এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বসিরহাটে বিজেপির ডাকা বনধে স্বতঃস্ফূর্ত সাড়া সাধারণ মানুষের, “খুনিদের” নিয়ে এখনও অন্ধকারে পুলিশ

বসিরহাটে বিজেপির ডাকা বনধে স্বতঃস্ফূর্ত সাড়া সাধারণ মানুষের, “খুনিদের” নিয়ে এখনও অন্ধকারে পুলিশ

ভোটের ফলাফল প্রকাশের পর থেকেই রাজ্যের রাজনৈতিক হিংসা চরমে উঠেছে‌। সম্প্রতি সন্দেশখালির ন্যাজাটের ভাঙ্গিপাড়া গ্রামে বিজেপির দুই কর্মী এবং তৃণমূলের এক কর্মীর খুন হওয়ার ঘটনা রাজ্য রাজনীতিতে আলোড়ন তুলে দিয়েছিল। আর যে ঘটনায় তৃণমূলের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়ে প্রতিবাদ আন্দোলনে গর্জে উঠেছিল রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল বিজেপি।

সোমবার দলীয় কর্মীদের খুনের প্রতিবাদে বসিরহাটে বনধ ডেকেছিল গেরুয়া শিবির। আর এই বনধ ব্যাপকভাবে সফল হওয়ায় সাধারণ মানুষ যে সন্দেশখালির এই ঘটনায় অত্যন্ত বীতশ্রদ্ধ এবং শাসকদল তৃণমূলের প্রতি প্রবল পরিমাণে ক্ষুব্ধ, তা পরিষ্কার হয়ে গেল। জানা গেছে, সোমবার সকালে বসিরহাটের প্রায় সমস্ত দোকানপাটই বন্ধ ছিল।

হাসনাবাদ, সন্দেশখালি 1, সন্দেশখালি 2, মিনাখা প্রায় সব জায়গাতেই বনধের ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। তবে এই বনকে ঘিরে কিছু বিক্ষিপ্ত অশান্তি খবরও এসেছে। জানা যায়, ভ্যাবলা স্টেশনে প্রায় দুই ঘণ্টা রেললাইন অবরোধ করেন বিজেপি কর্মীরা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

এছাড়াও টাকির চৌরঙ্গী মোড়ে সকাল সাড়ে ছটা থেকে গাছের গুঁড়ি ফেলে দিয়ে বেলা বারোটা পর্যন্ত অবরোধ প্রক্রিয়া চালায় বিজেপি। যার জেরে রাস্তার দু’ধারে অনেক গাড়ি দাঁড়িয়ে পড়ে। অন্যদিকে হিঙ্গলগঞ্জের কালীবাড়ি মোড়ে বিজেপি কর্মীরা রাস্তায় টেবিল চেয়ার পেতে রাস্তা অবরোধ করলে তৃণমূলের সঙ্গে তাদের কিছুটা বিবাদের সৃষ্টি হয়। এছাড়াও সন্দেশখালির কানমারি, পোলপাড়া, চৈতল পল্লিমঙ্গল হাই স্কুলের সামনে বসিরহাট- মালঞ্চ রাস্তাও অবরোধ করা হয় বিজেপির পক্ষ থেকে।

এদিকে হাসনাবাদের ভেবিয়া এলাকায় একটি ব্যাংক খোলা থাকায় সেখানে বিজেপি কর্মীরা গেলে ব্যাংকের কর্মীদের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। তবে দুই একটি ছোটখাটো ঘটনা ছাড়া বিজেপির ডাকা বসিরহাটের এই বনধ সফল হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে এখনও পর্যন্ত সন্দেশখালির ভাঙিপাড়া গ্রামের এই ঘটনায় প্রকৃত দোষীদের গ্রেফতার না করায় পুলিশের ভূমিকায় উঠতে শুরু করেছে প্রশ্ন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!