এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে বোমা তৈরি কুটিরশিল্পে পরিণত হয়েছে! বিস্ফোরক মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি

দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে বোমা তৈরি কুটিরশিল্পে পরিণত হয়েছে! বিস্ফোরক মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি

Priyo Bandhu Media


বাংলা সন্ত্রাসবাদীদের মুক্তাঙ্গনে পরিণত হয়েছে বলে বিভিন্ন সময় রাজ্যের শাসকদলের বিরুদ্ধে তোপ দাগতে দেখা যায় বিরোধী দলগুলিকে। খাগড়াগড় বিস্ফোরণ কান্ড থেকে শুরু করে সম্প্রতি রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় বিস্ফোরণের ঘটনায় বিরোধীদের সেই অভিযোগে সীলমোহর পড়তে শুরু করে। এমনকী রাজ্যের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় তোলপাড় হয়ে উঠেছিল রাজ্য রাজনীতি। আর রাজ্যে দুষ্কৃতীদের এই বাড়বাড়ন্ত এবং অস্ত্র কারখানা উদ্ধারের পেছনে শাসকদলের ইন্ধন রয়েছে বলে বারে বারেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে বিরোধী দল বিজেপি।

কিন্তু দরজায় কড়া নাড়ছে লোকসভা নির্বাচন। আর সেই লোকসভা নির্বাচনের আগে বিরোধীরা যাতে রাজ্যের সরকারের বিরুদ্ধে আর এহেন কোনো অভিযোগ আনতে না পারে সেজন্য এবার দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার নামখানার প্রশাসনিক বৈঠক থেকে এই ব্যাপারে পুলিশ প্রশাসনকে সতর্ক করে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সূত্রের খবর, এদিন দক্ষিন ২৪ পরগনার নামখানার প্রশাসনিক বৈঠক থেকে জেলার আইন-শৃঙ্খলা ব্যবস্থার বেহাল দশা নিয়ে সরব হন মুখ্যমন্ত্রী। যেখানে দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে অস্ত্র কারখানার বাড়বাড়ন্ত প্রসঙ্গে উষ্মা প্রকাশ করেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য, “দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে বোমা তৈরি কুটিরশিল্পে পরিণত হয়েছে”। আর এরপরই এই বেআইনী কাজ আটকানোর জন্য জেলার পুলিশ প্রশাসন ঠিক কতটা সদর্থক ভূমিকা পালন করছে তা জানতে চান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অন্যদিকে শুধু অস্ত্র কারখানা রোধে পুলিশ প্রশাসনকে বার্তা দেওয়াই নয়, এদিনের প্রশাসনিক সভা থেকে জেলার সমস্ত বকেয়া কাজ আগামী ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে শেষ করার নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী।

এরই পাশাপাশি হাঁসের খামার তৈরি করতে জেলা প্রশাসনকে উদ্যোগ নেওয়ার কথাও জানান তিনি। একইসঙ্গে, সরকারি আবাসন প্রকল্পে তোলাবাজি আটকানোর ব্যাপারেও সকলকে হুঁশিয়ারি দেন তিনি। রাজনৈতিক মহলের মতে, দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলায় বেআইনি অস্ত্র কারবার এবং বোমা তৈরীর বাড়বাড়ন্ত নিয়ে বিরোধীরা এতদিন যে অভিযোগ করে আসছিল, এদিন জেলার প্রশাসনিক বৈঠক থেকে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা প্রশাসনকে এই ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলে আদতে বিরোধীদের সেই অভিযোগকেই মানতা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!