এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > কাল দিল্লিতে দিনভর অমিত শাহের মহাবৈঠক, ব্যাপক রদবদল ঘিরে তীব্র জল্পনা রাজ্য-বিজেপিতে

কাল দিল্লিতে দিনভর অমিত শাহের মহাবৈঠক, ব্যাপক রদবদল ঘিরে তীব্র জল্পনা রাজ্য-বিজেপিতে

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বাংলায় বিজেপির পাখির চোখ অন্তত ২২ টি আসনে জয়লাভ তার সঙ্গে বাকি ২০ টি আসনে প্রথম দুইয়ের মধ্যে শেষ করা। অন্যদিকে, কেন্দ্র থেকেই বিজেপি সরকারকে সড়াতে মরিয়া মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাংলায় ৪২ টি আসনেই নিজের দলকে জয়যুক্ত করতে চান। এহেন পরিস্থিতিতে বঙ্গ-বিজেপি নেতাদের নাম একের পর এক কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়ছে – কখনো তা এলপিজি কেলেঙ্কারি তো কখনো অত্যন্ত সংবেদনশীল যৌন-কেলেঙ্কারি।

আর এরই মধ্যে আগামীকাল দিল্লিতে মহাবৈঠকে বসতে চলেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। প্রথমে শোনা গিয়েছিল – এই বৈঠকে ডাক পেয়েছেন মুকুল রায়, রাহুল সিনহা ও দিলীপ ঘোষ। কিন্তু গেরুয়া শিবিরের অন্দরমহলের খবর – কালকের বৈঠকে ডাক পড়েছে মোট ২৩ জনের। রাজ্য কমিটির ২২ জন পদাধিকারী ও রাজ্যে কোনও পদে না থেকেও মুকুল রায়। গেরুয়া শিবিরের সভাপতি ঘনিষ্ঠ একাংশের বক্তব্য – আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যের নীল-নকশা কি হবে সেই নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতেই এই বৈঠক।

কিন্তু নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রাজ্য স্তরের এক শীর্ষ নেতার বক্তব্য সম্পূর্ণ অন্য। তিনি স্পষ্ট জানালেন, যা খবর আছে – রাজ্য নেতাদের এইভাবে একের পর এক কেলেঙ্কারিতে নাম জড়িয়ে যাওয়ায় অত্যন্ত রুষ্ট অমিত শাহ। বাংলায় যেখানে বিজেপির প্রতি একটা সহানুভূতির হাওয়া উঠছে – সেখানে দলীয় নেতাদের এইভাবে কেলেঙ্কারিতে নাম জড়ানো মোটেই ভালোভাবে নেবেন না সাধারণ মানুষ। তার উপরে পঞ্চায়েতে ভালো ফল করলেও – সেভাবে কিন্তু বিজেপির সংগঠন বাড়ে নি। আর এইসব নিয়ে রীতিমত কাটাছেঁড়া হতে চলেছে কালকের বৈঠকে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না – তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

ওই নেতার কথায়, দেখুন সামনেই মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান ও ছত্তিশগড়ের বিধানসভা নির্বাচন। অমিত শাহের কাছে অত্যন্ত গুরুত্ত্বপূর্ন এই তিন রাজ্য, কেননা এখানে খারাপ ফল হওয়া মানে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে তার প্রভাব পড়বে। এই পরিস্থিতিতে সেইসব কাজ ছেড়ে হঠাৎ করে বাংলার জন্য লোকসভা নির্বাচনের পরিকল্পনা করতে তিনি সব রাজ্য নেতাদের উড়িয়ে নিয়ে গিয়ে দিল্লিতে দিনভর বৈঠক করবেন – এই যুক্তিটিই হাস্যকর। তাছাড়া, বিজেপি কোন আঞ্চলিক দল নয় – যে লোকসভা নির্বাচনের জন্য একটি মাত্র রাজ্যের জন্য হঠাৎ করে পরিকল্পনা করতে বসবে শীর্ষনেতৃত্ত্ব – লোকসভা নিয়ে পরিকল্পনা করতে হলে এই ধরনের বৈঠক তো সমস্ত রাজ্যের নেতাদের সঙ্গেই হত – শুধুমাত্র বাংলার জন্য কেন?

