এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে না পেরে পুলিশ সুপারকে লাথি, খবরের শিরোনামে বিজেপি বিধায়ক

মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে না পেরে পুলিশ সুপারকে লাথি, খবরের শিরোনামে বিজেপি বিধায়ক

অনুগত দলীয় কর্মীয় সমর্থকদের নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের সাথে সাক্ষাৎএ গেছিলেন উত্তরপ্রদেশের  বিজেপি বিধায়ক হর্ষবর্ধন বাজপেয়ী । সেই সময়ে অন্য বৈঠকে ব্যস্ত ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। গেটে ঐ বিজেপি বিধায়কের পথ আটকালেন সেখানে কর্তব্যরত পুলিশ সুপার। পুলিশ সুপারের থেকে বিধায়ক জানতে পারেন যে মন্ত্রী পদমর্যাদার না হলে ভিতরে কারোরই প্রবেশের অনুমতি নেই। এতেই কার্যত রুষ্ট হলেন বিধায়ক হর্ষবর্ধন বাজপেয়ী।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

কর্তব্যরত পুলিশ সুপারকে হুমকি দিয়েই তিনি বললেন নিজের সীমা অতিক্রম না করতে। আর বিজেপি বিধায়কের এই আচরনের ভিডিও ফুটেজ এখন সংবাদ চ্যানলের বিশেষ খবর হয়ে উঠেছে। রাজনৈতিক মহলেও প্রশ্ন উঠছে একজন কর্তব্যরত উচ্চ পদস্থ পুলিশ সুপারকে একজন বিধায়ক কী করে নিজের দায়িত্ব পালন বিষয়ে সংযত হতে বলেন ! প্রসঙ্গত শনিবার শেষ দুপুরে আগামী বছরের মকর সংক্রান্তিরর কুম্ভ স্নান নিয়ে  উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ অখিল ভারতীয় আখড়া পরিষদের সঙ্গে বৈঠক করছিলেন। এই বৈঠকে প্রবেশের একমাত্র অনুমতি ছিল রাজ্যের মন্ত্রীদের। হলে কী হবে , হর্ষবর্ধন বাজপেয়ী একজন বিজেপি বিধায়ক তাই নিজেকে সব রকম উর্দ্ধে মনে করে তিনি ঐ বৈঠকস্থলে প্রবেশ করতে যাচ্ছিলেন। কিন্তু বাধ সাধলেন গঙ্গাপুরের পুলিশ সুপার। আর তাতেই পুলিশ সুপারকে নিজের সীমা অতিক্রম না করার হুমকি দিলেন। শুধু তাই নয় ঘটনাস্থলে উপস্থিত সঙ্গবাদ মাধ্যমের তোয়াক্কা না করেই মেজাজ হারিয়ে উত্তেজনার বশে পুলিশ সুপারকে লাথি মারার কথাও উচ্চারণ করলেন হর্ষবর্ধন বাজপেয়ী। পরিস্থিত নিয়ন্ত্রনের বাইরে যাচ্ছে দেখে রাজ্যের পুর ও নগরোন্নয়ন দপ্তরের মন্ত্রী সুরেশ খান্না ঘটনাস্থলে এসে উপস্থিত হন। এবং বিধায়ককে শান্ত করে ভিতরে নিয়ে গেলেন।  যদিও এত কিছুর পরেও সংবাদমাধ্যমকে নিজের প্রতিক্রিয়া জানাতে নারাজ কর্তব্যরত গঙ্গাপুরের পুলিশ সুপার।। এমনকি এদিনের ঘটনার জন্যে কোনও অভিযোগ দায়ের না হওয়ায়, ঘটনাটির ভিডিও ফুটেজ দেখা সত্ত্বেও বিষয়টিকে গুরুত্ব দিতে রাজী নয় এলাহাবাদের স্পেশ্যাল পুলিশ সুপার নীতিন তিওয়ারি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!