এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > উন্নয়ন তহবিল থেকে বিজেপির সাংসদের পাঠানো টাকা ফেরত পাঠালেন শাসক ঘনিষ্ঠ অধ্যক্ষা, তুমুল রাজনৈতিক চাপানউতোর

উন্নয়ন তহবিল থেকে বিজেপির সাংসদের পাঠানো টাকা ফেরত পাঠালেন শাসক ঘনিষ্ঠ অধ্যক্ষা, তুমুল রাজনৈতিক চাপানউতোর

লোকসভা ভোটে বিজেপি বহু আসনে জয়লাভ করলেও বিভিন্ন সরকারি অনুষ্ঠানে তাদের সাংসদদের সেই ভাবে আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে না বলে সম্প্রতি অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে। যে ঘটনায় শাসকের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ তুলতেও দেখা যাচ্ছে গেরুয়া শিবিরকে। আর এবার বিষ্ণুপুরের রামানন্দ কলেজের 75 বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে কলেজের অনুষ্ঠান মঞ্চে উঠতেই দেওয়া হল না স্থানীয় সাংসদ সৌমিত্র খাঁকে।

জানা যায়, গত সোমবার থেকেই এই বিষ্ণুপুর রামানন্দ কলেজের 75 বছর পূর্তি উৎসব শুরু হয়েছে। যেখানে আমন্ত্রণপত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, পুরপ্রধান, স্থানীয় বিধায়কের পাশাপাশি স্থানীয় বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁয়েরও নাম রয়েছে। কিন্তু যেহেতু আইনি জটিলতার জেরে বর্তমানে বাঁকুড়া জেলায় ঢুকতে পারছেন না সৌমিত্র খাঁ, সেই কারণে তিনি তার প্রতিনিধি হিসেবে তার আত্মসহায়ক সুশান্ত দাকে ওই অনুষ্ঠানে পাঠিয়েছিলেন।

আর আপ্তসহায়কের মাধ্যমেই কলেজের উন্নয়নে সাংসদ তহবিল থেকে 25 লক্ষ টাকা দেওয়ার ঘোষণা পত্র সহ শুভেচ্ছাবার্তা পাঠিয়ে ছিলেন স্থানীয় সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। তবে অভিযোগ, কলেজ কর্তৃপক্ষ সাংসদের শুভেচ্ছা বার্তা এবং 25 লক্ষ টাকা দেওয়ার ঘোষণা পত্র গ্রহণ না করেই সেই সাংসদ প্রতিনিধিকে ফেরত পাঠিয়ে দিয়েছেন।

এমনকি তাকে অনুষ্ঠান মঞ্চে উঠতে দেওয়া তো দূর অস্ত, কলেজের অধ্যক্ষা স্বপ্না ঘোড়াই নেতাদের সঙ্গে কথা পর্যন্ত বলেননি বলে জানা গেছে। কিন্তু কেন কলেজের পক্ষ থেকে এহেন অসহযোগিতা! স্থানীয় সংসদ যেখানে উন্নয়নের বার্তা নিয়ে তার প্রতিনিধিকে পাঠালেন, সেখানে কলেজ কর্তৃপক্ষ সেই সাংসদ প্রতিনিধির সঙ্গে এহেন আচরণ করলেন কেন! কেন তার সঙ্গে কথা পর্যন্ত বলা হল না!

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

এদিন এই প্রসঙ্গে বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁর আপ্তসহায়ক সুশান্ত দা বলেন, “সাংসদের একজন প্রতিনিধি হিসেবে তার শুভেচ্ছা বার্তা সহ কলেজের উন্নয়নে 25 লক্ষ টাকা অর্থ বরাদ্দের বার্তা নিয়ে আমি রামানন্দ কলেজে গিয়েছিলাম। কিন্তু কলেজের অধ্যক্ষা বিতর্কে জড়াতে চান না দাবি করে আমার সঙ্গে দেখা করেননি। এই প্রথম সাংসদ হিসেবে কলেজে সৌমিত্র খাঁ অর্থ সাহায্য করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সেই সাহায্য কলেজ কর্তৃপক্ষ ফিরিয়ে দিল।”

কিন্তু কিসের বিতর্ক! তাহলে কি অধ্যক্ষা শাসকদলের ঘনিষ্ঠ এবং সেই কারণেই বিজেপি সাংসদ হওয়ায় সৌমিত্র খাঁর এই বরাদ্দ অর্থ গ্রহণ করলেন না তিনি! কিন্তু যেখানে কলেজের উন্নয়নের প্রশ্ন আসছে, সেখানে অধ্যক্ষার এহেন আচরণ কি ঠিক! বিজেপির দাবি তিনি শাসকদলের ঘনিষ্ঠ আর সেই কারণেই বিজেপির উপর প্রতিহিংসার রাজনীতি করছেন আর এই অর্থ ফেরত দিলেন। বিজেপির দাবি তাদের সাংসদ তো কলেজের উন্নয়নের জন্য টাকা পাঠিয়েছিলেন। সেখানে বিজেপি ,তৃণমূল কথা থেকে এলো।

এদিন এই প্রসঙ্গে কলেজের অধ্যক্ষা স্বপ্না ঘোড়াই বলেন, “এলাকার সাংসদ হিসেবে সৌমিত্র খাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। সবাইকে স্বাগত। তবে এই আনন্দ অনুষ্ঠানের দিনের বিষয়ে কিছুই বলব না।” সব মিলিয়ে এবার বিজেপি সাংসদকে মঞ্চে উঠতে না দেওয়া এবং তাকে চরম অপমানিত করায় তীব্র বিতর্ক শুরু হল।

Top
error: Content is protected !!