এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বিজেপির গো-রক্ষকের ভূমিকা ‘কাড়তে’ এবার বড়সড় পদক্ষেপ এই মুখ্যমন্ত্রীর

বিজেপির গো-রক্ষকের ভূমিকা ‘কাড়তে’ এবার বড়সড় পদক্ষেপ এই মুখ্যমন্ত্রীর


বিজেপি এমনিতেই পরিচিত গো রক্ষক হিসেবে‌। ইতিমধ্যে গো রক্ষাকারী হিসেবে বহু বিতর্কের সম্মুখীন হয়েছে বিজেপি ও তাদের সঙ্গী গোষ্ঠী। গো রক্ষা করতে গিয়ে মানুষ পিটিয়ে মেরে ফেলার ঘটনাও ঘটেছে তাঁদের হাত দিয়ে। যা নিয়ে চূড়ান্ত আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে দেশজুড়ে। বিজেপি, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ ও আরএসএস দাবি করেন গরুকে পুরাণ অনুসারে হিন্দু জাতি মা হিসাবে পুজো করে এসেছে। সেই গরুদের যখন মারা হয় বা অবহেলা করা হয় তার প্রতিবাদ করেন বিজেপি, আরএসএস ও বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। নিজেদের তাঁরা গো রক্ষক হিসেবে দাবি করেন। মধ্যপ্রদেশে এবার গোরক্ষক এর ভূমিকা রোধে বড় পদক্ষেপ নিলেন সেখানকার মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথ।

মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দিগ্বিজয় সিং নিজের টুইটারে একটি ছবি পোস্ট করেছেন, যেখানে দেখা যাচ্ছে ভোপাল-ইন্ডোর জাতীয় সড়কে প্রচুর গরু ছড়িয়ে-ছিটিয়ে বসে আছে। ছবিটি দিয়ে তিনি জাতীয় সড়কে দুর্ঘটনার জন্য গরুগুলোকে দায়ী করেন। উল্টোদিকে মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথ এই টুইটের উত্তরে পরিষ্কার করে জানিয়েছেন, রাজ্য সরকার প্রায় 3000 গোশালা করার পরিকল্পনা নিয়েছে দুই হাজার কুড়ি সালের মধ্যে।

প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দিগ্বিজয় সিং এর অভিযোগের ভিত্তিতে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথ উপযুক্ত জবাব সহকারে জানিয়েছেন, আগামী দুই হাজার কুড়ি সালের মধ্যে 3000 গোশালা তৈরীর পরিকল্পনা আছে মধ্যপ্রদেশে। অবশ্য তিনি দিগ্বিজয় সিংয়ের টুইটারের প্রশংসাও করেন। মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথ আরও জানিয়েছেন, ইতিমধ্যে রাজ্যে হাজার গোশালা তৈরীর কাজ চলছে। আগামী বছরের মধ্যে আরও দুই হাজার গোশালা এর সাথে গঠিত হবে। মোট 3 হাজার গোশালা তৈরি করার কথা তিনি জানিয়েছেন।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

মুখ্যমন্ত্রী আরও জানান, গো শালা তৈরি হওয়ার পর রাস্তাতে বসে থাকা গরুর সংখ্যা অনেক কমে যাবে। তিনি দাবি করেছেন, সরকারের তরফ থেকে শহরগুলিকে পশুদের হাত থেকে মুক্ত করার প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে। কমলনাথ আরো বলেছেন, গরু বিশ্বাসের প্রতীক রাজনীতির নয়। তাই তিনি জানিয়েছেন, গো রক্ষা করতে গিয়ে পরিকল্পনামাফিক তাদের সরকার এমন কিছু কাজ করছে,
যা ইতিমধ্যে মধ্য প্রদেশ রাজ্যে কখনোই হয়নি।

সমস্ত ঘটনা রাজনৈতিক ভাবে পর্যালোচনা করে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য হল, বর্তমানে গো রক্ষক হিসেবে বিজেপি এবং তার সঙ্গী দল যথেষ্ট ভাবে রাজনৈতিক স্পটলাইটে আলোকিত। সেই আলো কাড়তে এবার উদ্যোগী হলেন মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী কংগ্রেসের কমলনাথ। আপাতত এই টুইট যুদ্ধের দিকেই লক্ষ্য রেখেছে সমগ্র রাজনৈতিক মহল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!