এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > মুখ্যমন্ত্রীর হাত ধরে ১০ টা চপ বিক্রি করে মিললো ৫০০ টাকা! জানুন বিস্তারিত

মুখ্যমন্ত্রীর হাত ধরে ১০ টা চপ বিক্রি করে মিললো ৫০০ টাকা! জানুন বিস্তারিত

পাঁচ বছর পর ফেলে শৈশবের স্মৃতি আরো একবার রোমন্থন করতে মামাবাড়ি কুসুম্বায় পা রাখলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বীরভূমের রামপুরহাটের চাকাইপুর গ্রামে তাঁর জন্ম হলেও শৈশবের অনেকটা সময় তিনি কাটিয়েছেন মামাবাড়িতে।

প্রশাসনিক কাজের চাপের জন্য দীর্ঘদিন মামাবাড়িতে যাওয়া হয়নি তাঁর। এতোবছর পর সময় বের করে সেই মামাবাড়িতে আসছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ এ খবর চাউড় হতেই সাজো সাজো রব পড়ে যায় কুসুম্বাতে। আসলে নেত্রীর কালীঘাটের বাড়ির কেয়ারটেকার মিন্টু দাসের ছেলের বিয়ের নিমন্ত্রণ রক্ষা করতেই কুসুম্বায় এলেন মুখ্যমন্ত্রী।

রামপুরহাটে মনসুবা মোড়ে প্রশাসনিক জনসভা করার পরই কুসুম্বার পথে পা বাড়ান নেত্রী। মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীকে দেখার জন্যে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে ছিলেন গ্রামের বাসিন্দা থেকে শুরু করে ওনার মামা,মামাতো দাদা আর বৌদিও। তবে পাঁচবছর পর মামাবাড়ি যাচ্ছেন,খালি হাতে কি যাওয়া যায়? তাই গ্রামে ঢুকেই তিনমাথা মোড়ে চায়ের দোকান থেকে দশটি তেলেভাজা কিনে ফেললেন মুখ্যমন্ত্রী।

কুসুম্বা গ্রামে প্রবেশপথের মুখেই তিন মাথা মোড়৷ সেখানে দীর্ঘ ৩৫ বছর ধরে চা এবং তেলেভাজার দোকান চালাচ্ছেন সমাধিস বাউড়ী। সেই দোকান থেকেই ৫০০ টাকার বিনিময়ে মামাবাড়ির জন্যে ১০ টি তেলেভাজা কিনলেন মুখ্যমন্ত্রী। সঙ্গে খোঁজ নিলেন তাঁর ব্যবসা ঠিকমতো চলছে কিনা।

[content_block id=3910

শুধুতাই নয়,সমাধিস বাবুর দোকান ঠিকঠাক করে দেওয়ারও আশ্বাস দিলেন নেত্রী। তবে দোকানে তেলেভাজা কিনতে মুখ্যমন্ত্রীকে আসতে দেখে বাকি পাঁচজন দোকানদারের মতো অবাক হননি সমাধিসবাবু। তবে আনন্দে উৎফুল্ল হয়ে ওঠেন তিনি। জানালেন,ছোটবেলা থেকেই নাকি এই দোকানে নিয়মিত আসা যাওয়া ছিল মমতার। তাই এতোদিন পর তাকে সেই দোকানে দেখে একটুও অবাক না হলেও আনন্দে এবং গর্বে বুক ভরে গেল তাঁর।

তবে মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মামাবাড়ির এলাকায় এভাবে হেঁটে এসে চিরপরিচিত দোকান থেকে চপ কিনবেন এটা ভাবতে পারেননি সমাধিস বাবু। তাঁর কথায়,’আজকে দোকানে এসে ১০টি চপ কিনে নিয়ে গেলেন। বিনিময় আমাকে ৫০০টাকা দিলেন। দোকান কেমন চলছে তারও খবর নিলেন তিনি। এমন কি বলে গেছেন দোকান ভালো করে সাজিয়ে দেবেন। আমি খুব খুশি হয়েছি, কিন্তু অবাক হইনি।’

Top
error: Content is protected !!