এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিজেপির উত্থান ঠেকাতে বাম- তৃণমূলের সমঝোতা! জোর চাঞ্চল্য রাজ্যে

বিজেপির উত্থান ঠেকাতে বাম- তৃণমূলের সমঝোতা! জোর চাঞ্চল্য রাজ্যে

লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির উত্থানের পরেই আতঙ্কিত হয়েছেন তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দিকে দিকে শক্তি বৃদ্ধি হতে শুরু করে গেরুয়া শিবিরের। আর এরপরই কিছুদিন আগে বিধানসভায় বাম এবং কংগ্রেসের উদ্দেশ্যে জোট বার্তা দিতে দেখা যায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে।

যা নিয়ে ব্যাপক আলোড়ন পড়ে যায় রাজ্য রাজনীতিতে। তবে এখনও পর্যন্ত তৃণমূলের সঙ্গে বামেদের সেই জোট চূড়ান্ত হয়নি। কিন্তু তার মাঝেই তৃণমূলের পক্ষ থেকে সিপিএমের দখল করা পার্টি অফিস সিপিএমকে ফিরিয়ে দিল তৃণমূল। যা দেখে অনেকে বলছেন, বাম বিরোধীতার মধ্যে দিয়েই তৃণমূলের জন্ম। আর তাই প্রকাশ্যেই ব্যাপারে তৃণমূলের সঙ্গে বামেদের জোট হলে দুই দলের অনেক পুরনো কর্মীরা তা মেনে নিতে পারবেন না।

তাই তলায় তলায় এই ব্যাপারে জোট করে এখন বিজেপিকে আটকাতে সচেষ্ট হয়েছে তারা। আর তারই অঙ্গ হিসেবে সিপিএমের দখল করা পার্টি অফিস এবার সিপিএমকেই ফিরিয়ে দিল তৃণমূল। বস্তুত, লোকসভা নির্বাচনের পর সারা রাজ্যের পাশাপাশি বীরভূম জেলাতেও কিছুটা হলেও ধাক্কা খেয়েছে ঘাসফুল শিবির।

বীরভূম জেলার দুটি লোকসভা আসন তৃনমুল নিজেদের দখলে রাখলেও আশ্চর্যজনক ভাবে তাদের ভোট কমেছে এবং অনেক জায়গাতে তৃণমূলের থেকে এগিয়ে রয়েছে বিজেপি। শুধু তাই নয়, অনুব্রত মণ্ডলের খাসতালুক হিসেবে পরিচিত এই বীরভূমে লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই প্রচুর নেতাকর্মী গেরুয়া শিবিরে যোগদান করতে শুরু করেছেন।

তাতে কিছুটা হলেও চিন্তিত তৃণমূল। আর এই পরিস্থিতিতে এক বছরের বেশি সময় ধরে বোলপুরের রায়পুর-সুপুর পঞ্চায়েতে সিপিএমের পার্টি অফিস তৃণমূল নিজেদের দখলে নিলেও এবার সেই পার্টি অফিস তারা সিপিএমের হাতে তুলে দিল।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, মঙ্গলবার সকালে তৃণমূল কংগ্রেসের লোগো এবং পতাকা লাগানো এই পার্টি অফিসে দেখা গেল সাদা রং। আর এরপরই সেখানে সিপিএমের কর্মী-সমর্থকদের দেখা যেতে শুরু করল। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, এককালে রাজ্যে বিরোধীশূন্য করার ডাক দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তারপরই বিভিন্ন জেলায় তার সৈনিকেরা সেই কাজে লিপ্ত হয়ে পড়েছিলেন। কিন্তু একটু বিরোধী দল না থাকলে যে পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে যেতে পারে, তা লোকসভা নির্বাচনের পরেই বুঝতে পেরেছে তৃণমূল।

আর তাইতো বিজেপির উত্থান আটকাতে এবার বামেদের কাছ থেকে যে সমস্ত পার্টি অফিস তৃণমূল দখল করে নিয়েছিল, তা তাদের ফিরিয়ে দিতে শুরু করল। এদিকে নিজেদের পার্টি অফিস নিজেদের হাতে আসায় খুশি সিপিএম নেতৃত্ব। এদিন এই প্রসঙ্গে সিপিএম নেতা গৌতম ঘোষ বলেন, “আমাদের সংগঠন বাড়ছে। তাই পার্টি অফিস ফেরত দিতে বাধ্য হয়েছে তৃণমূল।” সব মিলিয়ে এবার সিপিএমের পার্টি অফিস তৃনমূল ফেরত দেওয়া তীব্র চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হল রাজনৈতিক মহলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!