এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > সিপিএমের মহিলাদের মিছিল ঘিরে উত্তেজনা

সিপিএমের মহিলাদের মিছিল ঘিরে উত্তেজনা

হারানো সংগঠনকে চাঙ্গা করতে মঙ্গল ও বুধবার দু দিন ব্যাপী রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন বন্ধ করার দাবিতে রাতভর বিক্ষোভ দেখালেন সিপিএমের মহিলা সংগঠন। মঙ্গলবারের পর ঠিক একই ভাবে বুধবার সংগঠনের নেতৃত্বরা এক মহামিছিলের আয়োজন করেছিলেন। সেই মিছিল আটকাতে কার্যত নাভিশ্বাস উঠল পুলিশ প্রশাসনের। জানা গেছে, এদিন মিছিল আটকাতে সিপিএমের মহিলা সংগঠনের সঙ্গে পুলিশের ধস্তাধস্তিও শুরু হয়। ধর্মতলার লেলিন মুর্তির পাদদেশ থেকে শুরু করে মিছিল রানী রাসমনি অ্যাভিনিউয়ের সামনে গেলে সেখানে পুলিশ ব্যারিকেড করে তা আটকে দিলে সংগঠনের নেত্রীরা 144 ধারা ভেঙে এগিয়ে যায় বিধানসভার দিকে।

প্রিয় বন্ধু বাংলার অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ – Priyo Bandhu Bengali

—————————————————————————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

আর এরপরই রেডরোডে নেতাজী মুর্তির সামনে সিপিএমের মহিলা সংগঠনের কর্মীরা অবরোধে বসে পড়েন। দিশেহারা পুলিস তখন লালবাজার থেকে বাড়তি প্রমীলা বাহিনী আনিয়ে অবরোধকারীদের সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলে দুপক্ষের মধ্যে লেগে যায় হাতাহাতি। সব মিলিয়ে ধুন্ধুমার কান্ড। পুলিশ সূত্রের খবর, এই ঘটনায় সিপিএম মহিলা সংগঠনের কনীনীকা ঘোষ, অঞ্জু কর, মালিনী ভট্টাচার্য, রুপা বাগচি সহ 151 জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। প্রথমে ছাড়তে অসম্মত হলেও পরে ধৃতদের প্রত্যেককেই নিঃশর্ত মুক্তি দেওয়া হয়। এদিকে সংগঠনের নেত্রীদের প্রতি এহেন পুলিশি হামলার চরম নিন্দা করেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু ও সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র। এদিকে খবর থাকার পরেও সিপিএমের মহিলা সংগঠনের এই কর্মসূচী আটকাতে গিয়ে কেন পুলিসের এমন হাঁসফাঁস পরিস্থিতি হল তা বুঝতে পারছেন না কেউই। তবে কোলকাতা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার সুপ্রতিম সরকার পুলিশের দমে যাওয়ার ব্যাপারটি অস্বীকার করেছেন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!