এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরুলিয়া-ঝাড়গ্রাম-বাঁকুড়া

মোদি কোন “হরিদাস পাল” যে আমাদের চোদ্দপুরুষের হিসেব চাইছেন – প্রশ্ন সূর্যকান্ত মিশ্রর

অসমে এনআরসি চালুর পর বাংলাতেও এনআরসি চালুর পক্ষে সওয়াল করতে দেখা যায় গেরুয়া শিবিরের নেতাদের। যার পরেই তৃণমূল - বিজেপির রাজনৈতিক সংঘর্ষ চরম আকার ধারণ করে এ রাজ্যে। এবার এনআরসি ইস্যুতে নরেন্দ্র মোদিকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করলেন সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র। সূত্রের খবর, মঙ্গলবার ঝাড়গ্রাম শহরের পাঁচমাথা মোড়ে জেলা সিপিএমের

তৃণমূল পার্টি গুণ্ডা, সমাজবিরোধী, খুনিদের পার্টি – বিস্ফোরক দিলীপ ঘোষ

তৃণমূল পার্টি গুণ্ডা, সমাজবিরোধী, খুনিদের পার্টি। সোমবার বেলিয়াবেড়া ব্লকের রান্টুয়ায় বিজেপির গান্ধী সংকল্প যাত্রায় যোগ দিয়ে একথা বলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। দিলীপবাবু বলেন, বাংলায় সবচেয়ে বেশি হিংসা। যত সমাজবিরোধী সব তৃণমূল পার্টির মধ্যে রয়েছে। লুটপাট করে খাচ্ছে। পুলিসের কোমর ও ঠ্যাং ওরা ভেঙে দিয়েছে। পুলিসের কোনও হিম্মত নেই।

‘পিসি-ভাইপো’ তাঁদের ‘চামচা’ পুলিশ’ এবার নাম না করে মমতা অভিষেককে কড়া ভাষায় আক্রমণ বিজেপি সংসদের

তৃণমূল সরকারের বিরুদ্ধে এবার চড়া ভাষায় আক্রমণ শানালেন বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। সাম্প্রতিককালে নানান বিতর্কে রাজ্যের শাসক দলের নাম জড়িয়েছে। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচনা করাকে কেন্দ্র করে রাজ্যের রাজনৈতিক মহল উত্তাল হয়েছে। গত লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যের শাসনভার তৃণমূল পেলেও বেশ কিছুটা পিছিয়ে পড়ে তাঁরা বিজেপির কাছে। আর তারপর থেকেই রাজ্যের

বাংলার বুকে জয়ের আগেই ‘অভিনব শপথ’ নিয়ে জয়ের অঙ্গীকার গেরুয়া শিবিরের

2019 এর লোকসভা ভোটে পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসকে রীতিমতো কোণঠাসা করে ফেলেছিল রাজ্য বিজেপি। 42 টি আসনের মধ্যে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কোন রকমে 22 টি আসনে জিতে নিজেদের গড় বাঁচিয়েছে। অন্যদিকে বিজেপি 18 টি আসনে জিতে পশ্চিমবঙ্গে নিজেদের দলকে সুবিধাজনক জায়গায় নিয়ে আসতে পেরেছে শুধুমাত্র সংগঠনের জোরে। এবার 2021 এর

জঙ্গলমহলের হারানো জমি পুনরুদ্ধারে বড়সড় নির্দেশিকা খোদ তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

2019 এর লোকসভা ভোটে তৃণমূল কংগ্রেস পশ্চিমবঙ্গের বুক থেকে হারিয়ে যেতে যেতে কোনরকমে রয়ে গেছে। কোনরকমে তাঁদের গড় বাঁচিয়েছে জিতে। এরাজ্যের 42 টি আসনের মধ্যে তৃণমূলের হাতে এসেছে মোট 22 টি আসন। 2019 এর লোকসভা ভোটের মধ্যে দিয়েই জঙ্গলমহল থেকে একেবারে ধুয়ে সাফ হয়ে গেছে তৃণমূল। প্রথম থেকেই শাসক দলের

