এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > দীপাবলিতে আলোর উৎসবেও মন খারাপ মুখ্যমন্ত্রীর, দিলেন বড় বার্তা – জানুন বিস্তারিত

দীপাবলিতে আলোর উৎসবেও মন খারাপ মুখ্যমন্ত্রীর, দিলেন বড় বার্তা – জানুন বিস্তারিত

সপ্তাহ ঘুরতেই দীপাবলীর উৎসব শুরু হয়ে যাবে,অথচ মনে অশুভ ইঙ্গিত মুখ্যমন্ত্রীর। এদিন উওরবঙ্গ সফর সেরে কোলকাতা নেমেই সোজা চলে আসেন গিরীশ পার্কে ফাইভ স্টার স্পোর্টিং ক্লাবের কালীপুজোর মণ্ডপে।

বিধায়ক স্মিতা বক্সি-সঞ্জয় বক্সির পুজো মন্ডপ উদ্বোধন করার পর বক্তব্যে নিজের মনের খারাপ অবস্থা তুলে ধরেন নেত্রী। বলেন,গোটা দেশ জুড়ে এই অদ্ভুত সংকটের পরিস্থিতির সাপেক্ষে মন ভালো নেই নেত্রীর। গুজরাট থেকে বিহারীদের যেভাবে তাড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে,অসমের তিনসুকিয়ায় বাঙালিরা যেভাবে খুন হল তা দেখে উৎসবের মরশুমেও মনে শান্তি নেই নেত্রীর।

বললেন,এর আগে ইনকাম ট্যাক্স, সিবিআই, এক্সাইজ, এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট প্রভৃতি এজেন্সি ছিল। কিন্তু এইভাবে কখনও এজেন্সিকে দিয়ে ভয় দেখানো হয়নি। রাজনৈতিক দলের মদতে এজেন্সিগুলো কাজ করছে। এজেন্সির আধিকারিকরা অভিযুক্তদের গ্রেপতার করার কথা প্রকাশ্যে বলে জনগনের সহানুভূতি অর্জন করছে অথচ কাজের কাজ করছে না কিছু।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

হিংসার রাজনীতি চলছে চারপাশে। উল্লেখ্য, এই পুজো মন্ডপে মুখ্যমন্ত্রী আসার আগেই স্থানীয় সংসদ সদস্য সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, মন্ত্রী সাধন পাণ্ডে, ডাঃ শশী পাঁজা, চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য, তাপস রায়, মালা রায় প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। হাজির ছিলেন কোলকাতা পুরসভার কাউন্সিলররাও।

পুজে মন্ডপ উদ্বোধন করার পরই তিনি সম্প্রতি অসমে তিনসুকিয়ার গনহত্যা প্রসঙ্গে নিজের উষ্মা ব্যক্ত করলেন। বললেন এ খুন তিনি মেনে নিতে পারছেন না। খুন গরীবের হোক বা বড়লোকের,খুন আসলে খুনই। এই মুহূর্তে গোটা দেশের পরিস্থিতিই খারাপ। তা দেখে আলোর উৎসবও ফিকে হয়ে গিয়েছে তাঁর কাছে। জানালেন,”আমরা দেশকে ভালোবাসি। মাকে ভালোবাসি। তাই মায়ের কাছে প্রার্থনা করি, মানুষের মন থেকে মলিনতা, নৃশংসতা দূর করো। আনন্দের মধ্যেও দুঃখ রয়ে গিয়েছে। আলোকের এই উৎসধারায় সব মলিনতা দূর করো। আমি প্রতিবারই এই পুজোয় আসি। খুব ভালো লাগে।” দুর্গা পুজোর প্রসঙ্গে টেনে পুলিশ প্রশাসনের কাজের ভূয়সী প্রশংসা করলেন নেত্রী। বললেন,”পুলিস ভালো কাজ করেছে। আমি ওদের ধন্যবাদ জানাই।”এবং বক্তব্যের শেষে মা কালীকে শক্তির দেবী বলে ব্যাখ্যা করে ধর্ম প্রসঙ্গে সম্প্রীতির বার্তা দিলেন নেত্রী।

উল্লেখ্য,এদিন তিনি দেশের টালমাটাল পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে ব্যবসায়ীরা ঠিকমতো ব্যবসা করতে পারছেন কিনা সেটাও জিজ্ঞাসা করলেন নেত্রী। জবাবে তিনি নিজেই বললেন,”আমি জানি,আপনাদের পক্ষে প্রকাশ্যে বলা সম্ভব নয়। কিন্তু অনেকেই আমাকে বলেছেন, ব্যবসার অবস্থা ভালো নয়। আমাদের ডিসটার্ব করা হচ্ছে। ব্যবসায়ীদের পিছনে আইটি, ইডি লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে। ভয় দেখানো হচ্ছে। এজেন্সি টেলিফোন করে বিভিন্ন কমিটিতে আরএসএস-এর লোকেদের নিতে হবে বলে হুমকি দিচ্ছে।” এ প্রসঙ্গে বিজেপিসরকারের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানিয়ে বললেন,আগে মহিলারা ঘরে লক্ষীর ভান্ডার রাখতেন বিপদ-আপদে পড়লে খরচ করার জন্য। এখন তো সেটাও করা যাচ্ছে না। আইটি,ইডিরা এসে সব লুট করে নিয়ে যাচ্ছে। এদিন নেত্রী গিরীশ পার্কের কালীপুজো উদ্বোধন করার পর সোজা চলে যান জানবাজারে ও শেক্সপিয়র সরণীর কালীপুজোর প্রতিমার আবরণ উন্মোচন করতে। তবে,এদিনের কালি প্রতিমার আবরণ উন্মোচন করেই তিনি পুজো পরিক্রমার শুভ সূচনা করলেন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!