এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > ভয়াবহ বিস্ফোরণ কোলকাতায়,আহত অনেকে, টার্গেট তিনিই, দাবি পুরপ্রধানের

ভয়াবহ বিস্ফোরণ কোলকাতায়,আহত অনেকে, টার্গেট তিনিই, দাবি পুরপ্রধানের

সপ্তাহের কর্মব্যস্ত দ্বিতীয় দিনেই আতঙ্কগ্রস্থ তিলোত্তমা। ভয়াবহ বিষ্ফোরণের সাক্ষী থাকলো দমদমের নাগের বাজারের স্থানীয়রা। অন্যান্য দিনের মতোই শহুরে মানুষেরা কেউ হয়তো অফিসের পথে পা বাড়াচ্ছেন,কেউ হয়তো চায়ের উষ্ণ পেয়ালায় চুমুক দিয়ে খবরের কাগজের পাতা ওলাচ্ছেন,কেউ রোজকারের মতো মর্নিং ওয়াক সেরে ফিরছেন। আবার কারোর হাতে বাজারের থলি। জমজমাটি এই নাগরিক যাপনে অভ্যস্থ শহরবাসী। কে ভাবতে পারে কখন একটি মাত্র দুর্ঘটনা স্তব্ধ করে দিতে পারে সব? এমনটাই ঘটছে সম্প্রতি। শহরের বিভিন্ন প্রান্তে আগুন লাগার ঘটনা যেন রোজনামচায় পরিনত হয়েছে। কিছুদিন আগেই বাগরি মার্কেটের বিভৎস অগ্নিকান্ডে ব্যবসায়ীরা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। তার মাসখানেক পেরোতে না পেরোতে ফের একটি ভয়াবহ বিষ্ফোরণে নাভিশ্বাস উঠল শহরে। দিনের পর দিন এহেন দুর্ঘটনার নজির প্রশ্ন চিহ্নের মুখে দাঁড় করাচ্ছে কোলকাতার সুরক্ষার ব্যবস্থাকে।

এদিন সকাল নটা নাগাধ বিকট শব্দ করে কেঁপে ওঠে নাগেরবাজার এলাকা। প্রচন্ড ধোঁয়ার কুন্ডলী মুহূর্তেই ঢেকে ফেলে এলাকা। এরপর চোখের পলক পড়তে না পড়তে আহত অবস্থায় রাস্তায় লুটিয়ে পড়তে দেখা যায় কয়েকজনকে। কারোর মুখে চোট লেগেছে,কারোর হাতে,কেউ বা পায়ে চোট লাগার যন্ত্রণায় ছটফট করছেন রাস্তায় শুয়ে পড়েছেন। এমনটাই ছিল বিষ্ফোরণ হওয়া ঘটনাস্থলের ছবি। প্রত্যক্ষদর্শীদের তরফ থেকে এমটাই জানা গিয়েছে। মহিলা এবং শিশু সহ মোট আহতদের সংখ্যা ১০ জন। বিস্ফোরণের সঙ্গে সঙ্গেই ঘটনাস্থলে পৌছায় পুলিশ। আহতদের নিকটস্থ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গোটা ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়। পুলিশ দুর্ঘটনার স্থানটিকে ঘিরে রেখে দিয়েছে।

কিন্তু কীভাবে হল এই ভয়াবহ বিষ্ফোরণ? পুলিশি তদন্ত থেকে উঠে আসা তথ্য বলছে,নাগেরবাজারের পরিত্যক্ত একটি কারখানার পাশেই বিষ্ফোরণ হয়। এই কারখানাটির পাশে একটি ফলের দোকান রয়েছে। সেই দোকানে চটের ব্যাগে করে বোমা এনে রেখে যায় দুষ্কৃতিরা। ঘটনার পেছনে দুষ্কৃতিদের হাত আছে জেনে স্থানীয়রা আরো আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন। এই দুর্ঘটনার সম্পূর্ণ তদন্তের দাবী জানানো হয়েছে স্থানীয়দের তরফ থেকে। তবে নজর দেওয়ার মতো বিষয় হল,বিষ্ফোরণটি ঘটেছে পুরপ্রধাণের ওয়ার্ড অফিসের কাছেই। তাই এই ঘটনার সঙ্গে রাজনৈতিক যোগসূত্রেরও গন্ধ পাচ্ছেন ওয়াকিবহালমহল। এই বিস্ফোরণের সঙ্গে রাজনীতির যোগ রয়েছে বলে মনে করছে এলাকার তৃণমূল নেতৃত্ব। যে বিল্ডিংটি বিস্ফোরণের ফলে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে, ঘটনাচক্রে সেই বিল্ডিংয়েই পুরপ্রধান পাঁচু রায়ের অফিস। ফলে স্থানীয় সমর্থকদের দাবি, তাদের নেতাকে মারার উদ্দেশ্যেই করে বিস্ফোরণটি ঘটানো হয়েছিল। তবে সৌভাগ্যের বিষয় বিস্ফোরণে তাঁর কোনও ক্ষতি হয়নি। একই কথা জানিয়েছেন পৌরপ্রধান পাঁচু রায়ও। তিনি বলেছেন, বিস্ফোরণের টার্গেট ছিলেন তিনিই। গোটা ঘটনাটিকে বিরোধীদের চক্রান্ত বলেও দাবি করেছেন পাঁচু রায়।  সকাল থেকেই থমথমে অবস্থা নাগেরবাজার এলাকায়।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!