে এই বিল পেশের দিন কংগ্রেস এবং তৃণমূলের পক্ষ থেকে সমস্ত দলীয় সাংসদদের উপস্থিত থাকার জন্য ইতিমধ্যেই হুইপও জারি করে দেওয়া হয়েছে।

জানা যায়, রাজ্যসভায় সরকারের এই তিন তালাক বিলটিকে আটকানোর ব্যাপারে সব থেকে বেশি উদ্যোগী হয়েছেন কংগ্রেসের গুলাম নবি আজাদ এবং তৃণমূলের ডেরেক ও ব্রায়েন। এদিন এই প্রসঙ্গে তৃণমূলের ডেরেক ও ব্রায়েন বলেন, “তিন তালাক বিল নিয়ে সরকারের যত না সামাজিক সংস্কারের লক্ষ্য রয়েছে, তার থেকে বেশি রাজনৈতিক উদ্দেশ্য রয়েছে। ভোটের আগে বিজেপি মুসলিম মহিলাদের কাছে চমক দিতে চাইছে। বিজেপি যদি এতই এই বিল নিয়ে সিরিয়াস তাহলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কেন লোকসভায় বিলের ভোটাভুটিতে অংশ নিলেন না”?

একইসঙ্গে তাঁর বক্তব্য, “তাই লোকসভায় বিজেপির যে দাদাগিরি করেছে আমরা তা রাজ্যসভায় কোনোমতেই মেনে নেব না”। রাজনৈতিক মহলের মতে, এই তিন তালাক বিলকে এবার রাজ্যসভায় আটকে দিয়ে একদিকে যেমন নিজেদের শক্তি প্রমাণে মরিয়া হয়ে উঠেছে বিরোধীরা, ঠিক তেমনি মুসলিম মহিলাদের জন্য লোকসভা ভোটের আগে কেন্দ্রের শাসকদলের পক্ষ থেকে এহেন উপহারকে আটকে দিয়ে বিজেপিকেও প্রবল চাপে ফেলতে মরিয়া তাঁরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!