এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয়

লোকসভায় তৃণমূল নেতাদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে ফের উঠলো ‘জয় শ্রী রাম’ স্লোগান

লোকসভায় তৃণমূল নেতাদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে ফের উঠলো 'জয় শ্রী রাম' স্লোগান। তৃণমূল নেতারা একে একে শপথ নেন বাংলায়। তাদের নাম ঘোষণা হতেই ' জয় শ্রী রাম' স্লোগান দেওয়া শুরু হয়। তবে সবথেকে বেশি 'জয় শ্রী রাম' স্লোগান দেওয়া হয় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এর শপথ নেওয়ার সময়। এদিকে শপথ নেওয়ার পর

রাহুলের জায়গা কেড়ে বড়সড় পদে বসলেন অধীর রঞ্জন চৌধুরী

লোকসভা ভোট মিতে গেছে অনেক কদিনই হলো। কিন্তু কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্ব কোনো সিদ্ধান্তে আসতে পারছিল না যে লোকসভায় কংগ্রেস পরিষদীয় দলের নেতা হবেন কে? অনেকে ভেবেছিলেন রাহুল গান্ধীকেই সেই পদের জন্য মনোনীত করা হবে আবার উঠে এসেছিলো অধীর চৌধুরীর নামও। আর আজ রাহুল গান্ধী নন, লোকসভায় কংগ্রেস পরিষদীয় দলের নেতা মনোনীত

বিজেপি সভাপতি নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্ত, জেনে নিন

বিজেপির অন্দরমহলে এই প্রশ্ন টা উড়ছিল বেশ কিছুদিন ধরেই যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের গুরুভার সামলে অমিত শাহর পক্ষে পার্টির সাংগঠনিক দায়িত্ব পালন কতটা সম্ভব। এতদিনে সেই প্রশ্নের জবাব মিলল। বিজেপির কার্যনির্বাহী সভাপতির পদ পেলেন জগত্‍প্রকাশ নাড্ডা। দলের কার্যনির্বাহী সভাপতি হিসেবে তাঁর নাম ঘোষণা করলেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং। দিল্লিতে বিজেপির সদর দফতরে

ন্যাশনাল এক্সপ্রেস – সারা দেশে জাতীয় ক্ষেত্রে কি হচ্ছে দেখে নিন একনজরে

ভারতবর্ষের বিভিন্ন প্রান্তে ঘটে চলেছে নানা ঘটনা। দিনের শুরুতেই সেই সমস্ত ঘটনার আপডেট একনজরে। জেনে নিন ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে কোথায় কি ঘটছে - ১. ডাক্তারদের আন্দোলনে সবথেকে বেশি প্রভাব মোদী-শাহের নিজের রাজ্য গুজরাতেই, সেখানে প্রায় ২৮ হাজার ডাক্তার গতকাল কর্মবিরতিতে অংশ নেন। ২. পাক বার্তার পরেই হানা পুলওয়ামায়, সংঘর্ষে নিহত মেজর, সীমান্তে

অধীর চৌধুরীর পিঠ চাপড়ে ভূয়সী প্রশংসা স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীর, বাড়ছে রাজনৈতিক জল্পনা

বাংলায় পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর থেকেই বারেবারে জল্পনা উঠেছে যে বঙ্গ-কংগ্রেসের হেভিওয়েট লিডার তথা প্রাক্তন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী নাকি বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন। কিন্তু বারেবারেই, সেই সম্ভাবনাকে বঙ্গোপসাগরের জলে ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে অধীর চৌধুরী স্বয়ং জানিয়েছেন - তিনি কংগ্রেসে ছিলেন, আছেন এবং থাকবেন। একবার তো, তাঁর বিজেপিতে যোগদানের দিন-তারিখ

যাঁরই ক্ষমতা বাড়াচ্ছেন মমতা, তিনিই মুকুলের ‘টপ টার্গেট’! এবার কি তাহলে ‘বড় মাছ’? জল্পনা তুঙ্গে

দলে সম্মান না পেয়ে একরাশ অভিমান নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েই মুকুল রায় ঘোষণা করেছিলেন, শাসকদলের সংগঠনটা তিনি নিজের হাতে সাজিয়েছিলেন। সুতরাং, সেই সংগঠনের একেবারে নীচুতলা থেকে শুরু করে, শীর্ষস্তর প্ৰজন সকলের সঙ্গেই তাঁর যোগাযগ আছে। আর এঁরা সকলেই নাকি তৃণমূল কংগ্রেসের অন্দরে হাঁফিয়ে উঠেছেন, ফলে একদিন সকলেই

জুনিয়র ডাক্তারদের আন্দোলনের নেতৃত্ব দিচ্ছেন মহিলা কন্ঠ, ভাইরাল অডিও, অভিযোগের তীর ভারতীর দিকে

এনআরএস কান্ড এবং তাকে কেন্দ্র করে মেডিকেল কলেজের চিকিৎসকদের লাগাতার ধর্মঘটের জেরে বর্তমানে রাজ্যের স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় ব্যাপক সংকট দেখা দিয়েছে। আর এরই মাঝে এবার জুনিয়র চিকিৎসকদের উস্কানি দেওয়ার একটি অডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ায় তীব্র চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। জানা গেছে, প্রায় 2 মিনিট 9 সেকেন্ডের একটি অডিও বার্তায় মহিলা কন্ঠে বলতে

বাংলা নিয়ে কথা বলতে মুখ্যমন্ত্রীকে দিল্লিতে বৈঠকে আমন্ত্রণ জানাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

লোকসভা নির্বাচনের পর বাংলায় ঘটে চলা লাগাতার সন্ত্রাসের পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রের হস্তক্ষেপে বারেবারেই আপত্তি জানিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর রবিবার দিল্লিতে সর্বদলীয় বৈঠকে বাংলায় যাতে কেন্দ্র কোনোরূপ হস্তক্ষেপ না করে তার আর্জি জানান সংসদের দুই কক্ষের তৃণমূল নেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং ডেরেক ও'ব্রায়েন। তবে তারা যখন এই

অধীর চৌধুরীর গুরুত্ব বাড়ছে হাইকমান্ডের কাছে দেওয়া হতে পারে বড়সড় পদ – জোর জল্পনা

লোকসভা ভোটে বাংলায় কংগ্রেসের ভরাডুবি হয়েছে। শাসক দল তৃণমূলের বিরুদ্ধে তারা লড়তে চাইলেও প্রধান বিরোধী দলের ভূমিকা পালন করেছে বিজেপি। কিন্তু কেন এই খারাপ ফলাফল হল তা নিয়ে শনিবার রাজ্য প্রদেশ কংগ্রেসের কর্মসমিতির বৈঠক ছিল। তবে আশ্চর্যজনকভাবে কলকাতায় উপস্থিত থাকলেও এই বৈঠকে থাকতেই দেখা গেল না বহরমপুর লোকসভা কেন্দ্রের কংগ্রেস

যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো না মানার অভিযোগ তুলে প্রধানমন্ত্রীকে অভিযোগ সুদীপের

প্রথম ইনিংসে কেন্দ্রের মোদি সরকারের সাথে তরজা বজায় ছিল রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের। কিন্তু লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যে তৃণমূলের ভরাডুবি এবং বিজেপির প্রবল উত্থানের পরই রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা থেকে বিভিন্ন ইস্যুতে সরব হয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ক্ষমতায় আসা কেন্দ্রের মোদি সরকার নানা ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করতে শুরু করে। বস্তুত, লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশের পর

Top
error: Content is protected !!