এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > BREAKING NEWS – সুপ্রিম রায়ে বড় জয় মামলাকারীদের, ৩ মাসের মধ্যেই শিক্ষক নিয়োগের ব্যবস্থা করতে হবে রাজ্য সরকারকে

BREAKING NEWS – সুপ্রিম রায়ে বড় জয় মামলাকারীদের, ৩ মাসের মধ্যেই শিক্ষক নিয়োগের ব্যবস্থা করতে হবে রাজ্য সরকারকে

Priyo Bandhu Media

সুপ্রিম কোর্টের ঐতিহাসিক রায়ে হাসি ফুটতে চলেছে পিটিটিআই আন্দোলনকারীদের মুখে। আজ এক গুরুত্বপূর্ণ রায়ে দেশের সর্বোচ্চ আদালত জানিয়ে দিয়েছে, ২০০৪-২০০৫ সালের পিটিটিআই ব্যাচের যাঁরা ২০১০ সাল পর্যন্ত মামলা করেছেন, তাঁদের আগামী ১২ সপ্তাহের নিয়োগ করতে হবে। ফলে মোট আবেদনকারী ৮০০ জনকে দ্রুত প্রাথমিক শিক্ষক পদে চাকরি দিতে হবে – যা বড়সড় ধাক্কা রাজ্য সরকারের কাছে।

প্রসঙ্গত, বাংলায় প্রাথমিক শিক্ষক হিসাবে নিয়োগের ২০০১ সালের নিয়ম অনুযায়ী – সংশ্লিষ্ট জেলাতে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদগুলি শিক্ষকদের নিয়োগ করত। সেই অনুযায়ী, নিয়োগের জন্য ২০০৬ সালে বিভিন্ন জেলায় বিজ্ঞপ্তি জারি হয়। সেই নিয়োগ প্রক্রিয়ায় পিটিটিআই প্রশিক্ষণপ্রাপ্তদের পাশাপাশি প্রশিক্ষণহীনরাও অংশগ্রহণ করেন। কিন্তু, তৎকালীন বাম সরকার হঠাৎ করে ঘোষণা করে যে পিটিটিআই ট্রেনিং নেওয়া পড়ুয়াদের অতিরিক্ত নম্বর দেওয়া যাবে না।

যা নিয়ে উত্তাল হয়ে ওঠে রাজ্য – তীব্র সমালোচনার ঝড় ওঠে রাজ্যজুড়ে। আর রাজ্য সরকারের সেই নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে অতিরিক্ত ২২ নম্বরের জন্য আদালতের দ্বারস্থ হন পিটিটিআই প্রশিক্ষণপ্রাপ্তরা। হাইকোর্ট মামলাকারীদের পক্ষেই রায় দেয়। কিন্তু, রাজ্য সরকার সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়। ইতিমধ্যে রাজ্য-রাজনীতিতে পালাবদল ঘটে। কমাতে এসেই তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাইটার্স বিল্ডিংয়ে দাঁড়িয়ে সাংবাদিক বৈঠকে ঘোষণা করেন পরবর্তী তিন বছরের মধ্যে পিটিটিআই প্রশিক্ষণপ্রাপ্তদের চাকরির ব্যবস্থা করবেন তিনি।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

পরবর্তীকালে, ২০১৫ সালে সুপ্রিম কোর্টের মামলা থেকে সরে আসে রাজ্য সরকার। কিন্তু, হাইকোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী চাকরিপ্রার্থীরা চাকরির আবেদন করলে সেই আবাদন নাকচ করে দেয় রাজ্য সরকার। ফলে, আবেদনকারীরা হাইকোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চ, ডিভিশন বেঞ্চ হয়ে সুপ্রিম কোর্টে যান আবেদনকারীরা। তারই পরিপ্রেক্ষিতে আজ এক ঐতিহাসিক রায়ে সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিল, আগামী ১২ সপ্তাহের মধ্যে চাকরি দিতে হবে আবেদনকারীদের।

এই প্রসঙ্গে তৎকালীন পিটিটিআই স্টুডেন্টস ইউনিয়নের রাজ্য সভাপতি পিন্টু পাড়ুই জানিয়েছেন, সুপ্রিম কোর্টের রায়ে ২০০৪-০৫ ব্যাচের যাঁরা ডিসেম্বর, ২০১০ পযন্ত মামলা করেছিলেন তাঁদের আগামী ১২ সপ্তাহের মধ্যে নিয়োগ করতে হবে – এই রায়কে স্বাগত জানাচ্ছি। সেই সঙ্গে আমাদের দাবি, যাঁরা সেই সময় মামলা করতে পারেননি এবং একই সঙ্গে সেই সময়ের বঞ্চিত ২০০৫-০৬ PTTI-দেরও মুখ্যমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী নিয়োগ করতে হবে। প্রয়োজনে এই নিয়ে আন্দোলন ও আইনি পথে পুনরায় যাব।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!