এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > সিবিআইয়ের এই নজিরবিহীন পরিস্থিতি কি লোকসভার আগে নরেন্দ্র মোদিকে ব্যাকফুটে ঠেলে দিল?

সিবিআইয়ের এই নজিরবিহীন পরিস্থিতি কি লোকসভার আগে নরেন্দ্র মোদিকে ব্যাকফুটে ঠেলে দিল?

লোকসভা ভোটের আগে ঠিক এরকমই যেন একটা সুযোগ খুঁজছিল দেশের বিজেপি বিরোধী দলগুলো। আর সেইমতো সিবিআইয়ের অন্তরঅন্তর্কলহে জর্জরিত মোদি সরকারের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক অস্ত্রে শান দিতে মাঠে নেমে পড়লো কংগ্রেস থেকে তৃণমূল প্রায় সমস্ত বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, অলোক ভার্মা এবং রাকেশ আস্থানার দ্বৈরথে বর্তমানে কেন্দ্রের এই তদন্তকারী সংস্থা সম্পূর্ণ অভিভাবকহীন। শীর্ষ আদালতের নির্দেশে নতুন ডিরেক্টর হিসেবে নাগেশ্বর রাওকে বসানো হলেও রুটিন কাজের বাইরে তিনি কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারবেন না বলেও সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। ফলে বিভিন্ন ব্যাপারে চলা তদন্ত সম্পর্কে নিচুতলার অফিসারেরা ঠিক কাকে রিপোর্ট করবেন আর শীর্ষস্তর থেকেও তদন্ত চালানোর জন্য কোন রিপোর্ট আসবে কিনা তা নিয়ে ধ্বন্দে দপ্তরের অনেকেই।

সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই নতুন ডিরেক্টর নাগেশ্বর রাও একগুচ্ছ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলেও সেগুলো শীর্ষ আদালতের পক্ষ থেকে সিল বন্ধ খামে জমা দিতে বলা হয়েছে। ফলে একাধিক দুর্নীতির মামলায় একগুচ্ছ নেতা-নেত্রীদের নাম জড়িত থাকলেও সেই সমস্ত মামলার ক্ষেত্রে ঢিলেমি পড়ার প্রবল আশঙ্কা রয়েছে। এমনকি বিভিন্ন তদন্তে প্রভাবশালীদের গ্রেপ্তারির প্রয়োজন হলেও সিবিআইয়ের তদন্তকারী অফিসারদের হাতে সেই গ্রেপ্তারির ক্ষমতা এখন নেই বললেই চলে।

রাজনৈতিক মহলের মতে, এমনিতেই বিভিন্ন সময়ে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের তরফে সিবিআইকে নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করা হয় বলে সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছিলেন বিরোধী দলের নেতা-নেত্রীরা। আর তাই এখন যদি সেই বিরোধীদেরই কাউকে সিবিআই গ্রেপ্তার করে তাহলে ফের কেন্দ্রের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক চক্রান্তের অভিযোগ তুলে লোকসভা ভোটের আগে বিজেপি বিরোধী হাওয়া তুলতে সক্ষম হবে বিরোধী মহাজোট। আর এই সমস্ত আশঙ্কা করেই গোটা সিবিআই দফতরে রদবদল করতে কেন্দ্রের তরফে সিদ্ধান্ত নিলেও সেই প্রক্রিয়ায় জল ঢেলে দিয়েছে দেশের শীর্ষ আদালত।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

আর তাই এখন এই সিবিআই ইস্যুতে প্রবল বিপাকে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার। একদিকে অভিভাবকহীন কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার এহেন পরিস্থিতি নিয়ে বিরোধীদের তরফে লাগাতার আক্রমণ আর অন্যদিকে বিভিন্ন দুর্নীতির তদন্ত প্রক্রিয়ায় স্থগিতাদেশ-আর এই দুইয়ের জোড়া ফলায় লোকসভা ভোটের আগে বিদ্ধ কেন্দ্রের মোদি সরকার।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!