এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বনধের দিন বসে আগুন দেওয়া মূল অভিযুক্ত তথা বিজেপি-কর্মী ধৃত অবশেষে

বনধের দিন বসে আগুন দেওয়া মূল অভিযুক্ত তথা বিজেপি-কর্মী ধৃত অবশেষে

 

বনধের দিন বড়বাজারে বাসে আগুন লাগানোর ঘটনার মূল অভিযুক্ত এবার পুলিশের খপ্পরে। কুশল পান্ডে নাম ওই ব্যক্তি ভিন রাজ্যে পালিয়ে যাওয়ার আগেই পুলিশ গ্রেফতার করল। পুলিশি কড়া জেরার সামনে পড়ে ধৃত নিজের অপরাধ স্বীকার করে নিয়েছে। বলেছে,তার নির্দেশেই বাসে আগুন লাগানো হয়েছিল। গতকাল তাকে ব্যাঙ্কশাল আদালতে তোলা হলে বিচারক পুলিশি হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছে।

প্রসঙ্গত,২১ সেপ্টেম্বর ইসলামপুরে পুলিশের গুলিতে ছাত্রমৃত্যুর প্রতিবাদ ২৬ সেপ্টেম্বর রাজ্যজুড়ে ১২ ঘন্টার ধর্মঘট পালন করে বিজেপি। শান্তিপূর্ণভাবে ধর্মঘট পালনের প্রতিশ্রুতি দিলেও রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় বিজেপির বিরুদ্ধে গন্ডোগোল পাকানোর অভিযোগ ওঠে। একাধিক জায়গায় সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করা হয়। বেশ কয়েকটি সরকারি বাস ভাঙচুর এমনকি আগুন লাগানোর ঘটনাও ঘটে। ওদিনই বড়বাজারের একটি সরকারি বাসে আগুন লাগায় বনধ সমর্থনকারীরা,এমনটাই অভিযোগ। খরব পেয়ে বড়বাজার থানার পুলিশ ও হাওড়া ব্রিজ ট্রাফিক গার্ডের অফিসাররা ঘটনাস্থলে আসে এবং বাসের ভিতর থেকে অর্ধদগ্ধ অবস্থায় এক ব্যক্তিকে উদ্ধার করে। এরপর তাকে জেরা করে জানা যায়,সেও তার সহযোগী মিলে বাসে আগুন লাগানোর ঘটনাটি ঘটিয়েছে। বাসের ভিতর পেট্রোল নিয়ে উঠেছিল তারা। এই স্বীকারোক্তির পরই তাকে গ্রেফতার করা হয়। বর্তমানে অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে সে।

এই অভিযুক্ত ব্যক্তিটির সূত্র ধরে পুলিশ হদিশ পায় কুশল পান্ডের। এলাকায় বিজেপি কর্মী হিসাবে পরিচিত ব্যক্তিটিই বাসে আগুন লাগানোর পরিকল্পনা করে,এমনকি পেট্রোলও সে কিনে দেয়- এমনটাই সহকারী ব্যক্তিটিকে জেরা করে জানা যায়। বাসে আগুন লাগানোর এই প্ল্যান অনেকদিন আগেই করা হয়েছিল কিন্তু পুলিশের উপস্থিতিতে তা করা সম্ভব হচ্ছিল না। কিন্তু বনধের প্রতিকূল পরিস্থিতির সুযোগ নিয়েই কার্যসিদ্ধি করে তারা। জেরার মারফত উঠে আসে এইসব তথ্য। এরপরই পুলিশ তল্লাশি শুরু করে কুশলের। পুলিশ যে তাকে খুঁজছে এটা গোপন সূত্রে কানে পৌছায় কুশলেরও। সেও কোলকাতা থেকে চম্পট দেওয়ার ফিরিক খুঁজছিল। ঠিক করেছিল পড়শি রাজ্যো তার আত্মীয়ের কাছে গিয়ে আত্মগোপন করবে। এরজন্য বিমানের টিকিটও কাটা হয়ে গিয়েছিল তার। কিন্তু তার সমস্ত প্ল্যান ভেস্তে দিল পুলিশের টিম। আগে থেকেই বিমানবন্দরে কুশলের জন্য অপেক্ষা করছিল অফিসাররা। কুশল আসতেই পাকরাও করা হয় তাকে দমদম বিমানবন্দর থেকে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

তবে কুশলকে ধরা হলেও এর নেপথ্যে আরো কোনো প্রভাবশালী ব্যক্তি আছে বলেই মনে করছেন তদন্তকারী অফিসাররা। বড়বাজারের মতো একটা জনবহুল এলাকাকে তিনিই হয়তো টার্গেট করেছেন সন্ত্রাস তৈরি করার জন্য। পরিকল্পনামাফিক কার্যসিদ্ধির জন্য বেছে নেওয়া হয়েছে বনধের দিনটি। তদন্তকারী অফিসাররা এখন ধৃতকে জেরা করে মূলচক্রীর নাম জানার চেষ্টায় রয়েছেন। এদিকে সন্ত্রাসমূলক কার্মকান্ডে সরাসরি বিজেপি কর্মীর নাম অভিযুক্ত হিসাবে উঠে আসায় তৃণমূল আবার একটা হাতিয়ার পেয়ে গেল বিজেপিকে আক্রমণ করার। এ নিয়ে তাঁরা প্রকাশ্য মন্তব্য না করলেও ঝোপ বুঝে কোপ দেওয়ার সুযোগটা তাঁরা হাতছাড়া করবেনা বলেই মনে করছেন ওয়াকিবহালমহল।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!