এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > লোকসভার আগে শুধু শাসকদলের মন্ত্রী-সাংসদই নয়, গেরুয়া শিবিরে নজরে একাধিক “পরিচিত” বুদ্ধিজীবী

লোকসভার আগে শুধু শাসকদলের মন্ত্রী-সাংসদই নয়, গেরুয়া শিবিরে নজরে একাধিক “পরিচিত” বুদ্ধিজীবী

বিগত বাম আমলে পরিবর্তন আনার জন্য তৎকালীন বিরোধী নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে থেকে রাস্তায় হাটতে দেখা গিয়েছিল রাজ্যের একাধিক বুদ্ধিজীবীকে। আর যা বিরোধী নেত্রী থেকে সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে মুখ্যমন্ত্রী করবার জন্য অনেকটা পথ এগিয়ে দিয়েছিল। কিন্তু কালের অমোঘ নিয়মে সেই সমস্ত বুদ্ধিজীবী মহলের একাংশ ব্যক্তি রাজ্যের বর্তমান শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের থেকে অনেকটাই মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। আর এবার আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের আগে সেই তৃণমূল থেকে মুখ ফিরিয়ে নেওয়া বুদ্ধিজীবীদের কাজে লাগাতে চাইছে গেরুয়া শিবির।

সূত্রের খবর, লোকসভা নির্বাচনের আগে বুদ্ধিজীবী সমাজকে নিয়ে রাজ্যের চার-পাঁচটি লোকসভা কেন্দ্রকে ধরে একটি বুদ্ধিজীবী সম্মেলন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে গেরুয়া শিবির। ইতিমধ্যেই এই ব্যাপারে দিনক্ষণ ও স্থানও কিছুটা ঠিক করে ফেলেছে বিজেপির বুদ্ধিজীবী সেলের কর্তারা।

যেখানে আগামী 17 ফেব্রুয়ারি কলকাতার আইসিসিআর প্রেক্ষাগৃহে এরূপ একটি সভা করে সেখানে ছত্রিশগড়ের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ডঃ রমন সিং, 22 শে ফেব্রুয়ারি শিলিগুড়িতে কেন্দ্রীয় অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রী প্রতিমন্ত্রী জয়ন্ত সিনহা এবং মেদিনীপুর বা খড়্গপুরে কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকরকে দিয়ে বুদ্ধিজীবী সম্মেলন করাতে চাইছে বিজেপি।

হোয়াটস্যাপের কিছু টেকনিক্যাল অসুবিধার জন্য আমরা ধীরে ধীরে হোয়াটস্যাপ সাপোর্ট বন্ধ করে দিয়ে, পরবর্তীকালে শুধুমাত্র Telegram অ্যাপেই নিউজের লিঙ্ক শেয়ার করব

তাই আপনাদের কাছে একান্ত অনুরোধ – প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর নিয়মিত ভাবে পেতে হলে Telegram অ্যাপটি ইনস্টল করুনআমাদের Telegram গ্রূপে যোগ দিন। যাঁরা Telegram-এ নতুন, ভয় পাবেন না – এটি হোয়াটস্যাপের মতোই সমস্ত ফিচার যুক্ত এবং আরো আরো সহজে ব্যবহার করা যায়।

যোগ দিন আমাদের Telegram Group – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে
আর এখনও যাঁরা আমাদের WhatsApp Group-এ যোগ দিতে চান, তাঁরা ক্লিক করুন এই লিঙ্কে (কিন্তু, মনে রাখবেন এই হোয়াটস্যাপ সাপোর্ট আমরা হয়ত খুব বেশিদিন আর চালু রাখব না)

কিন্তু তাহলে কি লোকসভা নির্বাচনের আগে ঠিক যেভাবে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা,মন্ত্রী, সাংসদদের নিজেদের দিকে টানতে ব্যস্ত গেরুয়া শিবির, ঠিক তেমনই একদা রাজ্যে পরিবর্তন আনা বুদ্ধিজীবীদেরও পাশে টেনে সেই তৃণমূলের ভিতকে নড়াতে চাইছে বিজেপি!

এদিন এই প্রসঙ্গে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, “গত সাড়ে চার বছরে কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদি সরকারের নেওয়া একাধিক জনমুখি প্রকল্প সম্পর্কে আমরা মানুষকে অবহিত করব। আর এই কর্মসূচিতে আমরা রাজ্যের বুদ্ধিজীবী সমাজকে পেতে চাইছি। সেই লক্ষ্যেই জেলায় জেলায় বুদ্ধিজীবী সম্মেলনের আয়োজন করা হচ্ছে।”

অন্যদিকে এই প্রসঙ্গে বিজেপির বুদ্ধিজীবী সেলের আহ্বায়ক পঙ্কজ রায় বলেন, “পশ্চিমবঙ্গকে দখল করতে হলে বুদ্ধিজীবী সমাজের সমর্থন প্রয়োজন। আমরা কেন্দ্রের সাফল্য এবং রাজ্যের ব্যর্থতা তুলে ধরতে চাই। এই মুহূর্তে রাজ্য যে পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে তাতে সাধারণ মানুষ থেকে শিল্পী সমাজের বড় অংশ সকলেই ক্ষুব্ধ। তৃণমূলের নেতা, মন্ত্রীদের ভয়ে বুদ্ধিজীবী সমাজের সিংহভাগ মানুষ প্রকাশ্যে বিজেপিকে সমর্থন করতে ভয় পাচ্ছেন। তাই তাঁরা আড়াল থেকে সমর্থনের বার্তা দিচ্ছেন। উপযুক্ত সময় এলে সব পক্ষই প্রকাশ্যে চলে আসবে।”

রাজনৈতিক মহলের মতে, একদা বাম আমলে পরিবর্তন আনতে রাজ্যের বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বুদ্ধিজীবী সমাজকে রাস্তায় নামিয়ে সাধারণ মানুষের মন কেড়েছিলেন। ঠিক একই ভাবে এবার সেই রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসকে সরাতে সেই বুদ্ধিজীবীদের টার্গেট করে জেলায় জেলায় লোকসভা নির্বাচনের আগে বুদ্ধিজীবী সম্মেলন করতে চাইছে গেরুয়া শিবির।

Top
Close
error: Content is protected !!