এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > তৃণমূল যুব কংগ্রেসের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ তৃণমূলেরই দাপুটে বিধায়কের

তৃণমূল যুব কংগ্রেসের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ তৃণমূলেরই দাপুটে বিধায়কের

ফের রাজনৈতিক হানাহানি ও হিংসার শিকার সাধারণ মানুষ। পরিত্যক্ত বোমাকে বল ভেবে খেলতে গিয়ে গুরুতর জখম হয়েছে দুই ছাত্র। যুব তৃণমূল ও তৃণমূলের মধ্যের সংঘর্ষের পরবর্তী ঘটনা এটি। জানা গেছে আহতদের নাম লতিফ মিঁয়া ও ইসরাউল হক।
জখম দুই শিশুর পরিবার জানিয়েছে, প্রতিদিন সকালে লতিফ ও ইসরাউল পেটলা স্কুলের মাঠে শরীরচর্চা করতে যায়। এদিন সকালে তারা শরীরচর্চা সেরে ফেরার পথে রাস্তায় কালো পলিথিনে মোড়া গোলাকৃতি প্যাকেট দেখে সেটাকে বল ভেবে লাথি মারে। তখনই সেটি ফেটে যায়। গুরুতর জখম দুই খুদে দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, শনিবার রাতে ওই এলাকায় তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষে ব্যপক বোমাবাজি হয়েছিল। সেই সময়েই একটি বোমা রাস্তার ধারে থেকে যায়। তাতেই লাথি মেরে দুই ছাত্র জখম হয়েছে।
স্থানীয় বিধায়ক তৃণমূল কংগ্রেসের জগদীশচন্দ্র বর্মা বসুনিয়া বলেন, শনিবার রাতে যুব তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা তৃণমূল কর্মীদের উপর আক্রমণ

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

করেছিল। সেই কারণেই পেটলা উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। কোচবিহার জেলা যুব তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক নিশীথ প্রামাণিক বলেন, মজিদুল সরকার নামে এক দুষ্কৃতীর বাড়িতে বোমা বানিয়ে রাতে যুব কর্মীদের উপর আক্রমণ করা হয়। এদিন সকালে তারই একটি বোমা ফেটে দুই ছাত্র জখম হয়েছে। তৃণমূলের পেটলা অঞ্চল সভাপতি মজিদুল সরকার বলেন, আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই যুবরা আমাকে নানাভাবে হেনস্তার চেষ্টা করছে। আমার উপর আক্রোশ মেটাতে তারা গতকাল রাতে আমার বাড়িতে হামলা করেছে।
প্রসঙ্গত উল্লেখ্য পঞ্চায়েত ভোটের আগে পেটলায় মাদার তৃণমূলের দাপট থাকলেও ফলাফল বের হওয়ার পর যুবতে যোগ দেন মাদার তৃণমূলের পেটলা গ্রাম পঞ্চায়েত সভাপতি সহ কয়েকজন জয়ী পঞ্চায়েত সমিতি ও গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য। আবার এর পাল্টা জবাবে একদা যুব ঘনিষ্ঠ মজিদুল সরকারকে তৃণমূলের পেটলা অঞ্চল সভাপতি করা হয়। এই চাপান উতরের মধ্যেই শনিবার রাতে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে দুই দল। বোমাবাজি ও গুলির খবর পেয়ে মহকুমা পুলিশ আধিকারিকের নেতৃত্বে বিশাল পুলিশ বাহিনী গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।
আহত লতিফ পেটলা উচ্চ বিদ্যালয় সপ্তম শ্রেণীর এবং ইসরাউল ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্র। হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, দু’জনেরই পা জখম হয়েছে। তবে অবস্থা স্থিতিশীল। দিনহাটা মহকুমা পুলিশ আধিকারিক উমেশ গণপত বলেন, ঘটনার তদন্ত চলছে। যুব তৃণমূল কংগ্রেস জানিয়েছে, জখম ছাত্রদের চিকিৎসার ব্যয় ভার বহন করবে তারা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!