পুরসভা ধরে রাখতে নয়া উদ্যোগ নিল তৃণমূল, কটাক্ষ বিজেপির

লোকসভা ভোটে বিপর্যয়ের পর দলকে জনসংযোগে বাঁধতে মরিয়া হয়ে উঠেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। "দিদিকে বলো" প্রকল্প করে গোটা তৃণমূল দলকেই সাধারণ মানুষের সঙ্গে মেশবার পরামর্শ দিয়েছিলেন তিনি। সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলে দেখা গেছে, তৃণমূল যে সমস্ত পুরসভা বা বিধানসভা দখল করেছে, সেই সমস্ত পৌরসভা বা বিধানসভাতেও তাদের হার হয়েছে। কিন্তু সামনে

পৌরসভার নির্বাচনেও কি বিজেপির পালেই বেশি হওয়া লাগতে চলেছে? জল্পনার পারদ চড়ছে রাজনৈতিকমহলে

লোকসভা ভোটে রাজ্যের যে ফলাফল হয়েছে তাতে রাজ্যের প্রধান বিরোধীদলের তকমা হারিয়ে ফেলেছে রাজ্যের বামপন্থী দলগুলো বলে মত রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের। অন্যদিকে বর্তমান রাজনীতির প্রেক্ষাপটে প্রধান বিরোধী দল হিসেবে ভারতীয় জনতা পার্টি মাথাচাড়া দিয়েছে, সেই বিষয়ে সংশয় নেই কারও। আবার লোকসভা ভোটের ফল যাই হোক না কেন, আগামী পৌরসভা নির্বাচনে বা

ঝুঁকির কারণে 40 বছরের পুরোনো রাবণ-দহন বন্ধ করল পুলিশ

অবশেষে এবার বন্ধ হয়ে গেল 40 বছর ধরে পালিত হয়ে আসা রাবন দহনের অনুষ্ঠান। জানা যায়, পুরুলিয়া ঝালদা সার্বজনীন দুর্গাপুজোর উদ্যোগে গত 40 বছরে একাদশীর দিন ঝালদা শহরের প্রাণকেন্দ্র ঝালদা বাসষ্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকায় এই রাবণ পালা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। তবে আগে এই অনুষ্ঠান পুরভবনের ছাদে হলেও ঝালদা বাসস্ট্যান্ডে রাবনদহন অনুষ্ঠান

তৃণমূল পরিচালিত পঞ্চায়েতের কাজ নিয়ে প্রশ্ন তুলে পদত্যাগের আবেদন একাধিক তৃণমূল জনপ্রতিনিধির!

বাঁকুড়া জেলায় গত লোকসভা নির্বাচনে রীতিমতো পর্যুদস্ত হতে হয়েছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসকে। জেলার দুটি লোকসভা কেন্দ্রেই পদ্ম ফুল ফুটেছে। যার কারণে এই জেলায় নিজেদের সংগঠনের পুনর্বিন্যাস করা রীতিমতো চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে ঘাসফুল শিবিরের পক্ষে। আর এবার তৃণমূল কংগ্রেসের অস্বস্তিকে আরও বাড়িয়ে পঞ্চায়েতের কাজকর্মের পদ্ধতি নিয়ে রীতিমত প্রশ্ন তুলে চারজন

ভোটে হারতেই কোদাল হাতে এলাকা সাফাইয়ে নেমে পড়েছেন তৃণমূল বিধায়ক-মন্ত্রী

ভারতবর্ষে গান্ধীজীর ভাবধারায় অনুপ্রাণিত হয়ে 'স্বচ্ছ ভারত অভিযান' প্রথম শুরু করেছিলেন বিজেপির নরেন্দ্র মোদি। এবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে অনুসরণ করেই রাজ্যের তৃণমূল বিধায়ক মন্ত্রীও একই পথের পথিক হলেন। এলাকা সাফাইয়ে নেমে পড়লেন তিনিও। কথা হচ্ছে তৃণমূল বিধায়ক মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরার প্রসঙ্গে। লোকসভা ভোটে তৃণমূলের হয়ে তিনি বিষ্ণুপুর থেকে দাঁড়িয়েছিলেন। কিন্তু

Top
error: Content is protected !!