এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি পেতে এই নোট বন্দি ও কালো টাকা নিয়ে বিস্ফোরক মুখ্য নির্বাচন কমিশনার

দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি পেতে এই নোট বন্দি ও কালো টাকা নিয়ে বিস্ফোরক মুখ্য নির্বাচন কমিশনার

এবার দেশের মুখ্য নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব ছাড়ার সাথে সাথেই কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদি সরকারের নোট বন্দি ও কালো টাকা নিয়ে বিস্ফোরক হলেন সুনীল আরোরা। প্রসঙ্গত 2016 সালের নভেম্বর মাসে হঠাৎই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নোট বাতিলের সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করেন। আর প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণায় সেই পুরনো 500 এবং 1000 টাকার নোট কিভাবে ব্যাংকে বদল হবে তা নিয়ে বিভ্রান্তিতে পড়ে সাধারন মানুষ।

পাশাপাশি এই ব্যাপারে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তোপ দাগে বিভিন্ন বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো। কিন্তু এতসব সমালোচনা সত্ত্বেও বিগত দুবছর ধরে বারে বারে এই নোট বাতিল প্রসঙ্গে নিজের সরকারের সাফল্য দাবি করে এসেছেন নরেন্দ্র মোদি। জনসভায় তিনি বলেছেন, “500 ও 1000 টাকার নোট বাতিল করে দেশে কালো টাকার রাশ অনেকটাই কমানো গিয়েছে।” কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর এই দাবির সঙ্গে বাস্তবের ঠিক কতটা মিল রয়েছে?

সূত্রের খবর, রবিবার এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে এই নোট বাতিল ইস্যুতে মোদি সরকারকে অস্বস্তিতে ফেলে দিলেন দেশের প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ওমপ্রকাশ রাওয়াত। তিনি বলেন, “সাম্প্রতিক কালে পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে বাজেয়াপ্ত হওয়া অর্থের পরিমাণ দুশো কোটির কাছাকাছি পৌঁছেছে। আর এর থেকেই বোঝা যায় যে ভোটের সময় এই টাকার যোগান এমন সূত্র থেকে আসছে যারা অত্যন্ত প্রভাবশালী এবং নোট বাতিলে তাদের ওপর কোনো প্রভাবই পড়েনি।”

আর দেশের প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচন কমিশনারের মুখে এই কথা শোনার পরই আসন্ন রাজস্থান ও তেলেঙ্গানা বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিরোধীরা যে তাদের হাতে বড়সড় অস্ত্র পেয়ে যাবে সেই ব্যাপারে কোনো সন্দেহ নেই। অন্যদিকে শুধু নোট বাতিল প্রসঙ্গেই নয়, এদিন নিজের দায়িত্বে অব্যাহতি নিয়ে মিজোরামের মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের অপসারণ প্রসঙ্গেও মুখ খুলেছেন দেশের প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ওমপ্রকাশ রাওয়াত।

প্রসঙ্গত, মিজোরামের স্বরাষ্ট্রসচিব এল চুয়াউনগোকে বদলির সিদ্ধান্ত নেওয়া হলে সেখানকার মুখ্য নির্বাচন আধিকারিক এসবি শশাঙ্কের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংকে একটি চিঠি লিখেছিলেন মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী লাল থানহাওলা।

জানা যায়, সেই চিঠিতে কেন্দ্রের কাছে মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী আর্জি জানান যে, এই এসবি শশাঙ্ককে যেন তার পদ থেকে অপসারিত করা হয়। আর এরপরই সেইখানে মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় সেই এসবি শশাঙ্ককে। এদিন এই প্রসঙ্গে দেশের প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ওমপ্রকাশ রাওয়াত বলেন, “মিজোরামের মুখ্য নির্বাচন আধিকারিক এসবি শশাঙ্কের অপসারণের ব্যাপারটি প্রমাণ করে যে বড় করে প্রচার করাটা কি ভাবে খেলা ঘুরিয়ে দিতে পারে, সেখানে আপনার দোষ থাকুক বা না থাকুক।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

অন্যদিকে এই ওমপ্রকাশ রাওয়াতের পর দেশের নতুন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার হতে চলেছেন সুনীল আরোরা। সূত্রের খবর, গত 26 শে নভেম্বর তাকে মনোনীত করেছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। সব মিলিয়ে এখন একদিকে দেশের মুখ্য নির্বাচন কমিশনার পদে যখন শপথ নিচ্ছেন সুনীল আরোরা ঠিক তখনই কেন্দ্রের মোদি সরকারের নোট বাতিলের প্রসঙ্গটি টেনে এনে কেন্দ্রের অস্বস্তি আরও বাড়িয়ে দিলেন দেশের প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ওমপ্রকাশ রাওয়াত।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!