এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বাংলায় বিজেপির রথযাত্রা নিয়ে আদালতের চূড়ান্ত ফয়সালা আগামীকালই – টেনশনের চোরাস্রোত গেরুয়া শিবিরের অন্দরে

বাংলায় বিজেপির রথযাত্রা নিয়ে আদালতের চূড়ান্ত ফয়সালা আগামীকালই – টেনশনের চোরাস্রোত গেরুয়া শিবিরের অন্দরে

রাত পেরোলেই বিজেপির বহু কাঙ্খিত রথযাত্রা৷ প্রস্তুতি ঠিকঠাক থাকলেও পথে গোঁজের কাঁটা এখনো রয়েই গেল। বাংলার মাটিতে আদেও রথযাত্রা হবে কিনা তা নিয়ে এখনো আশঙ্কায় গেরুয়াশিবির। রথযাত্রার প্রশাসনের অনুমতি না পাওয়ায় হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল রাজ্য বিজেপি। বুধবারও চূড়ান্ত শুনানি হল না। বৃহস্পতিবার এই মামলার ফের শুনানি হবে হাইকোর্টে। এদিনই আদালতে নিজেদের চূড়ান্ত অবস্থান জানাবে রাজ্যসরকার।

লোকসভা ভোটের টার্গেট করেই বাংলার মাটিতে গেরুয়া ঝড় তুলতে হিন্দি বলয়ের অনুকরণে রথযাত্রা কর্মসূচি করার পরিকল্পনা করে রাজ্যবিজেপি। আগামী ৭ ডিসেম্বর কোচবিহার, ৯ ডিসেম্বর গঙ্গাসাগর এবং ১৪ ডিসেম্বর তারাপীঠ থেকে রথযাত্রার সূচনা করবেন খোদ জাতীয় বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ। এক মাসেরও বেশি সময় ধরে চলা এই ‘গনতন্ত্র বাঁচাও’ অভিযানে রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বদের পাশাপাশি বিভিন্ন সময়ে হাজির থাকবেন পড়শি রাজ্যের প্রথম সারির বিজেপির হেভিওয়েট নেতারা। হাজির থাকার প্রবল সম্ভাবনা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীরও।

কিন্তু বিজেপির এই কর্মসূচিতে প্রথম থেকেই আপত্তি রাজ্যসরকারের। একে ‘রাবণযাত্রা’ বলেও কটাক্ষ করতে ছাড়েননি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দলনেত্রীর ঘোষণা,বিজেপির কর্মসূচির পরের দিনই রাজ্যের সূচিতা ফিরিয়ে আনতে রাজ্যজুড়ে ‘পবিত্রযাত্রা’ কর্মসূচি পালন করবে তৃণমূল। বিজেপি রথযাত্রাকে ব্যর্থ করারও প্রতিজ্ঞা নিয়েছে শাসকদল। তার প্রমাণ,এখনো পর্যন্ত রথযাত্রার অনুমতিই দিল না প্রশাসন।

বাধ্য হয়ে বিজেপিকে ছুটতে হয়ে হাইকোর্টের দরবারে। ১৯ অক্টোবর থেকে একনাগাড়ে রথযাত্রার অনুমতি চেয়ে রাজ্য পুলিশের ডিজি, আইজি এমনকী, স্বরাষ্ট্রসচিবের কাছেও আবেদন জানানো হয়েছে। কিন্তু প্রশাসনের তরফ থেকে কেনো সাড়া পাওয়া যায়নি,এমনটাই এদিন অভিযোগে জানালেন বিজেপির আইনজীবী। মামলাটির শুনানি ছিল তপোব্রত চক্রবর্তীর এজলাসে। সমস্যা হল,প্রশাসনের অনুমতি না মিললে কর্মসূচিটাই বাতিল হয়ে যাবে। তাই হাইকোর্টের দ্বারস্থ হতে হয়েছে রাজ্যবিজেপিকে।

অন্যদিকে,রাজ্যসরকারের তরফ থেকে মামলাটি লড়ছেন অ্যাডভোকেট জেনারেল। রথযাত্রার বিপক্ষে সওয়াল তুলে বললেন,বিজেপি নেতারা ভুল যায়গায় আবেদন করেছেন। অনুমতি দেওয়ার উপযুক্ত ব্যক্তি পুলিশের ডিজি, এডিজি এমনকী, স্বরাষ্ট্রসচিবও নন। দুপক্ষের তর্ক-বিতর্কে এদিন সরগরম ছিল আদালত। বৃহস্পতিবার মামলার শুনানিতে রথযাত্রা নিয়ে চূড়ান্ত অবস্থান জানাবে রাজ্যসরকার। এতে সম্মতি দিয়েছেন হাইকোর্টের বিচারপতি তপোব্রত চক্রবর্তী।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এমনিতে বিজেপির রথযাত্রা কর্মসূচি নিয়ে টান টান উত্তেজনা রয়েছে রাজ্যরাজনৈতিকমহলে। তারপর এই সংক্রান্ত মামলা ইস্যু হওয়ায় উত্তেজনার পারদ কয়েকগুন বেড়ে গেল। এ ব্যাপারে হাইকোর্ট কী রায় দেয়,সেটা নিয়ে তীব্র চর্চা শুরু হয়েছে রাজ্যরাজনীতিতে,এমনটাই খবর।

Top
Close
error: Content is protected !!