এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > আমি ভুল করলে আমাকে ক্ষমা করবেন, আমার কাছে ক্ল্যারিফিকেশন চাইবেন: মমতা ব্যানার্জি

আমি ভুল করলে আমাকে ক্ষমা করবেন, আমার কাছে ক্ল্যারিফিকেশন চাইবেন: মমতা ব্যানার্জি

গতকালই উত্তরবঙ্গে পা রেখেছেন তিনি। পুজোর পর এই প্রথম তার উত্তরবঙ্গে আসা। আর সেই উত্তরবঙ্গ সফরে এসে সোমবার শিলিগুড়ির বিজয়া সম্মিলনীর অনুষ্ঠান থেকে নিজেকে বাংলার পাহারাদার হিসেবে তুলে ধরে তিনি রাজ্যের মানুষের বিপদে সব সময় পাশে থাকবেন বলে জানিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সূত্রের খবর, এদিন শিলিগুড়ির মাল্লাগুরির পুলিশ লাইনের মাঠে শিলিগুড়ি মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের আয়োজনে একটি বিজয়া সম্মেলনীর অনুষ্ঠান করা হয়। যেখানে দার্জিলিং, কালিম্পং, জলপাইগুড়ি, কোচবিহার এবং আলিপুরদুয়ারের ক্লাব প্রতিনিধি, ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে বিশিষ্ট নাগরিকেরা উপস্থিত ছিলেন। আর সেখানে উপস্থিত হয়ে লোকসভা নির্বাচনে ভরাডুবির পর এই প্রথম উত্তরবঙ্গ সফরে এসে সকলকে আশ্বস্ত করে বিভিন্ন বিষয়ে বক্তব্য রাখলেন প্রশাসনিক প্রধান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

বাংলার কৃষ্টি-সংস্কৃতির কথা তুলে ধরে সদ্য নোবেলজয়ী অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রসঙ্গ সামনে এনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “এই রাজ্যে নোবেল প্রাপকে সংখ্যা বেশি। একদিন বাংলা বিশ্বসেরা হবেই।” আর এরপরই উত্তরবঙ্গের মানুষদের মধ্যে এনআরসি নিয়ে যে ভয়-ভীতি ছড়িয়েছে, তা কিছুটা কাটাতে উদ্যোগী হন মুখ্যমন্ত্রী।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

তিনি বলেন, “বাংলার নাগরিকরা সকলেই ভারতবর্ষের নাগরিক। নবজাগরণ, স্বাধীনতা সংগ্রাম আমাদের এই অধিকার দিয়েছে। ভোটাধিকার আছে মানেই আমরা নাগরিক। জেনে রাখুন, এনআরসি করতে দেব না। আমরা করম পূজা থেকে শুরু করে ভাদু উৎসব, সমস্ত উৎসবের মানুষকে একত্রিত করে সব ধর্মকে এক করেছি। আমি ভুল করলে আমাকে ক্ষমা করবেন, আমার কাছে ক্লারিফিকেশন চাইবেন। কিন্তু একটা ইনফরমেশন জেনে রাখবেন, অসমে এনআরসি থেকে যাদের বাদ দেওয়া হয়েছে, তাদের মধ্যে বেশি রাজবংশী রয়েছে। কেউ কেউ হিন্দিভাষীদের কাছে গিয়ে বলছে এনআরসি হলে আপনারা থাকবেন, অন্যরা থাকবে না। রাজবংশীদের কাছে গিয়ে বলছে, আমরা আপনাদের লোক। সবার মধ্যে ভাগ তৈরীর চেষ্টা চলছে। কিন্তু আমি বাংলার পাহারাদার। কখনই এই ভেদাভেদ বাংলা মেনে নেবে না।”

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন উত্তরবঙ্গের মাটিতে পা রেখে রাজবংশী অধ্যুষিত এলাকা থেকে সেই রাজবংশী মানুষদের মধ্যেই বিজেপি বিভাজন তৈরির চেষ্টা করছে বলে পরোক্ষে বিজেপির নাম না করে গেরুয়া শিবিরকে কাঠগড়ায় তুলে ধরে নিজেদের ভোটব্যাঙ্ক বৃদ্ধির চেষ্টা করলেন বলে বিশ্লেষকদের। কেননা লোকসভা নির্বাচনে এখানে তৃণমূল ভালো ফল না করার জন্য অনেকটাই পিছিয়ে পড়তে হয়েছে রাজ্যের শাসক দলকে।

তাই বিধানসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে প্রশাসনিক প্রধান হিসেবে শিলিগুড়িতে এসে বিজয়া সম্মিলনীর অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে এনআরসি নিয়ে বিজেপিকে নাম না করে কটাক্ষ করে সাধারণ মানুষের পাশে থাকার বার্তা দিলেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!