এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মেদিনীপুর > উপনির্বাচনের পর অগ্নিগর্ভ শুভেন্দু-গড়! বিজেপি-তৃণমূল রাজনৈতিক সংঘর্ষে উত্তপ্ত পরিস্থিতি

উপনির্বাচনের পর অগ্নিগর্ভ শুভেন্দু-গড়! বিজেপি-তৃণমূল রাজনৈতিক সংঘর্ষে উত্তপ্ত পরিস্থিতি

সম্প্রতি রাজ্যের তিন বিধানসভা উপনির্বাচনের ফলাফল ঘোষিত হয়েছে। করিমপুর, খড়গপুর এবং কালিয়াগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূলের কাছে পরাজিত হয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি। পতপত করে ওড়া বিজেপির পতাকা কার্যত নুইয়ে পড়েছে এই বিধানসভা উপনির্বাচনে। আর বিধানসভা উপনির্বাচনে তৃণমূল সাফল্য পাওয়ার পরেই পূর্ব মেদিনীপুরের বিভিন্ন জায়গায় তৃণমূল বনাম বিজেপির সন্ত্রাস লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

সূত্রের খবর, শুক্রবার রাতে মেদিনীপুরের পটাশপুর থানার নতুন পুকুর বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় বিজেপির পার্টি অফিসে হামলা চালানো হয়। ভেঙে দেওয়া হয় বিজেপির দলীয় কার্যালয়ের সামনের অংশ। আর এরপরই নতুনপুকুর মোড়ে শনিবার প্রকৃত দোষীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে রাস্তা অবরোধ করে রাখেন বিজেপির নেতাকর্মীরা। ইতিমধ্যেই এই ঘটনায় তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানাতে শুরু করেছে ভারতীয় জনতা পার্টি। তবে বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের কারণেই এই ধরনের ঘটনা ঘটেছে বলে পাল্টা দাবি করছে ঘাসফুল শিবির।

এদিন এই প্রসঙ্গে স্থানীয় বিজেপি নেতা দেবম পাল বলেন, “রাত বারোটা নাগাদ শাসকদলের সশস্ত্র দুষ্কৃতী পার্টি অফিসে হামলা চালিয়েছে। কর্মীদের বাড়িতেও হামলা চালানো হয়েছে।” অন্যদিকে বিজেপির তোলা এই অভিযোগ অস্বীকার করে পটাশপুর 1 পঞ্চায়েত সমিতির জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশ স্থায়ী কমিটির কর্মাধ্যক্ষ তৃণমূলের পীযুষ পান্ডা বলেন, “এই ঘটনার সঙ্গে তৃণমূলের কোনো যোগ নেই। এটা বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের পরিণতি।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এদিকে পটাশপুরের পাশাপাশি এদিন ভগবানপুর 2 ব্লকের মুগবেড়িয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত পাঁচঘোরি বুথের বিজেপি সভাপতিকে মারধরকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়ায়। জানা গেছে, বিজেপি সভাপতি লক্ষীকান্ত দোলাইকে ব্যাপক মারধর করা হয়েছে। পাশাপাশি উড়উড়ি বুথের বিজেপির মণ্ডল কমিটির সদস্যকেও মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ। আর বিজেপির নেতা কর্মীদের এভাবে একের পর এক মারধরকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকা।

কাঁথি সাংগঠনিক জেলার বিভিন্ন জায়গায় এর বিরুদ্ধে প্রবল বিক্ষোভ, প্রতিবাদ মিছিল শুরু করে ভারতীয় জনতা পার্টি। এদিন এই প্রসঙ্গে ভগবানপুরের বিজেপি নেতা প্রশান্ত পন্ডা বলেন, “আমাদের দলীয় কর্মীদের মারধরের পাশাপাশি মাধাখালি বাজারে বেশকিছু দোকানপাট বন্ধ করে দিয়েছে তৃণমূল। গোটা ভগবানপুর জুড়ে ওরা সন্ত্রাস চালাচ্ছে।” তবে বিজেপির করা এই অভিযোগকে অস্বীকার করেছেন স্থানীয় তৃণমূল বিধায়ক অর্ধেন্দু মাইতি।

এদিন তিনি বলেন, “বিজেপির উপর হামলা হয়েছে বলে আমাদের কাছে কোনো খবর নেই। যদি এই ধরনের ঘটনা ঘটে থাকে, তাহলে তা তাদের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ফসল। এর সঙ্গে তৃণমূলের কোনো যোগ নেই।” সব মিলিয়ে উপনির্বাচনের ফলাফল প্রকাশের পর থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় রাজনৈতিক সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠছে এলাকা। বিশেষ করে উপনির্বাচনের পর তৃণমূল-বিজেপির এই রাজনৈতিক সংঘর্ষ উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে রাজ্যের বিভিন্ন কোনাতেই।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!