এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বিজেপি বিধায়কের জিভ ছিঁড়ে আনতে পারলেই ৫ লক্ষ টাকার পুরস্কার,ঘোষণা কংগ্রেস নেতার

বিজেপি বিধায়কের জিভ ছিঁড়ে আনতে পারলেই ৫ লক্ষ টাকার পুরস্কার,ঘোষণা কংগ্রেস নেতার

বিজেপির বিধায়কের বিতর্কিত মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তীব্র আক্রমাত্মক ভূমিকায় দেখা গেল কংগ্রেস নেতা সুবোধ সাওজিকে। একেরপর এক বিতর্কিত মন্তব্যে বিজেপি নেতাদের নাম জড়ানোয় ব্যাপক অস্বস্তিতে রয়েছেন বিজেপির শীর্ষমহল। বারবার ধমক দিয়েও কিছুতেই নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না বিজেপি নেতাদের।  দফায় দফায় বিতর্কিত মন্তব্য করে রাজ্য তথা জাতীয় রাজনীতির আবহাওয়া উত্তপ্ত করছে তাঁরা। এদিকে কয়েকমাসের ফারাকেই রয়েছে লোকসভ ভোট। এমতাবস্থায় বিতর্কিত মন্তব্য ইস্যুতে বিজেপি নেতাদের নাম প্রকাশ্যে আসায় সেটা গেরুয়াশিবিরের ভাবমূর্তি রক্ষার পক্ষে বিপজ্জনক হয়ে উঠছে।

মহারাষ্ট্রের বিজেপি বিধায়ক রাম কদমের একটি বিতর্কিত মন্তব্যেরই বিরোধ আসে কংগ্রেসের তরফ থেকে। এদিন একটি ভিডিও পোস্ট করে মহারাষ্ট্রের কংগ্রেস নেতা সুবোধ সাওজি ঘোষণা করলেন,বিজেপি বিধায়ক রাম কদমের জিভ ছিঁড়ে নিয়ে আসতে পারলে পুরস্কার হিসাবে মিলবে পাঁচ লাখ টাকা। আসুন জেনে নেওয়া যাক কেন বিজেপি নেতার প্রতি এতো ক্ষুব্ধ হলেন কংগ্রেসের হেভিওয়েট নেতা সুবোধ সাওজি?

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

রাজনৈতিক সূত্রের খবর থেকে জানা গিয়েছে, দিন কয়েক আগে বিজেপি বিধায়ক রাম কদম মহিলাদের বিরুদ্ধে একটি অত্যন্ত অপমানজনক মন্তব্য করেন। একটি সভায় ভাষণ দিতে গিয়ে তিনি বলেন, যদি মেয়েরা প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে, তাহলে তিনি সেইসব মেয়েদের অপহরণ করে নিয়ে আসবেন। তারপর বিয়ে দিয়ে দেবেন। এ কথা বলার পর তিনি সভায় উপস্থিত থাকা সবাইকে নিজের মোবাইল নম্বর দিয়ে ১০০% সাহায্য করার প্রতিশ্রুতিও দেন। তাঁর এসব মন্তব্যের ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে পড়তেই শোরগোল শুরু হয়ে যায় রাজনীতির ক্ষেত্রে। তীব্র সমালোচনার সম্মুখীন হতে হয় বিজেপি বিধায়ককে।

 

মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবীশের কাছে আবেদন করা হয়েছে বিষয়টিকে খতিয়ে দেখার জন্য। বিজেপি বিধায়কের এ ধরনের বিতর্কিত মন্তব্য করার জন্য শিবসেনা প্রধান আদিত্য ঠাকরেও ট্যুইটারে রাম কদমকে উদ্দেশ্য করে তীব্র নিন্দা করেন। প্রশ্ন তোলেন মহিলা সুরক্ষা নিয়ে। আর এদিন কংগ্রেস নেতা সুবোধ সাওজিকেও একইভাবে আক্রমণ শানাতে দেখা গেল। রামকদম একজন বিজেপি বিধায়ক হওয়া সত্ত্বেত কীভাবে এধরণের লজ্জাজনক বয়ান দিলেন! তা নিয়ে বিষ্ময় প্রকাশ করেছেন তিনি। দফায় দফায় এতো সমালোচনার সম্মুখীন হয়ে বেগ পেতে হয়েছে রাম কদমকে। বিপাকে পড়ে তিনি বললেই ফেললেন যে,এরকম কোনো কথা নাকি তিনি বলেননি। আসলে তাঁর মন্তব্যের ভুল ব্যাখ্যা করেছে বিরোধীরা। তিনি শুধু বলেছেন,বাবা মায়ের মত নিয়ে তবেই বিয়ে করা উচিৎ। কেউ যেন বাড়ির অমতে বিয়ে না করে। তবে গেরুয়াশিবিরের কোনো হেভিওয়েট নেতাকে রাম কদমের সমর্থনে একটিও মন্তব্য করতে দেখা যায়নি। ইস্যুটি নিয়ে দলীয় অন্দরেই জোর চর্চা চলছে। এমনটাই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

 

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!