এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরুলিয়া-ঝাড়গ্রাম-বাঁকুড়া > বিজয়মিছিলে বেরিয়ে বোমার আঘাতে হাত খোয়াতে হল বিজেপি কর্মীকে!

বিজয়মিছিলে বেরিয়ে বোমার আঘাতে হাত খোয়াতে হল বিজেপি কর্মীকে!

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া এক্সক্লুসিভ – অনেক লড়াই করে সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে বাংলায় শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের ঘুম উড়িয়ে রাজ্য থেকে দলীয় রেকর্ড সংখ্যক ১৮ টি সাংসদ দিল্লিতে পাঠানো গেছে। দলের নয়নের মনি নরেন্দ্র মোদী সারা ভারত জুড়ে বিরোধীদের কার্যত উড়িয়ে দিয়ে দ্বিতীয়বারের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কুর্সিতে বসেছেন। সবথেকে বড় কথা বাংলাতে পদ্মশিবিরের দাপটে শাসকদলের একাধিক নেতা ধরাশায়ী হয়েছেন।

আর সেই ফলাফলের জোশে, বাংলায় এবার প্রধান বিরোধী থেকে একেবারে শাসকের আসনে বসার স্বপ্ন দেখছে গেরুয়া শিবির। সবমিলিয়ে বঙ্গ বিজেপিতে বেশ একটা ‘ফিল গুড’ পরিবেশ। খুশির সীমা নেই গেরুয়া সমর্থকদেরও, নানাভাবে এই বিশাল বিজয় উদযাপন করে চলেছেন তাঁরা। কিন্তু সেই খুশি উদযাপন করতে গিয়েই, তা এক লহমায় বদলে গেল দুঃখে। সূত্রের খবর, বিজয়মিছিলে বেরিয়ে হাত খোয়াতে হল সুনীল মুর্মু নামে এক বিজেপি কর্মীকে।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

আমাদের স্থানীয় সংবাদদাতার প্রদত্ত খবর অনুযায়ী, গুরুতর জখম হয়ে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বর্তমানে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজে চিকিৎসাধীন আছেন তিনি। রবিবার ঘটনাটি ঘটেছে ঝাড়গ্রাম লোকসভার অন্তর্গত চন্দ্রকোণার ঘোষকেরিতে। প্রসঙ্গত, ঝাড়গ্রাম লোকসভা কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরবাহা সোরেনকে পরাজিত করে জয়লাভ করেন বিজেপির কুন্নুর হেমব্রম। আর সেই জয়কে স্মরণীয় করে রাখতে চন্দ্রকোণার ঘোষকিরাতে আজ বিজয়মিছিল করেন বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা।

সেই বিজয় মিছিলে বোমা ফাটানোর অভিযোগ উঠেছে বিজেপির বিরুদ্ধে। এমনকি বোমা ফাটাতে গিয়ে এক বিজেপি কর্মীর হাত উড়ে গিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে স্থানীয়স্তরে। সুনীল মুর্মু নামে ওই বিজেপি কর্মীকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করেন দলেরই কর্মী-সমর্থকরা। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে প্রথমে চন্দ্রকোণা রোডে দাড়িগেড়িয়া গ্রামীণ হাসপাতাল নিয়ে যাওয়া হয়।  সেখানে অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। ওই বিজেপি কর্মীর শারীরিক অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক বলে জানা গিয়েছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!