এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > মুখ্যমন্ত্রীর নাম করে চাকরির টোপ দিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকার প্রতারণা, পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভ

মুখ্যমন্ত্রীর নাম করে চাকরির টোপ দিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকার প্রতারণা, পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভ

রাজ্যস্তরে দুর্নীতি কি তাহলে কোনো মতেই থামবে না! প্রতিদিন সকালে খবরের কাগজে কাটমানি নিয়ে খবর যেন এই প্রশ্নই তুলে দিচ্ছে সর্বত্র। এবার আর কোনো শাসক দলের নেতা নন, খোদ তৃণমূল দলের সর্বাধিনায়িকা তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম জড়িয়ে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগকে ঘিরে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ল।

জানা যায়, অভিযুক্ত যুবকের নাম অয়ন শীল। তিনি চুঁচুড়ার বাসিন্দা। বুধবার রাজ্যের একাধিক এলাকা থেকে অনেক প্রতারিতরা সমবেত হয়ে চন্দননগরের পুলিশ কমিশনারকে এই ব্যাপারে স্মারকলিপি দেওয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু কমিশনার স্মারকলিপি না নিলেও প্রতারিতদের সঙ্গে কথা বলে জানতে পারেন যে এর পেছনে একটি বড়সড় প্রতারণা চক্র কাজ করছে।

জানা গেছে, রাজ্যের একাধিক নেতার সঙ্গে নিজের বিভিন্ন সময়কার ভিডিও দেখিয়ে চাকরি দেওয়ার নামে অয়ন শীল নামে ওই যুবক বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা নিয়েছে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এদিন এই প্রসঙ্গে সর্বহারা দক্ষিণ 24 পরগনার বাসিন্দা সফিউল হক খান বলেন, “আমার মেয়ের চাকরির ক্ষেত্রে অয়ন শীলের একটা ভূমিকা ছিল। সেটা জানাজানি হতেই স্থানীয়রা আমাকে ওর সঙ্গে যোগাযোগ করিয়ে দিতে বলে। তারপরেই নানা দপ্তরের কাজের নাম করে আমি প্রায় 67 লক্ষ টাকা ওকে তুলে দিই। কিন্তু কারও কাজ হয়নি। টাকাও ফেরত পাওয়া যায়নি। আমাকে টাকার জন্য পাড়াছাড়া হতে হয়েছে।

কিন্তু টাকা নিয়ে চাপাচাপি শুরু হতেই প্রথমে নেতা-মন্ত্রী এমনকি মুখ্যমন্ত্রীর নাম করে হুমকি দেওয়ার পর উনি পালিয়ে গিয়েছেন। তাই আমরা এনিয়ে অভিযোগ দায়ের করেছি।” অন্যদিকে তাদেরকে বিকাশ ভবনে নিয়ে গিয়ে কাউন্সেলিং করিয়ে নানা নেতা মন্ত্রীর সঙ্গে অয়নবাবু নিজের ঘনিষ্ঠতার ছবি দেখিয়ে তাদেরকে প্রতারিত করেছেন বলে দাবি সোম মুখোপাধ্যায় নামে আরেক প্রতারিতর।

স্থানীয় সূত্রের খবর, অভিযুক্ত অয়ন শীলের বাড়ি চুঁচুড়ার যুগীদাস পাড়ায়। গত 2015 সাল থেকে এই যুবক একটি প্রতারণার বিরাট চক্র ফেদে বসেছিলেন। তিনি বলাগড়ের ডুমুরদহ গ্রাম পঞ্চায়েতের কর্মী হলেও তিনটি কোম্পানি তৈরি করে চাকরি দেওয়ার নাম করে প্রতারণা শুরু করেছিলেন। যেখান থেকে রেল, সরকারের প্রাইমারি এবং গ্রুপ ডি পর্যন্ত চাকরি করে দেওয়ার নাম করে বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে টাকা তুলেছিলেন ওই অভিযুক্ত।

কিন্তু চলতি বছরের শুরুতেই অবস্থার পরিবর্তন হতে শুরু করে। বিভিন্ন প্রতারিতরা সেই অয়ন শীলের কাছে টাকা চাইতে শুরু করলে তিনি বিভিন্ন নেতা মন্ত্রীর সাথে তার ওঠাবসার ভিডিও দেখিয়ে তাদেরকে হুমকি দেন। আর এরপরই গোটা ব্যাপারটি অনুধাবন করতে পারে প্রতারিতরা।

এদিন চন্দননগরের পুলিশ কমিশনারের কাছে স্মারকলিপি দিতে এসেছিলেন প্রতারিত ব্যক্তিরা। আর খোদ মুখ্যমন্ত্রীর নাম করে এইভাবে এক যুবক চাকরি দেওয়ার নামে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে টাকা তোলার ঘটনা প্রকাশ্যে আসায় এবার সর্বত্র তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে। কিভাবে একজন যুবক এই ধরনের সাহস পেলেন, তা নিয়ে যেমন প্রশ্ন উঠছে, ঠিক তেমনই রাজ্য সরকার এত সচেতনতামূলক বার্তা দেওয়ার সত্বেও কেন এই ধরনের ঘটনা নিত্যনতুন ভাবে ঘটে চলেছে! তা নিয়েও তৈরি হয়েছে বড়মাপের প্রশ্নচিহ্ন।

Top
error: Content is protected !!