এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > চাকুরীপ্রার্থীদের সুখবর, সরকারি পদে বিপুল নিয়োগের ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী, জেনে নিন

চাকুরীপ্রার্থীদের সুখবর, সরকারি পদে বিপুল নিয়োগের ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী, জেনে নিন

দীর্ঘদিন ধরে পশ্চিমবঙ্গে কর্মসংস্হানের অভাবকে কেন্দ্র করে সাধারণ মানুষের মধ্যে তৈরী হয়েছে তীব্র অসন্তোষ।এছাড়া এই ইস্যুতে বিরোধীরাও মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সরকারকে বারংবার কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন।মুখ্যমন্ত্রী যতই লাখ লাখ নিয়োগের পরিসংখ্যান দিন না কেন রাজ্যের যুবসমাজের বড় অংশই তৃণমূলের প্রতি বিরূপ থেকেছে তার গেছে গত লোকসভা নির্বাচনে।

তৃণমূল সরকারের প্রতি বিরোধী দল ও সাধারণ মানুষের ক্ষোভ তীব্র আকার ধারণ করেছে যখন মুখ্যমন্ত্রী স্বয়ং শিক্ষিত বেকারদের সরকারি চাকুরীর জন্য চেষ্টা করার পরিবর্তে চপ শিল্প, মুড়ি ভাজার মাধ্যমে নিজেদের উপার্জনের পথ খুঁজে নেওয়ার নিদান দিয়েছেন।এছাড়া রাজ্যে প্রায় প্রতিটি সরকারি নিয়োগ পরীক্ষাতেই অস্বচ্ছতা ও অসম্পূর্ন নিয়োগ নিয়ে একাধিক অভিযোগ তুলে সরব হয়েছে হয়েছে কর্মপ্রাথীরা।এসএসসি, পিএসসি, গ্রুপ ডি এমনকি ডবলুবিসিএস -এর মতো পরীক্ষাতেও বারবার অস্বচ্ছতার প্রমান মিলেছে।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এমতাবস্থায় গতকাল বিধানসভায় মুখ্যমন্ত্রীর সরকারি দপ্তরে 33,687টি শূন্যপদে নিয়োগের ঘোষণা কর্মপ্রাথীদের কাছে খুবই বড়ো সুখবর। তবে এই ঘোষণার পর কতখানি স্বচ্ছতার সাথে নিয়োগ প্রক্রিয়াকে বাস্তবায়িত করা সম্ভব হবে তা নিয়ে গুঞ্জন শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে।

তবে, মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণাকে হাস্যকর বলে কটাক্ষ করেছেন বিধানসভার বাম পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তী।তিনি বলেন, “মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য বিশ্বাস করা সহজ নয়, যদি দেখা যায় সত্যিই এই নিয়োগ হয়েছে, তবেই বলবো মুখ্যমন্ত্রী সত্য বলেছেন “।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!