এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > নব্যদের পাশাপাশি এবার পুরোনো কর্মীদের ফেরানোর চেষ্টায় বঙ্গ বিজেপি ও আরএসএস

নব্যদের পাশাপাশি এবার পুরোনো কর্মীদের ফেরানোর চেষ্টায় বঙ্গ বিজেপি ও আরএসএস

তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে নজপিতে যোগ দিয়েই মুকুল রায় নেমে পড়েছেন দল ভাঙ্গানোর খেলায়। সাফল্যও আসছে অল্প কদিনে মন্দ নয়, তবুও তা যে রাজ্যের মসনদে বসার জন্য যথেষ্ট নয় অনুধাবন করছেন বিজেপির শীর্ষনেতারা। ইতিমধ্যেই মুকুল রায়ের হাত ধরে পশ্চিম মেদিনীপুরের রাধাকান্ত মাইতি, শিবু পানিগ্রাহী, সিঙ্গুরের দ্বারকানাথ ঘোষ এবং সুদীপ ঘোষ এসে যার হয়েছেন গেরুয়া শিবিরে। বিজেপি নেতাদের দাবি, এইতো সবে শুরু, এরপরে নাকি আরো বেশি ভাঙ্গন অপেক্ষা করে আছে। কিন্তু শুধুমাত্র মুকুল রায়ের ভরসায় বসে থাকতে রাজি নন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, তিনি চান আদি বিজেপি ও নব্য তৃণমূলী সদস্যরা বিজেপিতে আবার ফিরে আসুন।
তাই দিলীপবাবু বলেন, তৃণমূলে আরএসএস এর অনেক লোক আছেন, তৃণমূলের যেটুকু সুনাম আছে তা ওই আরএসএস এর লোকেদের জন্যই। তবে এখন পরিবেশ নষ্ট হয়ে যাওয়ায় তাঁরা ফিরে আসতে চাইছেন, আমাদের দরজা খোলা আছে। এই প্রসঙ্গে আরও বলতে গিয়ে দিলীপ বাবু প্রাক্তন দুই আরএসএস কর্মীর নাম উল্লেখ করেন – যাঁদের একজন বর্তমানে তৃণমূলের কলকাতা পুরসভার কাউন্সিলর দেবব্রত মজুমদার এবং দ্বিতীয়জন কর্নেল সব্যসাচী বাগচী, যিনি বর্তমানে তৃণমূলের রাজ্যের ক্ষুদ্র শিল্প উন্নয়ন মন্ত্রী।
যদিও দিলীপ বাবুর বক্তব্য প্রসঙ্গে দেবব্রত বাবু এবং সব্যসাচী বাবুর মতামত জানতে চাইলে দেবব্রত বাবু জানান, আমি এ বিষয়ে কিছু বলব না, আমি তো তৃণমূলেই আছি। এমনকি দিলীপ বাবুর দাবী অনুযায়ী সদ্য মৃত ভদ্রেশ্বর পুরসভার তৃণমূল চেয়ারম্যান মনোজ উপাধ্যায় যিনি নাগপুর থেকে দলের সর্বোচ্চ শিক্ষা গ্রহন করে এসে ছিলেন আরএসএসে থেকে, তিনিও কিছুদিন আগে বিজেপিতে আসতে চাওয়ার কারণেই তাঁর অকাল মৃত্যু হয়, যদিও মনোজ বাবুর দাদা সুনীল উপাধ্যায় সেই দাবী উড়িয়ে দিয়েছেন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!