তিনি আরও জানান, বাংলা নিয়ে বহু অভিযোগ জমা পড়েছে অমিত শাহের কাছে। কোন নেতা কাজ করতে চেয়েও পারছেন না, কোন নেতা কাজ করছেন না আর কোন নেতা নিজে তো কাজ করছেনই না অন্যকেও কাজ করতে বাধা দিচ্ছেন – তার সব রিপোর্ট গেছে দিল্লিতে। আর তাই, কালকের বৈঠক – এক কথায় বলতে গেলে ‘হেস্তনেস্ত বৈঠক’। সব নেতাদের অমিত শাহ ডেকেছেন কারণ সবার কথা মন দিয়ে শুনবেন, কার কি বলার আছে জানবেন – আর তারপর দিনের শেষে নিজের সিদ্ধান্ত জানাবেন। তবে যা খবর, যে সকল নেতাদের নাম কেলেঙ্কারিতে জড়িয়েছে – তাঁরা সবাই রাজ্য কমিটি থেকে বাদ পড়তে চলেছেন।

এরপরেই ওই নেতার বিস্ফোরক দাবি, আগামী ডিসেম্বর মাসের মধ্যেই বঙ্গ-বিজেপির সমস্ত সমীকরণ বদলে যাবে, ফলে খোলনলচে আমূল পাল্টে ফেলার প্রক্রিয়া শুরু হবে আগামীকালের বৈঠক থেকেই। আমার কাছে যা খবর আছে – সঙ্ঘের এক নেতা অত্যন্ত গুরুত্ত্বপূর্ন দায়িত্ত্ব পেতে চলেছেন। শিক্ষিত-মার্জিত অথচ পর্দার আড়ালে থাকা সেই নেতাই ২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনে মুখ্যমন্ত্রী-মুখ হতে চলেছেন। অন্যদিকে বিজেপির তরফে নির্বাচন সংক্রান্ত সমস্ত দায়িত্ত্ব পেতে চলেছেন একনেতা, তাঁর সঙ্গেই দলে গুরুত্ত্ব বাড়তে চলেছে বঙ্গ-বিজেপির এক অত্যন্ত পুরোনো নেতার। ওই দুই নেতার অনুগামীরাই এরপর রাজ্য বা জেলা কমিটিতে বসতে চলেছেন।

ওই নেতার আরও দাবি, রাজ্যের যে নেতা নির্বাচন সংক্রান্ত সমস্ত দায়িত্ত্ব পেতে চলেছেন, এতদিন তাঁকে দলে কিছুটা কোনঠাসা করেই রাখা হয়েছিল। কিন্তু তাঁর রাজনৈতিক প্রজ্ঞা পরীক্ষিত, এমনকি সঙ্ঘের যে নেতা মুখ্যমন্ত্রী-মুখ হতে চলেছেন তাঁর সঙ্গেও এই নেতার সমীকরণ ও সম্পর্ক অত্যন্ত ভালো। যদিও তিনি রাজ্য-সভাপতির মত গুরুত্ত্বপূর্ন পদ হয়ত পাবেন না, কিন্তু আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে তাঁর ‘মগজাস্ত্রের’ উপরেই ভরসা রাখতে চলেছেন অমিত শাহ। ইতিমধ্যেই তাঁকে সেই বার্তা দিয়ে দেওয়া হয়েছে, আর সেই অনুযায়ী তিনি কাজও শুরু করে দিয়েছেন। আর তাই, এইসব জল্পনার মাঝেই দিল্লিতে কালকের মহাবৈঠকের দিকে তাকিয়ে গেরুয়া শিবিরের কর্মী-সমর্থকরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!