এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বাকিদের প্রার্থী ঘোষণা হলেও এখনও প্রার্থী নিয়ে অথৈ জলে বিজেপি, হতাশা ক্রমশ বাড়ছে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে

বাকিদের প্রার্থী ঘোষণা হলেও এখনও প্রার্থী নিয়ে অথৈ জলে বিজেপি, হতাশা ক্রমশ বাড়ছে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে

 

লোকসভা নির্বাচনে সাফল্যের পর 2021 এ বাংলার বিধানসভা নির্বাচনে ক্ষমতা দখলের কথা বারবার উঠে এসেছে বিজেপি নেতাদের গলায়। তবে বাংলায় কোন রাজনৈতিক দলের ভিত কতটা শক্ত, বিধানসভা নির্বাচনের আগে তা প্রমাণের জন্য এবার এক সুবর্ণ সুযোগ চলে এসেছে সকলের কাছেই।

নির্বাচন কমিশনের ঘোষণা অনুযায়ী, আগামী 25 শে নভেম্বর অনুষ্ঠিত হচ্ছে রাজ্যের করিমপুর, খড়গপুর এবং কালিয়াগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচন। বিজেপির টার্গেট, তিনটি কেন্দ্রেই পদ্মফুল ফোটানো। অন্যদিকে তৃণমূল চাইছে, খড়গপুর বিধানসভা কেন্দ্র বিজেপির কাছ থেকে কেড়ে নিয়ে বাকি দুই কেন্দ্রেও ঘাসফুল ফোটাতে।

তবে এখনও পর্যন্ত এই তিন বিধানসভা কেন্দ্রে শাসক দল তৃণমূল এবং বাম-কংগ্রেস জোট তাদের প্রার্থী ঘোষণা করলেও প্রার্থী ঘোষণা করতে অপারগ গেরুয়া শিবির। যা নিয়ে বিভিন্ন মহলে উঠতে শুরু করেছে প্রশ্ন। অনেকেরই প্রশ্ন, যেখানে বিজেপি ক্ষমতা দখলের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে, সেখানে সব দল প্রার্থী ঘোষণা করলেও কেন তারা এখনও পর্যন্ত প্রার্থী ঘোষণা করতে পারছে না!

সমালোচকদের একাংশ বলছেন, বিজেপির প্রার্থী নিয়ে দলের অন্দরেই তীব্র মতানৈক্য রয়েছে। যার কারণে কাকে প্রার্থী করা হবে, আর কাউকে প্রার্থী করলে অপর গোষ্ঠী রাগ করবে কিনা এবং তাতে নতুন করে সমস্যা চাগার দেবে কিনা, তা ভাবতে ভাবতেই বিজেপির দিন কেটে যাচ্ছে। আর তাইতো তারা প্রার্থীই ঘোষণা করতে পারছে না।

আর অন্যান্য রাজনৈতিক দল তাদের প্রার্থী ঘোষণা করে প্রচারে নামলেও বিজেপির তরফে এখনও পর্যন্ত সেই প্রার্থী ঘোষণা না হওয়ায় এই নির্বাচনে প্রথম দিক থেকেই বিজেপি অনেকটা পিছিয়ে পড়ল বলে দাবি রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের। কেননা বিজেপি বর্তমানে বাংলায় বিরোধীদল। তাই ক্ষমতা দখলের কথা তাদের গলায় শোনা গেলেও, প্রার্থী ঘোষণা না করা পর্যন্ত নির্বাচনে ঠিকঠাক লড়াই করা সম্ভব হয় না।

সেদিক থেকে অবিলম্বে বিজেপি যদি তাদের প্রার্থী এই তিন বিধানসভা উপ নির্বাচনের জন্য ঘোষণা না করে, তাহলে তাদের অনেকটাই পিছিয়ে পড়তে হবে বলে মত বিশ্লেষকদের। পাশাপাশি দেরি করে প্রার্থী ঘোষণার জন্য বিজেপির কর্মী-সমর্থকদের মনে প্রবল হতাশার সৃষ্টি হয়েছে বলেও মনে করছেন একাংশ।

কেননা কর্মীদের মতে, এই উপনির্বাচন তাদের কাছে এসিড টেস্ট। প্রমান করতে হবে যে তৃণমূলকে চাইছে না মানুষ। রাজ্যের মানুষ পরিবর্তন চাইছে। আর তাই বিজেপিকে আনতে চাইছে। ২০২১ এ বিজেপির জন্য জনগণ দরজা খুলে রেখেছে।

কিন্তু এখনো প্রার্থী ঘোষণা হলো না। এদিকে অন্যদের তা হওয়ায় প্রচারে বিশেষ ঝড় তুলবে বাকিরা। যা বিজেপির ক্ষেত্রে অসুবিধার সৃষ্টি হবে। ফলে যত দেরি হবে তাতো জনমানসে বিজেপিকে নিয়ে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেবে। পাশাপাশি তৃণমূল এই সুযোগে বিজেপির বিরুদ্ধে অপপ্রচার শুরু করবে।

তাই ভালো ফল করার জন্য গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব মিটিয়ে এবং চটজলদি সিদ্ধান্ত নিতে বিজেপি ঠিক কবে রাজ্যের তিন বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনের প্রার্থী ঘোষণা করে, এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!