এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > এবার অনলাইন প্রতারণার শিকার খোদ মুখ্যমন্ত্রীর দাদা অজিত ব্যানার্জি! তদন্তে পুলিশ

এবার অনলাইন প্রতারণার শিকার খোদ মুখ্যমন্ত্রীর দাদা অজিত ব্যানার্জি! তদন্তে পুলিশ

রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় প্রতারণা সংস্থাগুলো তাদের ব্যবসার ফাঁদ খুলে বসেছে বলে বিভিন্ন সময়ে অভিযোগ করতে দেখা গেছে। আর এবার সেই অনলাইনে নাতির জন্য খেলনা কিনতে গিয়ে প্রতারণার শিকার হলেন বেঙ্গল অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দাদা অজিত বন্দোপাধ্যায়। জানা গেছে, এর ফলে মুখ্যমন্ত্রীর দাদার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে প্রায় 10 হাজার 862 টাকা খোয়া গিয়েছে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

বস্তুত, গত 29 আগস্ট বিকেল পাঁচটা পনেরো নাগাদ চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্র নিজের নাতির জন্য অনলাইনে একটি খেলনা কিনছিলেন অজিত বন্দোপাধ্যায়। যে খেলনাটির দাম ছিল 820 টাকা। কিন্তু অজিতবাবু তার অ্যাক্সিস ব্যাংকের কার্ড থেকে খেলনার টাকা মিটিয়ে দেওয়ার পরই রহস্যজনকভাবে তার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে পরপর প্রায় 13 দফায় মোট 10 হাজার 862 টাকা 95 পয়সা কেটে নেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ। আর এই ঘটনার পরেই তীব্র চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়।

খোদ মুখ্যমন্ত্রীর দাদার ক্ষেত্রেই এই ধরনের ঘটনা ঘটায় সত্যিই যে অনলাইনে এবার প্রতারণার জাল তৈরি হয়েছে, তা বুঝতে পারেন সকলেই। সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই গত পয়লা সেপ্টেম্বর কালীঘাট থানায় অজিত বন্দোপাধ্যায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। যেখানে পুলিশ অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির বিরুদ্ধে 120 বি, 420, 467 468 এবং 471 এর মত একাধিক জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা দায়ের করে তদন্ত শুরু করেছে।

তবে অজিতবাবুর দায়ের করা এই লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে যেমন কালীঘাট থানা তদন্ত করছে, ঠিক তেমনই লালবাজারের গোয়েন্দারাও তাদের তদন্ত প্রক্রিয়া চালাতে শুরু করেছেন। সব মিলিয়ে এবার অনলাইন প্রতারণার শিকার হলেন মুখ্যমন্ত্রীর দাদা।

Top
error: Content is protected !!