এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > টানা 4 ঘন্টা জেরার পরেও সন্তুষ্ট নয় সিবিআই, রাজীব কুমারকে নিয়ে ক্রমশ বাড়ছে জল্পনা

টানা 4 ঘন্টা জেরার পরেও সন্তুষ্ট নয় সিবিআই, রাজীব কুমারকে নিয়ে ক্রমশ বাড়ছে জল্পনা

নানা জটিলতার পর অবশেষে কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশ শুক্রবার সারদাকাণ্ডে সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে সিবিআই অফিসে হাজিরা দিলেন কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমার। প্রায় চার ঘণ্টা সিবিআইয়ের পক্ষ থেকে এদিন রাজীব কুমারকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলেও এই জেরা পর্বে সন্তুষ্ট নয় কেন্দ্রের তদন্তকারী সংস্থা। ফলে ফের যে কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার সিবিআইয়ের জেরার মুখোমুখি হতে পারেন তা নিয়ে এক প্রকার নিশ্চিত বিশেষজ্ঞরা।

সূত্রের খবর, এদিন সিবিআই তাদের জেরায় প্রথমেই রাজীব কুমারের কাছে নতুন করে যে চার ট্রাঙ্ক নথি দেওয়া হয়েছে, তা এতদিন দেওয়া হয়নি কেন সেই ব্যাপারে প্রশ্ন করেন। যার প্রত্যুত্তরে রাজীব কুমার বলেন, “এগুলি তার জানার বিষয় নয়। সারদা তদন্তের জন্য গঠিত সিটে অনেক অফিসার ছিলেন। তারাই বহু নথি সেই সময় বাজেয়াপ্ত করেছিলেন। সিবিআইয়ের পক্ষ থেকে যখন যা চাওয়া হয়েছে, তিনি তা দিয়ে দিয়েছেন।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

এদিকে সম্প্রতি সিটের আরেক তদন্তকারী অফিসার অর্ণব ঘোষকে জেরা করলে অর্ণববাবুর পক্ষ থেকে “বসের কথা মেনে চলতে হয়” বলে জানানো হলে এদিন সেই প্রসঙ্গে রাজীব কুমারের জেরাপর্ব টেনে আনেন সিবিআইয়ের আধিকারিকরা। তাহলে কি সিটের প্রধান হয়ে তিনি অন্যান্যদের নানা নির্দেশ দিতেন?

এদিন এই প্রসঙ্গে তদন্তকারী আধিকারিকদের রাজীব কুমার বলেন, “সিটের প্রধান হিসেবে তিনি থাকলেও তাতে আরও অনেক তদন্তকারী পুলিশকর্মী ছিলেন। তিনি শুধুমাত্র তদন্তের গতি প্রকৃতির চূড়ান্ত রিপোর্টের খোঁজখবর রাখতেন।” এদিকে কাশ্মীরে সারদা-কর্তা সুদীপ্ত সেনের কাছ থেকে চারটি মোবাইল, দুটি ল্যাপটপ সহ বেশ কিছু নথিপত্র উদ্ধার করা হলেও সেগুলি দিতে বিলম্ব করা হয়েছিল কেন!

এদিন সেই প্রসঙ্গে সিবিআইয়ের পক্ষ থেকে কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনারকে প্রশ্ন করা হলে রাজীব কুমার জানান, “তার কাজ ছিল সিবিআইয়ের আবেদন মত সমস্ত জিনিস সরবরাহ করা। তিনি সেই কাজই করেছেন। তবে কোনো তথ্য-প্রমাণ তিনি নষ্ট করেননি।”

তবে রাজসাক্ষীর ব্যাপারে রাজীব কুমার আবেদন জানালেও সিবিআইয়ের তরফে পাওয়া খবরে জানা গেছে, সিটের বাকি তদন্তকারীদের দেওয়া তথ্য সেই রাজীব কুমারের বিরুদ্ধে যাওয়াতেই তাকে রাজসাক্ষী করার ব্যাপারে উদ্যোগী হয়নি কেন্দ্রের এই তদন্তকারী সংস্থা।

কিন্তু শেষমেষ কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে জেরা করে খুব একটা সন্তুষ্ট নয় সিবিআই বলেই জানা গেছে। আর কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনারের জেরা পর্বে কেন্দ্রের এই তদন্তকারী সংস্থা সন্তুষ্ট না হওয়ায় এখন কি তাকে গ্রেপ্তার করে সিবিআই! তা নিয়েই তীব্র জল্পনার সৃষ্টি হয়েছে রাজ্য রাজনীতিতে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!