এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বাংলা থেকে ১৮ সাংসদ পেতেই এবার দিল্লির বুকে তৃণমূলের ঘুম ছোটাতে উঠেপড়ে লাগল বিজেপি

বাংলা থেকে ১৮ সাংসদ পেতেই এবার দিল্লির বুকে তৃণমূলের ঘুম ছোটাতে উঠেপড়ে লাগল বিজেপি

এতদিন রাজ্যের প্রতি বঞ্চনার অভিযোগে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সংসদ ভবনের সামনে দাঁড়িয়ে প্ল্যাকার্ড হাতে সোচ্চার হতে দেখা যেত বাংলার তৃণমূল সাংসদদের। বিভিন্ন সময়ে বাংলার তৃণমূল সাংসদদের এই প্রতিবাদ রাজনৈতিক মহলের নজর কেড়েছিল। কিন্তু রাজনৈতিক অবস্থা সবসময় এক থাকে না।

সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে বাংলায় কার্যত ভরাডুবি হয়েছে তৃণমূলের। অন্যদিকে তড়িৎগতিতে উত্থান ঘটেছে গেরুয়া শিবিরের। আর তৃণমূল এবার 22 টি আসন পেলেও, 2 থেকে একেবারে 18 তে পৌঁছে গেছে বিজেপি। যার পরেই বাংলার 18 জন বিজেপি সাংসদ বিভিন্ন সময় সংসদে বক্তব্য রাখতে গিয়ে বাংলায় তৃণমূল কংগ্রেসের আমলে আইন শৃঙ্খলা ভেঙে পড়েছে বলে সোচ্চার হয়েছেন।

বস্তুত, এতদিন সংসদ ভবনের বাইরে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ তুলে বাংলার তৃণমূল সাংসদদের সোচ্চার হতে দেখা যেত। আর শুক্রবার সেই একই ভঙ্গিমায় দেখা গেল রাজ্য থেকে নির্বাচিত বিজেপি সাংসদদের। যেখানে সংসদে গান্ধী মূর্তির পাদদেশে দাঁড়িয়ে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূলের বিরুদ্ধে স্লোগান দিলেন তারা।

সূত্রের খবর, এদিন গান্ধীমূর্তির পাদদেশে সকাল থেকেই রাজ্যের শাসকদল তৃণমূলের বিরুদ্ধে প্ল্যাকার্ড, পোস্টার হাতে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন লকেট চট্টোপাধ্যায়, অর্জুন সিং, সৌমিত্র খাঁ, সুভাষ সরকার, সুকান্ত মজুমদার সহ বাংলার 18 জন বিজেপি সাংসদ এবং রাজ্যসভার বিজেপি সাংসদ রূপা গাঙ্গুলী। যেখানে বাংলায় গণতন্ত্র হত্যার অভিযোগ তুলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে দেখা যায় বিজেপি সাংসদদের।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

জানা গেছে, এদিন বিজেপির বিক্ষোভ কর্মসূচিতে পুরুলিয়ার বিজেপি কর্মী ত্রিলোচন মাহাতো, শিশুপালের হত্যার ঘটনা, সন্দেশখালির ন্যাজাটে বিজেপি কর্মী খুন – এই সমস্ত ঘটনার উল্লেখ করে রাজ্যের শাসকদলকে কাঠগড়ায় দাঁড় করান বাংলার বিজেপি সাংসদরা। এতদিন যেভাবে দিল্লি থেকে সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের নজর কাড়তেন তৃণমূল সাংসদরা, এবার সেই একই কায়দায় তৃণমূলের আমলে বাংলার পরিস্থিতি সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে তুলে ধরতে চলেছে বিজেপি।

এদিনের এই বিক্ষোভ কর্মসূচি প্রসঙ্গে বাঁকুড়ার বিজেপি সাংসদ সুভাষ সরকার বলেন, “পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর থেকেই পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি কর্মীদের উপর অত্যাচার করা হচ্ছে। গেরুয়া শিবিরের কর্মীদের মিথ্যা মামলা দিয়ে ফাঁসানো হচ্ছে। এখনও পর্যন্ত 76 জন বিজেপি কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ শাসক দলের হয়ে কাজ করছে। বাংলার আইনশৃঙ্খলা সম্পূর্ণরূপে বিপন্ন।”

এদিকে বিজেপির তরফে যখন সংসদ ভবনের সামনে দাঁড়িয়ে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের আমলে বাংলা ঠিক কিভাবে চলছে, সেই দুরাবস্থার কথা তুলে ধরা হচ্ছে, ঠিক তখনই পাল্টা এই ব্যাপারে ময়দানে নামতে দেখা যায় তৃণমূলকে। এদিন এই প্রসঙ্গে সম্প্রতি উন্নাও ধর্ষণকাণ্ডের প্রসঙ্গ তুলে ধরে বিজেপিকে কটাক্ষ করে রাজ্যসভার তৃণমূল সাংসদ মানুষ ভূঁইয়া বলেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আমলে একমাত্র বাংলাতেই গণতন্ত্র বজায় রয়েছে। এখানে সকলে নিশ্চিন্তে নিঃশ্বাস নিতে পারে।”

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, এতদিন যেভাবে সংসদে নিজেদের সাংসদদের নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ তুলে বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে সরব হয়ে সংসদ ভবনের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ কর্মসূচিতে হাজির থাকতে দেখা যেত তৃণমূল সাংসদদের, ঠিক একই ভাবে এবার রাজ্যের শাসক দল তৃণমূলকে কিছুটা চাপে ফেলে সংসদ ভবনের সামনের চত্বরকে বেছে নিয়ে রাজ্যের ‘দুরাবস্থার’ কথা গোটা দেশের কাছে তুলে ধরতে তৎপর হলেন বাংলার 18 জন বিজেপি সাংসদ।

Top
error: Content is protected !!