এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > একদা দুই মমতা-ঘনিষ্ঠ ‘সৈনিক’ এখন সম্মুখসমরে, প্রথম রাউন্ডের লড়াই গেল গতকাল

একদা দুই মমতা-ঘনিষ্ঠ ‘সৈনিক’ এখন সম্মুখসমরে, প্রথম রাউন্ডের লড়াই গেল গতকাল

একসময়ের দুই হেভিওয়েট পিটিটিআই নেতা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে পাশে পেয়ে বাম জামানায় নাস্তানাবুদ করে ছেড়েছিলেন লালশিবির কর্তাদের। এরাই পরবর্তীকালে নেত্রী রাজ্যের ক্ষমতায় এলে তৃণমূলের সক্রিয় কর্মী হয়ে যান। কথা হচ্ছে অশোক রুদ্র এবং পিন্টু পাড়ুই-এর। অশোক রুদ্র এখনো তৃণমূলের একনিষ্ঠ সাধক থাকলেও পিন্টু পাড়ুই কিন্তু দল ছেড়েছেন বহুদিন আগেই।

প্রত্যাশা অনু্যায়ী দলে গুরুত্ব না পেয়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন তিনি। একসময় যাঁরা সহযোদ্ধা ছিলেন সময়ের ফেরে আজ তারাই একে অপরের বিপক্ষে দাঁড়িয়ে। এক সপ্তাহের ফারাকেই দুজনই প্রাথমিক শিক্ষকদের নিয়ে কনভেনশন করছেন। এদিন নজরুল মঞ্চে দুপুর ১২ টায় হয়ে গেল পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির কনভেনশন। তৃণমূল ছাত্র পরিষদের রাজ্য সভাপতির দায়িত্ব সামলানো মানুষটি এখন তৃণমূলের প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি।

অশোক রুদ্রের এই কনভেনশনে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় সহ তৃণমূল মন্ত্রীসভার আরো অনেক গুরুত্বপূর্ণ সদস্য উপস্থিত ছিলেন বলেই জানা গিয়েছে। আবার অন্যদিকে, ১ ডিসেম্বর ভারতসভা হলে কনভেনশন হতে চলেছে বেঙ্গল প্রাইমারি ট্রেইনড টিচার্স অ্যাসোসিয়েশনের। পিন্টু পাড়ুই ওই সংগঠনের রাজ্য সভাপতি। রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ, মুকুল রায় সহ আরো অনেক হেভিওয়েট বিজেপি নেতাদের উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে উল্লিখিত কনভেনশনে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না – তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এমনকি, সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারেন সুজন চক্রবর্তী বা আব্দুল মান্নানের মত হেভিওয়েট বিরোধী নেতারাও বলে পিন্টুবাবু নিজেই জানিয়েছিলেন প্রিয় বন্ধু মিডিয়াকে। ১ লা ডিসেম্বরের কনভেনশন প্রসঙ্গে তৃণমূল বিধায়ক ডাঃ নির্মল মাজির এক সময়ের নির্বাচনী এজেন্ট পিন্টু পাড়ুই জানান, তাঁদের সংগঠন বিজেপি সমর্থিত হলেও এই সংগঠন এখনো একটি অরাজনৈতিক সংগঠন হিসাবেই বেশি পরিচিত।

তিনি জানান, রাজ্যের ক্ষমতায় আসার সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেছিলেন, পর্যায়ক্রমে আগামী তিন বছরের মধ্যে পিটিটিআই প্রার্থীদের শিক্ষকতার চাকরি দেবেন – কিন্তু এখনো সবাই চাকরি পাননি। এসব প্রার্থীদের অবিলম্বে চাকরি দেওয়ার দাবী যেমন থাকবে, তেমনি কেন্দ্রীয় হারে রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধির দাবীও তোলা হবে কনভেনশনে।

আসলে অশোক রুদ্রকে যেদিন টিএমসিপির রাজ্যসভাপতি করে দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়,তবে থেকে নিজেকে বঞ্চিত মনে করতে থাকেন পিন্টু পাড়ুই – এমনটাই তাঁর ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে জানা গিয়েছে। তবে অশোক রুদ্র তৃণমূলের সঙ্গ ধরে রাখার সুফল পেয়েছেন। যুব তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে প্রাথমিক শিক্ষক সংগঠনের সভাপতির দায়িত্বও দিয়েছেন নেত্রী তাকে। আর সেপ্টেম্বরে এই দায়িত্ব পাওয়ার পরই প্রথমবার এতো বড় কনভেনশনের আয়োজন করা হল তাঁর তত্ত্বাবধানে।

নজরুল মঞ্চে এতো লোককে জায়গা দেওয়া সম্ভব নয় বলে ৭৫০ টি ইউনিট থেকে প্রতিনিধিত্বমূলক আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। শুধু তাই নয়, বাইরে জায়েন্ট স্ক্রিন ও বসার বন্দোবস্তও করা হয়েছিল। বহু প্রাথমিক শিক্ষক অংশগ্রহণ করেছিলো কনভেনশনে বলে সংগঠনের তরফে দাবি করা হয়। তবে বেতন বৃদ্ধি সংক্রান্ত তেমন কোনো ঘোষণা হয়নি এদিন। আসলে কনভেনশনটি সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধি করতেই করা হয়েছে – এমনটাই এদিন সাফ জানিয়ে দিলেন অশোকবাবু।

Top
error: Content is protected !!