এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা (Page 2)

আদালতের নির্দেশ পেতেই তড়িঘড়ি অবস্থান বদল তৃণমূল পরিচালিত পুরসভার “চেয়ারম্যানের!”

অনাস্থার সভা ডেকেও অবশেষে তা বাতিল করতে হলো চেয়ারম্যানকে। যে ক্ষেত্রে তার বাধা হয়ে দাঁড়াল কলকাতার উচ্চ আদালত। জানা যায়, গত মঙ্গলবারই অনাস্থা সভা ডেকেছিলেন নৈহাটি পৌরসভার চেয়ারম্যান। কিন্তু আদালতের নির্দেশ পাওয়ার পরই এদিন তা বাতিল করতে দেখা যায় তাঁকে। প্রসঙ্গত, নৈহাটি পৌরসভায় নির্বাচনের সময় তৃণমূলের টিকিটে 31 জনের মধ্যে 31

আবারও অগ্নিগর্ভ ঠাকুরবাড়ি! মমতাবালা ও শান্তনু অনুগামীদের মধ্যে হাতাহাতিতে পরিস্থিতি ঘোরালো

মতুয়া মহাসঙ্ঘের প্রয়াত বীণাপাণি দেবী চেয়েছিলেন, পরিবারে যতই রাজনীতি আসুক না কেন, সেখানকার শান্তি-শৃঙ্খলা যাতে বজায় থাকে। তবে কথায় আছে, মানুষ আশঙ্কা তখনই করে, যখন সেই আশঙ্কার বীজ তার মনে বপন করতে শুরু করে। হয়ত বা শেষ বয়সে বীণাপাণি দেবীর মনেও শাসক-বিরোধী রাজনীতির ছায়া এই মতুয়া মহাসঙ্ঘের পড়ায় সেই আশঙ্কার

সব্যসাচী দত্তের সঙ্গে আর কে কে আজ বিজেপিতে? ক্রমশ বাড়ছে জল্পনা

লোকসভা নির্বাচনে বাংলায় বিজেপি ২ থেকে বেড়ে ১৮ হতেই - বিজেপি নেতা মুকুল রায় দাবি করেছিলেন, এবার ৭ দফায় তৃণমূল কংগ্রেসকে ভেঙে খান খান করে দেবেন। শুরুও করেছিলেন - ঝোড়ো গতিতে। কিন্তু, মনিরুল ইসলাম বিজেপিতে যোগদানের পরেই কেমন যেন থমকে গিয়েছিল সেই যোগদান প্রক্রিয়া। মাঝে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের মত দাপুটে নেতা

এবার সঙ্ঘ ও বিজেপিকে ‘ধর্মের পাঠ’ দিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়!

ধর্মকে কেন্দ্র করে বরাবরই বিজেপি আরএসএস তাদের রাজনীতি করেছে বলে বারেবারেই বিরোধীদের তরফে অভিযোগ উঠেছে। হিন্দু ধর্মকে পাথেয় করেই এই দুই সংগঠন ও দল এগিয়ে চলেছে বলেও দাবি উঠেছে। হিন্দুত্বের প্রচার করেই বিজেপি সারাদেশে লোকসভা ভোটে জয়লাভ করেছে। সারা দেশে যে হিন্দুত্বের দাবি উঠছে, তা কিন্তু প্রমাণ হয়ে গেল 2019

এবার কি এই হেভিওয়েট নেতাও বিজেপি ছেড়ে ফিরছেন তৃণমূলে, মন্তব্য নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে

এবার অবশেষে পদত্যাগ করলেন গারুলিয়া পৌরসভার চেয়ারম্যান তথা বিজেপি নেতা সুনীল সিংহ। বস্তুত, গত জুন মাসেই দিল্লিতে গিয়ে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে নাম লেখান এই সুনীল সিংহ। যেখানে তার সঙ্গে ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত মুখোপাধ্যায় ছাড়াও বেশ কয়েকজন তৃণমূল কাউন্সিলর বিজেপিতে যোগ দেন। কিন্তু কিছুদিন আগেই সুনীল সিংহ বিজেপিতে থেকে গেলেও এই

