এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম

লোকসভা ভোটে পাচনের বাড়িতে ভালো ফসল ঘরে তোলার নিদান দিয়ে বড় পদক্ষেপ অনুব্রত মণ্ডলের

কদিন আগেই পাচনের বারি দিয়ে অনুর্বর জমিকে উর্বর করার কথা বলেছিলেন বীরভূমের জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। যা নিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে তুমুল শোরগোল পড়ে গিয়েছিল। আর যেমন কথা, তেমনি কাজ। এবার বীরভূম জেলার প্রতিটি ব্লকেই সেই পাচন বিলি করার নিদান দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রিয় কেষ্ট। সূত্রের খবর, গতকাল বীরভূমের নানুরের তিনটি

১৯ শে ব্রিগেডে জেলা থেকে লক্ষ লক্ষ জনসমাগম করতে বিশেষ মনিটরিং কমিটি ঘিরে তীব্র অসন্তোষ শাসক দলের অন্দরেই

শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের উনিশের ব্রিগেড অভিযানকে সামনে রেখে মুর্শিদাবাদ জেলা থেকে দলের চেয়ারম্যান মহম্মদ সোহারাবের এর নেতৃত্বে একটি মনিটরিং কমিটি গঠন করা হয়েছে। সেই কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে মোহম্মদ আলি ও সাগির হোসেনকে।এছাড়াও এই কমিটিতে আরো দুজন মুখপাত্র নিয়োগ করা হয়েছে, বলে জানান জেলা সভাপতি সুব্রত সাহা। কিন্তু, এই

বাচ্চার মোবাইল কেড়ে নেওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষে উত্তাল অনুব্রত গড়

এক বাচ্চার মোবাইল কেড়ে নেওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে গোষ্ঠী সংঘর্ষে উত্তপ্ত হলো বীরভূমের নানুরের নতুন গ্রাম এলাকা। সংঘর্ষে দুই গোষ্ঠীর তিনজন আহত হয়েছে বলে জানা গেছে। যদিও শেষ পর্যন্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। গ্রামবাসীদের অভিযোগ, সংঘর্ষের সময় তিনটি বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয় তৃণমূলের একটি গোষ্ঠী। এলাকাবাসীদের আরো অভিযোগ, নতুন গ্রাম

ব্রিগেডে জেলা থেকে ৫ লক্ষ লোক নিয়ে যেতে ব্লকে ব্লকে মিটিং অনুব্রতর, বেআইনি কাজ বা তোলাবাজি হলেই জেলে পোড়ার নিদান

আগামী বছরের শুরুতেই শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের ব্রিগেডে কেন্দ্র বিরোধী মহা-সমাবেশ। লোকসভা ভোটকে টার্গেট করে বিজেপি বিরোধী এই বৃহত্তর মহা জন সমাবেশে জেলাস্তর থেকে রেকর্ড পরিমান লোক নিয়ে যাওয়ার নিদান রয়েছে স্বয়ং তৃণমূল নেত্রীর বলে দলীয় সূত্রে খবর। সেই নির্দেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করতেই জেলায় জেলায় সভা করতে শুরু করেছেন শাসকদলের

লোকসভায় মালদহ ও উত্তর দিনাজপুরে কঠিন লড়াই জিতে, তা ঘাসফুলময় করতে বিশেষ পদক্ষেপ শুভেন্দু অধিকারীর

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের আগে এবার ফের মালদহ ও উত্তর দিনাজপুরে একদিকে সরকারি, আর অন্যদিকে রাজনৈতিক কর্মসূচি করলেন এই দুই জেলার তৃণমূল পর্যবেক্ষক তথা রাজ্যের পরিবহন ও পরিবেশ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। সূত্রের খবর, মালদহের মোথাবাড়িতে এক রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করেন তিনি। আর এরপরই মালদহ থেকে উত্তর দিনাজপুরের হেমতাবাদ গিয়েও একটি রাজনৈতিক কর্মীসভা

মেয়াদ শেষের পুরসভায় বসছে প্রশাসক – চাকরি হারানোর ভয়ে চিন্তায় ঘুম উড়েছে ১,৩০০ অস্থায়ী কর্মীর

