এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > দলীয় পর্যবেক্ষকের ঘোষণা উড়িয়ে সভাপতি হিসেবে নতুন নামেই সিলমোহর বিজেপির! বাড়ছে জল্পনা

দলীয় পর্যবেক্ষকের ঘোষণা উড়িয়ে সভাপতি হিসেবে নতুন নামেই সিলমোহর বিজেপির! বাড়ছে জল্পনা

 

লোকসভায় সাফল্য পাওয়ার পর রাজ্যের সদ্যসমাপ্ত তিন বিধানসভা উপনির্বাচনে বিজেপি পর্যুদস্ত হয়েছে। যার পরেই গেরুয়া শিবির আঁচ করতে পেরেছে যে, বাংলায় সংগঠন বিনা সাফল্য পাওয়া সম্ভব নয়। আর তা আঁচ করে ইতিমধ্যেই একাধিক জেলা সভাপতি পদে পরিবর্তন এনেছে ভারতীয় জনতা পার্টি। তবে জেলা সভাপতি নিয়ে দ্বন্দ্ব কিছুতেই কমছে না বিজেপির অন্দরমহলে।

বস্তুত, কিছুদিন আগেই সভাপতি নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা বিজেপির স্টেট রিটার্নিং অফিসার প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন যে, বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলার সভাপতি করা হবে অমর শাখাকে। কিন্তু শনিবার সন্ধ্যায় রাজ্যের আটটি সাংগঠনিক জেলা বিজেপির সভাপতির নামের তালিকা ঘোষণা হতেই বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলার জন্য অন্য নাম প্রকাশ্যে আসে। এদিন বিজেপির বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলার সভাপতি হিসেবে নাম ঘোষণা করা হয় হরকালী প্রতিহারের।

আর হরকালী বাবুর নাম ঘোষণা করার সাথে সাথেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন কিছুদিন আগে প্রতাপ বন্দোপাধ্যায়ের মুখে শুনতে পাওয়া অমর শাখার অনুগামীরা। এদিন এই প্রসঙ্গে অমর শাখার এক অনুগামী পাত্রসায়রের বিজেপি নেতা বাপী হাজরা বলেন, “আমি 32 বছর ধরে দলটা করে আসছি। অবিভক্ত বাঁকুড়া জেলা কমিটির সদস্য ছিলাম। দল পুরনো কর্মীদের গুরুত্ব দেয়নি। মন্ডল থেকে জেলা সভাপতি পদে নির্বাচনের নামে প্রহসন হয়েছে। আমরা কিছুদিন আগে পার্টি অফিসে বিক্ষোভ দেখিয়েছে। যাকে সভাপতি করা হয়েছে, তিনি বিষ্ণুপুর থেকে অনেক দূরে একটি স্কুলে শিক্ষকতা করেন। তার পক্ষে বিষ্ণুপুরের এত বড় এলাকায় সংগঠন পরিচালনা করা কতটা সম্ভব হবে, তা আমরা ভেবে পাচ্ছি না।”

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

কিন্তু তিনি তাহলে আগে কেন বলেছিলেন অমর শাখাকে জেলা সভাপতি করা হবে? কিন্তু সেই কথা বলে কেন শেষ পর্যন্ত হরকালী প্রতিহারকে সভাপতি করে এখানে বিজেপির দ্বন্দ্ব বাড়িয়ে দেওয়া হল! এদিন এই প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে স্টেট রিটার্নিং অফিসার প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “হরকালী প্রতিহারকে বিষ্ণুপুরের সাংগঠনিক জেলা সভাপতি করা হয়েছে। অমর শাখাকে দল অন্য গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দেবে।”

তবে নতুন দায়িত্ব পাওয়ার আগেই যেভাবে তাকে নিয়ে দলের একাংশ বিক্ষোভ দেখাচ্ছে, তাতে দ্বন্দ্ব মিটিয়ে ভালোভাবে পথ চলতে তিনি কতটা সক্ষম হবেন? এদিন এই প্রসঙ্গে সদ্যনির্বাচিত সভাপতি হরকালী প্রতিহার বলেন, “এতদিন দলের সাংগঠনিক জেলা সহ-সভাপতি পদে দায়িত্ব নিয়ে কাজ করেছি। এবার আমাকে যে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে, তা আমি নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করব।”

তবে তিনি যে কথাই বলুন না কেন, দলে যদি শৃঙ্খলা না থাকে, তাহলে তা যে বিজেপিকে অনেকটাই বিপাকে ফেলবে, সেই ব্যাপারে আশঙ্কা প্রকাশ করতে শুরু করেছেন বিজেপির নিচুতলার নেতাকর্মীরা। ফলে নতুন সভাপতি নিযুক্ত হলেও, বিষ্ণুপুরে বিজেপি কতটা স্বচ্ছভাবে পথ চলতে পারে! এখন সেদিকেই নজর থাকবে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!