বিজেপিকে বড়সড় ধাক্কা দিয়ে পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে জল্পনা বাড়ালেন হেভিওয়েট বিধায়ক,শোরগোল রাজ্যে

বিজেপিকে বড়সড় ধাক্কা দিয়ে এবার গারুলিয়া পুরসভার চেয়ারম্যান সুনীল সিং চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করলেন। কয়েকদিন আগেই তার বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনা হয়েছিল তৃণমূলের তরফ থেকে। আর আজ তিনি নিজেই পদত্যাগপত্র তুলে দেন পুরসভার একজিকিউটিভ অফিসারকে। যা ঘিরে ব্যাপক শোরগোল শুরু রাজ্যে। গাড়ুলিয়ার চেয়ারম্যান সুনীল সিং কয়েকমাস আগেই বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহের প্রথম বঙ্গ-সফরেই হেভিওয়েট তৃণমূল বিধায়কের দলবদল করিয়ে ‘তোফা’

এর আগে বাংলায় সংগঠন বৃদ্ধির লক্ষ্যে বারবার এসেছেন অমিত শাহ - কিন্তু তখন এসেছিলেন শুধুমাত্র বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি হিসাবে। ফলে, তাঁকে পদে পদে বাধা দিয়েছে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। কিন্তু, সব বাধাকে অতিক্রম করে বাংলা থেকে ১৮ টি আসন ছিনিয়ে নেওয়ার পাশাপাশি, নরেন্দ্র মোদিকেও দ্বিতীয়বারের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কুর্সিতে বসিয়েছেন অমিত

নারদকান্ডে নিজের যুক্তি সাজিয়ে অবশেষে টাকা নেওয়ার কথা স্বীকার করে নিলেন হেভিওয়েট সাংসদ

২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনের আগে ফাঁস হওয়া নারদ স্টিং অপারেশনের তদন্ত এতদিনে এসে এক গুরুত্বপূর্ণ মোড় নিয়েছে। নারদাকান্ডে প্রথম হিসাবে সম্প্রতি আইপিএস অফিসার এসএমএইচ মির্জা গ্রেফতার হয়েছেন। তাঁর সঙ্গে মুখোমুখি বসিয়ে জেরা করা হয়েছে হেভিওয়েট নেতা মুকুল রায়কে। জল্পনা খুব শীঘ্রই নারোদকাণ্ডে চার্জশীট জমা দিতে পারে সিবিআই। আর সেই গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে

ভুয়ো ঠিকানা দেখিয়ে আগ্নেয়াস্ত্র! পুলিশের জালে হেভিওয়েট বঙ্গ-বিজেপি সাংসদের পরিবার

এবার বড়সড় বিপাকে পড়লেন প্রাক্তন তৃণমূল নেতা তথা বর্তমান ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংহ এবং তার পরিবার। বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর থেকেই তার বিরুদ্ধে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে বিভিন্ন মামলা করছে তৃণমূল এবং পুলিশ প্রশাসন - বলে সরব হতে দেখা গেছে অর্জুন সিংহকে। আর এবার ভুয়ো ঠিকানা দেখিয়ে আগ্নেয়াস্ত্র রাখার অভিযোগে

নিজের গড়ে হেভিওয়েট তৃণমূল নেতাকে খুনের হুমকি দিয়ে পোস্টার, চাঞ্চল্য এলাকায়

তৃণমূলের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ নিয়ে বিভিন্ন সময়ে তৃণমূলকে কোণঠাসা হতে হয়েছে। তবে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব হচ্ছে তৃণমূলের সবথেকে বড় অস্বস্তির কাঁটা। এই কাঁটাকে তৃণমূল সুপ্রিমোও উপড়ে ফেলতে পারছেননা। শত চেষ্টা করেও কিছুতেই গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব থামতে চাইছে না তৃণমূলে। তাহলে এবার গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ফলেই কি বিধাননগরে ঘটে গেল পোস্টার কান্ড ? আসুন বিস্তারিত জেনে নেওয়া

Top
error: Content is protected !!