এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বিজেপির “মুখ্যমন্ত্রী গো-ব্যাক” পোস্টার ঘিরে তীব্র উত্তেজনা মেদিনীপুরে, পুলিশের বেদম প্রহারে আহত গেরুয়া-কর্মীরা

বিজেপির “মুখ্যমন্ত্রী গো-ব্যাক” পোস্টার ঘিরে তীব্র উত্তেজনা মেদিনীপুরে, পুলিশের বেদম প্রহারে আহত গেরুয়া-কর্মীরা

কদিন আগেই বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে কালো পতাকা ও গো ব্যাক স্লোগান দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল তৃনমূলের বিরুদ্ধে, আর এবারে খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সফরের আগের দিন কেশিয়াড়িতে সেই মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধেই গো ব্যাক পোস্টারকে ঘিরে প্রবল উত্তেজনা ছড়াল।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গতকালই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেশিয়াড়িতে একটি প্রশাসনিক সভা করেন। আর মুখ্যমন্ত্রীর সভার ঠিক আগের দিন গত রবিবার রাতেই কেশিয়াড়ি বাজার ও বাসস্ট্যান্ড মোড়ে সেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামে গো ব্যাক পোষ্টার লিখে দেন কিছু ব্যক্তি।

পাশাপাশি শাসকদলের পতাকার উপরে বিজেপির পতাকাও লাগিয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। আর তা দেখেই এহেন ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ করেন তৃনমূল কর্মীরা। জানা যায়, গত রবিবার সন্ধ্যায় স্থানীয় শাসকদলের কর্মীরা সেই পোস্টারগুলো ছিঁড়ে ফেলে। আর এতেই এলাকায় তীব্র উত্তেজনা তৈরি হয়। তাদের পতাকা ছিঁড়ে ফেলায় সেই বাসস্ট্যান্ড এলাকায় জমায়েত করেন বিজেপি কর্মীরা। দীর্ঘক্ষন ধরে তারা শাসকদলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদও জানাতে থাকেন।

পরে অবশ্য পুলিশ এসে পরিস্থিতি শান্ত করে। এদিকে পুলিশ এই বিক্ষোভ সরিয়ে দিলেও পরে রাতের দিকে ফের সেইখানে জমায়েত হয়ে প্রতিবাদ করতে শুরু করে বিজেপি কর্মীরা। আর এরপরই পুলিশ লাঠি চার্জ করতে বাধ্য হয়। কিন্তু কেন খোদ রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধানের বিরুদ্ধে বিজেপি এহেন পোস্টার লাগাল?

এদিন এই প্রসঙ্গে স্থানীয় বিজেপি নেতা সনাতন দোলই বলেন, “সংখ্যাগরিষ্ঠ পাওয়া সত্ত্বেও কেশিয়াড়িতে আমাদের পঞ্চায়েত সমিতি গঠন করতে দেওয়া হয়নি। তাই এদিন দলীয় কর্মীরা মুখ্যমন্ত্রীর নামে পোস্টার দেয় ও দলীয় পতাকা বাঁধে। কিন্তু তৃণমূল কর্মীরা পুলিশকে নিয়ে সেই পতাকা খুলে মাটিতে ফেলে দেয়। আর প্রতিবাদ করতে গেলেই পুলিশ আমাদের কর্মীদের ওপর লাঠিচার্জ করে।”

বিজেপির দাবি, এই ঘটনায় তাদের দুজন মহিলা কর্মী আহত হয়েছেন। এদিকে এই কেশিয়াড়িতে পঞ্চায়েত সমিতি এখনও গঠন করতে না পারায় এদিন শাসকদলের বিরুদ্ধে খড়্গপুরের এক অনুষ্ঠানে ক্ষোভ উগরে দেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি তথা খড়গপুরের বিধায়ক দিলীপ ঘোষ। এদিন তিনি বলেন, “দিদিমণি এদিন কেশিয়াড়ি পঞ্চায়েত সমিতির আমাদের দলীয় সদস্যদের ভাঙাতে এসেছিলেন। কিন্তু ওনার সেই চেষ্টা সফল হবে না। আমাদের ওপর যেভাবে হামলা চালানো হচ্ছে কদিন পর মানুষই তার যোগ্য জবাব দেবে।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

কিন্তু দলনেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রীর সফরের ঠিক একদিন আগে এই ভাবে বিজেপির তরফ থেকে সেই মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধেই পোস্টার পড়ায় সেই বিজেপির বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন শাসকদলের স্থানীয় নেতৃত্বরা। বিজেপিকে কটাক্ষ করে ব্লক তৃনমূলের প্রাক্তন সভাপতি জগদীশ দাস বলেন, “ওরা ঝামেলা করার জন্যই আমাদের নেত্রীর নামে পোস্টার দিয়েছিল। তৃণমূলের পতাকার ওপর ওদের পতাকা বেঁধে দিয়েছিল। আমাদের কর্মীরা তা খুলে দেওয়াতেই উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে।” সব মিলিয়ে এবার মুখ্যমন্ত্রীর সফরের ঠিক এক দিন আগে সেই মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধেই বিজেপির তরফ থেকে পোস্টার দেওয়ায় তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ল মেদিনীপুরে।

Top
error: Content is protected !!