এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নজরে রাজ্যের ১৪% হিন্দিভাষী ভোট, নির্বাচনের আগে বড় ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির

নজরে রাজ্যের ১৪% হিন্দিভাষী ভোট, নির্বাচনের আগে বড় ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির

২০১১ সালে রাজ্যে পালাবদলের পর তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন মা-মাটি- মানুষের সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই শিক্ষাব্যবস্থায় প্রভূত উন্নয়ন ঘটেছে বলে বিভিন্ন সময়ে দাবি করতে দেখা গেছে রাজ্যের শাসক দলকে। আর এবার আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের ঠিক আগে রাজ্যের শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নতিতে আরও একধাপ এগোল রাজ্য সরকার। রাজ্যের জনসংখ্যার ১৪% হিন্দিভাষী পড়ুয়াদের কথা মাথায় রেখে এবার হাওড়ায় প্রথম হিন্দি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সূত্রের খবর, বুধবার দুপুরে হাওড়ার আরুপাড়ায় এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন বাংলার প্রশাসনিক প্রধান। জানা গেছে, এখানকার মোট তিন একর জমিতে এই হিন্দি বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি হবে। তবে রাজ্যের দুই প্রান্ত একটি উত্তরবঙ্গ এবং অপরটি আসানসোলে এই হিন্দি বিশ্ববিদ্যালয়ের দুটি ক্যাম্পাস তৈরি হবে বলেও এদিন ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যের উন্নয়নে শিক্ষা ব্যবস্থায় বর্তমান সরকার যেভাবে এগিয়ে চলেছে এদিন তার কথা তুলে ধরে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “স্বাধীনতার পর থেকে ২০১১ সালে আমরা ক্ষমতায় আসার আগে পর্যন্ত এই রাজ্যে ১২ টা বিশ্ববিদ্যালয় ছিল”।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

তিনি আরও জানান, “আর এখন সেই সংখ্যাটা ২৮ এ দাঁড়িয়েছে। ৫০ টা কলেজ, ৩০০ টি আইটিআই এবং পলিটেকনিক তৈরি হয়েছে। আর এতসব সত্ত্বেও কিছু লোক হিংসুটে আর কূটকচালি ছাড়া কোনো উন্নয়নই দেখতে পাচ্ছে না। আসলে এরা কানে দিয়েছি তুলো, আর পিঠে বেঁধেছে কুলো”! রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, এদিন হিন্দি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনে রাজ্যের অনুন্নয়ন নিয়ে বিরোধীদের অভিযোগ প্রসঙ্গে সেই রাজ্যের উন্নয়ন তুলে ধরে সেই বিরোধীদেরই খোঁচা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী।

হাওড়া জেলায় রাজ্যের প্রশাসনিক সদর দপ্তরের কথা তুলে ধরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন বলেন, “হাওড়ায় যে রাজ্য প্রশাসনিক সদর হতে পারে এটা কেউ ভেবেছিল! কিন্তু আজ নবান্ন দেখুন, গোটা এলাকাই পাল্টে গিয়েছে”। এবার নবান্নের পাশে স্বাস্থ্য ভবন তৈরি করা হবে বলেও মুখ্যমন্ত্রীর এদিনের ঘোষণায় হাততালির রোল ছড়িয়ে পড়ে গোটা সভাস্থলে। যদিও, মুখ্যমন্ত্রীর এইসকল ঘোষণাকে ‘নির্বাচনী স্টান্ট’ ছাড়া অন্য কিছু বলতে রাজি নন বিরোধীরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!