এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বাংলার মত ত্রিপুরাতেও চলছে ‘বদলার হিংসাত্মক রাজনীতি’, দাবি বামফ্রন্টের

বাংলার মত ত্রিপুরাতেও চলছে ‘বদলার হিংসাত্মক রাজনীতি’, দাবি বামফ্রন্টের

২০১১ সালে পশ্চিমবঙ্গে দীর্ঘ ৩৪ বছরের বাম জামানার অবসান ঘটিয়ে তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দলীয় কর্মী-সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বার্তা দিয়েছিলেন – বদলা নয়, বদল চাই। কিন্তু তা সত্ত্বেও বাংলার বিভিন্ন প্রান্তে সিপিএমের বিভিন্ন কার্যালয় ভেঙে হিংসাত্মক আচরণের অভিযোগ উঠেছিল তৃণমূলের দিকে। আর এবার ত্রিপুরায় দীর্ঘ ২৫ বছরের বাম মিথ ভেঙে সেখানে গেরুয়া শাসন প্রতিষ্ঠার পর, নির্বাচনোত্তর হিংসার অভিযোগ উঠলো বিজেপির বিরুদ্ধে। গতকাল উদয়পুরের জেলা কমিটির দফতর, পরিবহন ও অন্যান্য ইউনিয়ন কার্যালয় ভাঙচুরের অভিযোগ ওঠে বিজেপির বিরুদ্ধে।

স্থানীয় সূত্রের খবরানুযায়ী, ত্রিপুরা পুলিশের ডিজি এ কে শুক্লের কাছে এই হিংসাত্মক আচরণ বন্ধ করার দাবি জানান ডেপুটি স্পিকার পবিত্র করের নেতৃত্ত্বে বামফ্রন্টের এক প্রতিনিধি দল। এই প্রসঙ্গে সিপিএমের সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি জানিয়েছেন, মানুষের রায় আমরা মেনে নিয়েছি, কিন্ত হিংসার পথে বামপন্থীদের শেষ করা যাবে না। বাম কর্মীরা প্রতিরোধ গড়়ে তুলেই লড়়াইয়ে থাকবেন। অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভায় বামফ্রন্টের পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তী জানিয়েছেন, পশ্চিমবঙ্গে ২০১১ সালে পরিবর্তন হতেই যা কাণ্ড হয়েছিল, ত্রিপুরায় তারই পুনরাবৃত্তি হচ্ছে। এই ক্ষেত্রেও বিজেপি ও তৃণমূলের অদ্ভুত মিল রয়েছে। ত্রিপুরা থেকে পাওয়া খবর অনুযায়ী, ত্রিপুরার বিজেপি রাজ্য সভাপতি বিপ্লব দেব দলীয় কর্মী-সমর্থকদের শান্তি এবং শৃঙ্খলা বজায় রাখার আবেদন জানিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, হিংসার রাজনীতিতে বিজেপি বিশ্বাস করে না, তাই বহুদিনের জমা ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ হিসাবে যেন সাধারণ মানুষ নিজেদের হাতে আইন তুলে না নেন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!