অবশেষে গতকালই শেষ হল তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত বহরমপুর পৌরসভার বর্তমান বোর্ডের মেয়াদ। সূত্রের খবর, আজ এই বোর্ডের দায়িত্বভার গ্রহণ করবেন বহরমপুর সদরের মহকুমা শাসক দীপাঞ্জন মুখোপাধ্যায়। আর এই বোর্ডের মেয়াদ শেষ হওয়ার ঘনঘটা বাজতে না বাজতেই চিন্তায় ভাঁজ পড়েছে পুরসভার অস্থায়ী ১,৩০০ কর্মীর কপালে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত ২০১৩ সালের ১২ ই

শুভেন্দু অধিকারীর বিরোধী-মুক্ত জেলার ‘অঙ্গীকারে’ সাড়া দিয়ে বিজেপি জেলা সভাপতিও কি ঘাসফুল শিবিরে? বাড়ছে জল্পনা

দিন কয়েক আগেই নবগ্রামের রসুলপুরে বিগ্রেডের প্রস্তুতি সভামঞ্চ থেকেই বিরোধীশূন্য রাজ্য গড়ার ডাক দিয়েছিলেন পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। ওই সংশ্লিষ্ট সভা থেকেই দু'বারের সিপিএম বিধায়ক কানাই মন্ডল তৃণমূলে যোগ দিয়েছিলেন। তবে শুধু সিপিএমই নয়, সেদিন বিজেপি কংগ্রেসের সংগঠনেও ফাটল ধরানোর কড়া বার্তা দিয়েছিলেন তৃণমূলের এই হেভিওয়েট নেতা। শুভেন্দুবাবুর এই হুঁশিয়ারির পর

রাজ্যের দেড় লক্ষ কৃষকের জন্য একলপ্তে বড়সড় ঘোষণা রাজ্য সরকারের – জানুন বিস্তারিত

লোকসভা ভোটের আগে রাজ্যের কৃষকদের জন্যে বড়সড় ঘোষণা রাজ্য প্রশাসনের। এবার ৩১ শে ডিসেম্বরের মধ্যে দেড় লক্ষ চাষীদের ফসল বিমা যোজনার আওতায় আনতে উদ্যোগ নিতে দেখা গেল বীরভূম জেলা প্রশাসন ও কৃষি দপ্তরকে। দিন দুয়েক আগে বীরভূম জেলার ফসল বিমার দায়িত্বপ্রাপ্ত বিমা কোম্পানির প্রতিনিধি, কৃষি দপ্তর সহ সংশ্লিষ্ট সব আধিকারিকদের

সরকারি চাকরির আশায় বসে আছেন? তাহলে রাজ্যের হেভিওয়েট মন্ত্রীর এই কথাগুলি একবার শুনে নিন

রাজ্যের বেকার সমস্যা নিয়ে প্রায় সর্বত্রই মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তোপ দাগেন বিরোধী দলের নেতারা। কিন্তু বিরোধী দল থেকে যুব সমাজের কটাক্ষের মুখে পড়লেও এবার সেই সরকারি চাকরি নিয়ে এক আজব কথা বললেন রাজ্যের স্বনির্ভর গোষ্ঠী, স্বনিযুক্তি বিভাগ ও উপভোক্তা বিষয়ক মন্ত্রী সাধন পান্ডে। সূত্রের খবর, গতকাল কান্দি মহকুমায় সবলা ও ক্রেতা সুরক্ষা

সহ-সভাপতিকে আক্রমন করে দলীয় কাউন্সিলর গ্রেপ্তার হলেও শুভেন্দু অধিকারী দায় চাপালেন কংগ্রেসের ওপরেই

সম্প্রতি মুর্শিদাবাদ জেলা তৃণমূলের সহ-সভাপতি অশোক দাসের ওপর আক্রমণের ঘটনায় নাম জড়ায় স্থানীয় তৃণমূল কাউন্সিলর কানাই রায়ের। এমনকি এই ঘটনায় সাতজনের বিরুদ্ধে খুনের চেষ্টার অভিযোগও দায়ের করেন আক্রান্ত তৃণমূল নেতা অশোক দাস। এরপরই পুলিশের পক্ষ থেকে গ্রেপ্তার করা হয় তৃণমূল কাউন্সিলর কানাই রায় ও রাধারঘাট এলাকার বাসিন্দা ফিরোজ শেখকে। অন্যদিকে বাকি

Top
Close
error: Content is protected !!