এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিজেপির যুব সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক, জল্পনা বাড়িয়ে জরুরি ভিত্তিতে ডাক হেভিওয়েট নেতাকে

বিজেপির যুব সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক, জল্পনা বাড়িয়ে জরুরি ভিত্তিতে ডাক হেভিওয়েট নেতাকে


লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহের পরিকল্পনায় অন্যতম শীর্ষস্থানে আছে ‘মিশন-বেঙ্গল’! বাংলায় পদ্মফুল ফোটাতে মরিয়া গেরুয়া শিবির, বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ তো ঘোষণা করেই দিয়েছেন – বাংলায় পদ্মফুল ফোটাতে না পারলে বিজেপির স্বর্নযুগ সম্পূর্ণ হবে না। আর তাই, নবান্নের রঙ গেরুয়া করতে ঘুঁটি সাজাতে শুরু করে দিয়েছে গেরুয়া শিবির। বিভিন্ন সাংগঠনিক পরিবর্তন আসন্ন বঙ্গ-বিজেপিতে বলে জল্পনা চূড়ান্ত পর্যায়ে গেছে।

এরই মধ্যে সূত্রের খবর, বঙ্গ-রাজনীতির ক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যুব সংগঠনকে ঘিরে একাধিক বিশেষ পরিকল্পনা আছে গেরুয়া শিবিরের। বাংলায় পদ্ম ফোটাতে গেলে এখানকার যুবসমাজের সমর্থন অন্যতম বড় অস্ত্র হবে গেরুয়া শিবিরের। কেননা, কলেজে ভর্তিতে কাটমানি থেকে শুরু করে কর্মসংস্থানের জন্য হাহাকার – একাধিক ইস্যুতে যুবসমাজ বর্তমান রাজ্য সরকারের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে বলে দাবি গেরুয়া শিবিরের আভ্যন্তরীন রিপোর্টে দাবি।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

সুতরাং সেই ক্ষোভকে কাজে লাগিয়ে – যুবসমাজের জন্য সুষ্ঠু সমাধান যুক্ত ভবিষ্যৎ দেওয়া গেরুয়া শিবিরের অন্যতম পরিকল্পনা। ফলে, বাংলার যুবভোটকে লক্ষ্যে রেখে নিজেদের যুব সংগঠনকে ঢেলে সাজাতে চলেছে গেরুয়া শিবির বলে জানা গেছে। আর সেই লক্ষ্যেই আজ বিজেপির রাজ্য সদর দপ্তরে এক গুরুত্ত্বপূর্ন বৈঠকের ডাক দেওয়া হয়েছে। সেই বৈঠকে ভবিষ্যৎ কর্মসূচির পাশাপাশি সাংগঠনিক চেহারা কি হতে পারে – সেইসব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আলোচনা হতে পারে বলে জানা গেছে।

এমনিতেই নিজেদের যুব সংগঠনকে যথেষ্ট গুরুত্ব দেয় গেরুয়া শিবির – বর্তমান যুব সভাপতি দেবজিৎ সরকারকে লোকসভা নির্বাচনে শ্রীরামপুরের মত গুরুত্বপূর্ণ আসনে প্রার্থীও করা হয়। কিন্তু, আগামীদিনে দেবজিৎ সরকারকে দলের কাজে আরও বড়ভাবে লাগানোর জন্য তাঁকে অন্য গুরুত্বপূর্ণ পদে নিয়ে যাওয়া হতে পারে। এই পরিস্থিতিতে এই বৈঠকে ডাকা হয়েছে শঙ্কুদেব পণ্ডাকে। এখনই যুব সংগঠনের কোনো পরিবর্তনের কথা না শোনা গেলেও, এই বৈঠকে শঙ্কুদেবের অন্তর্ভুক্তি যথেষ্ট জল্পনা বাড়িয়েছে। কেননা, এতদিন তাঁকে যুব নয়, মাদার সংগঠনের ক্ষেত্রেই কাজ করতে দেখা গেছে। সেই পরিস্থিতিতে, তাঁর আজকের বৈঠকে অন্তর্ভুক্তি সৃষ্টি করছে অনেক জল্পনার।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!