এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিয়ে কাতর আবেদন – তৃণমূলের ‘গুন্ডা ট্যাক্সের’ জন্য কারখানা বন্ধের মুখে

মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিয়ে কাতর আবেদন – তৃণমূলের ‘গুন্ডা ট্যাক্সের’ জন্য কারখানা বন্ধের মুখে

এবার রাজ্যের অপরিশোধিত পাম অয়েল তৈরির কারখানাতেও শাসকদলের দাপুটে নেতাল থাবা পড়ায় তটস্থ সকলে। জানা গেছে, উত্তর পূর্ব ভারতের সবচেয়ে বৃহৎ পাম অয়েল তৈরির কারখানা রয়েছে এরাজ্যের বজবজে। 2006 সাল থেকে চালু এই কারখানায় বর্তমানে 800 শ্রমিক কাজ করেন।

অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরেই এই কারখানায় আসা সমস্ত গাড়ির কাছ থেকে বলপূর্বক টাকা তুলত বজবজের তৃনমূল নেতা শেখ লুৎফর হোসেন ও তাঁর অনুগামীরা। মাঝে পুলিশ প্রশাসনকে জানালে এই দাদাগিরি কিছুটা কমলেও ফের এই মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে এই টাকা তোলা শুরু হয়েছে। ফলে বিভিন্ন জায়গা থেকে আগের মত আর কোনোই অর্ডার পাচ্ছেন না এই বজবজ রিফাইনজ কতৃপক্ষ। কিন্তু শাসকদলের দাপুটে নেতার এহেন দাদাগিরি কেন! কেন এইভাবে জোর করে টাকা তুলছেন তিনি?

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

এই প্রশ্নের জবাবে সেই অভিযুক্ত তৃনমূল নেতা লুৎফর হোসেন বলেন, “সব কারখানায় আমাদের ইউনিয়ন রয়েছে। এই ইউনিয়নের কল্যান তহবিলের জন্য এখানে লরি ও ট্রাক পিছু 50-100 টাকা নেওয়া হয়। তবে জোর করে চাঁদা তোলা হয় না।”  অন্যদিকে আগে এরূপ অভিযোগ পেলেও এখন এইরকম কোনো ঘটনা ঘটেনি বলে জানান জেলা পুলিশ সুপার কোটেশ্বর রাও। তবে এইধরনের ঘটনাকে দল যে কখনই প্রশ্রয় দেয় না সে ব্যাপারে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন দক্ষিন 24 পরগনা জেলা তৃনমূল শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি শক্তি মন্ডল।

তবে জেলার শাসকদলের নেতা থেকে পুলিশ সুপার এখন আর কারও ওপরই ভরসা রাখতে পারছেন না এই বজবজ রিফাইনজ কতৃপক্ষ। তাই এবার তাঁরা এই ব্যাপারে অভিযোগ জানিয়ে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে । পাম্পে শাসকদলের নেতার এই বাড়বাড়ন্ত রুখতে এখন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান ঠিক কী পদক্ষেপ নেন সেদিকেই তাকিয়ে পাম্প কতৃপক্ষ।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!