এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > চিটফান্ড কাণ্ডে এজেন্ট নিয়োগেও প্রভাবশালীদের হাত? সেখানেই লুকিয়ে টাকা পাচারের রহস্য? খতিয়ে দেখছে সিবিআই

চিটফান্ড কাণ্ডে এজেন্ট নিয়োগেও প্রভাবশালীদের হাত? সেখানেই লুকিয়ে টাকা পাচারের রহস্য? খতিয়ে দেখছে সিবিআই

এবার চিটফান্ড কাণ্ডে একই ব্যক্তির একাধিক সংস্থায় এজেন্ট হওয়ার ঘটনায় তদন্তে নামল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই। সূত্রের খবর, একই ব্যক্তি একাধিক চিটফান্ড সংস্থার এজেন্ট হওয়ার মধ্যেই টাকা পাচারের অনেক রহস্য লুকিয়ে থাকার পাশাপাশি এই এজেন্টদের নিয়োগ করার পেছনেও প্রভাবশালীদের হাত রয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। আর তাই কিভাবে ঠিক এই প্রক্রিয়া চলেছে তা জানার জন্যই এহেন তদন্ত শুরু করছে সিবিআই আধিকারিকরা বলে খবর। জানা গেছে, একজন ব্যক্তি ঠিক কি করে একাধিক চিটফান্ড সংস্থার এজেন্ট হয়ে কাজ করতে পারেন তা খোঁজখবর করতে গিয়ে সিবিআই আধিকারিকরা জানতে পারেন যে, এর পেছনে একটি বড় চক্র রয়েছে।

এমনকি কিছু কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি নিজেদের পছন্দমতো ব্যক্তিদেরই এজেন্ট হিসেবে কাজে ঢুকিয়েছিলেন। যাতে সেই চিটফান্ড এজেন্ট গুলির গোপন তথ্য প্রকাশ্যে না চলে আসে। কিন্তু সিবিআই আধিকারিকদের যদি এই দাবি সত্যি হয়, তাহলে প্রভাবশালীরা তাঁদের ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিদের চিটফান্ডের এজেন্ট করিয়ে দেওয়ায় সেই প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ঠিক কি লাভ হয়েছে? সিবিআই কর্তাদের মতে, এজেন্টরা কমিশন হিসেবে যে টাকা পেতেন তার বেশিরভাগটাই যেত সেই প্রভাবশালী ব্যক্তিদের পকেটে। আর প্রভাবশালী ব্যক্তিরা সেই চিটফান্ড কোম্পানিগুলোর সঙ্গে নিজেদের লোককে এজেন্ট করিয়ে একদিকে যেমন নিজেদের পকেটে কমিশন ঢোকাত, ঠিক তেমনি সেই চিটফান্ড কোম্পানির কর্তাদেরও আশ্বস্ত করত যে তাঁদের কথা প্রকাশ্যে বেরোবে না।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এমনকি কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআইয়ের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে যে, চিটফান্ড সংস্থাগুলোর টাকা যাতে নিরাপদে পাচার করা যায় তার ব্যবস্থাও এই প্রভাবশালী ব্যক্তিদের মধ্যে অনেকে করে দিয়েছিলেন। এই সমস্ত চিটফান্ড কাণ্ডে কোন প্রভাবশালীদের হাত রয়েছে সেই রহস্য উদঘাটিত করতে মাঠে নামতে চলেছে সিবিআই। অন্যদিকে সম্প্রতি শিলংয়ে কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে সিবিআইয়ের পক্ষ থেকে জেরা করা হলেও এখনো বেশ কিছু ব্যাপারে সেই রাজীব কুমারের পক্ষ থেকে সঠিক উত্তর না পাওয়ায় তদন্তকারী সংস্থা কলকাতার পুলিশ কমিশনারকে জেরার জন্য ফের ডাকতে পারে বলে বিভিন্ন মহলে জল্পনা উঠতে শুরু করেছে।

এদিকে, ইতিমধ্যেই কলকাতায় সিবিআইয়ের স্পেশ্যাল ১০ আধিকারিকের একটি টীম এসে বসে আছে – যাঁরা ইতিমধ্যেই বিভিন্ন প্রভাবশালীর চিটফান্ড কাণ্ডে ঠিক কি যোগ ছিল তা নিয়ে গোপনে তদন্ত করছে। তবে, বিভিন্ন সূত্রে প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, চিটফান্ড কাণ্ডে শুধু বাজার থেকে নিয়ম বহির্ভূতভাবে টাকাই তোলা হয় নি, তার অনেকটাই ঢুকে গেছে প্রভাবশালীদের পকেটে এবং পাচারও হয়ে গেছে। তারফলে যাঁরা চিটফান্ড চালাতেন তাঁরা যতটা না লাভবান হয়েছেন, তার থেকে নাকি অনেক বেশি লাভবান হয়েছেন পর্দার আড়ালে থাকা এই সব প্রভাবশালীরা। আর তাই, কালক্ষেপ না করে এই প্রভাবশালীদের চিটফান্ড থেকে টাকা উপার্জনের প্রতিটা পথই খুঁটিয়ে দেখছে সিবিআই। সব মিলিয়ে এবার লোকসভা নির্বাচনের আগে চিটফান্ড কেলেঙ্কারি ইস্যুতে বেশ কোমর বেঁধেই মাঠে নামতে চলেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!