এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বিজেপি মন্ত্রীর ৫১ কোটি টাকা ঋন মকুব দুই ব্যাঙ্কের, সরগরম জাতীয় রাজনীতি

বিজেপি মন্ত্রীর ৫১ কোটি টাকা ঋন মকুব দুই ব্যাঙ্কের, সরগরম জাতীয় রাজনীতি

মহারাষ্ট্রের শ্রম ও উন্নয়ন দপ্তরের মন্ত্রী শম্ভাজি পাটিল নিলাঙ্গেকের বিরুদ্ধে ব্যাঙ্ক ঋণ নিয়ে ওঠা তছরূপ কান্ডে সিবিআই অদন্তে এলো নয়া মোড়। জানা যাচ্ছে ইউনিয়ন ব্যাঙ্ক ও ব্যাঙ্ক অফ মহারাষ্ট্রের লাতুর শাখার সাথে তিনি এককালীন সমঝোতা করে নিয়েছেন। এই সমঝোতার পরিপ্রেক্ষিতেই তাঁর ৫১ কোটি টাকার ঋণও মকুব করেছে ওই দুই ব্যাঙ্ক। উল্লেখ্য দু বছর আগে লাতুরের এই বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে ওই দুই ব্যাঙ্ককে মোট ৪৯.‌৩০ কোটি টাকা ঋণ ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিলো। এরপর প্রতারণা ও অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকার অভিযোগ দায়ের করে সিবিআই। যদিও এই বিষয়ে শম্ভাজি পাটিল নিলাঙ্গেকর জানিয়েছেন, ” ব্যাঙ্কের সমস্ত নিয়মকানুন মেনেই এই সমঝোতায় পৌঁছনো হয়েছে। এ ব্যাপারে সম্পূর্ণ ভাবে আইন মানা হয়েছে। দুই ব্যাঙ্কের সঙ্গে সমঝোতায় কোনও ভাবেই আইন লঙ্ঘিত হয়নি। তিনি যে সংস্থার গ্যারান্টর, সেই ভিক্টোরিয়া অ্যাগ্রো ফুড প্রসেসিং প্রাইভেট লিমিটেড ২০০৯ সালে ইউনিয়ন ব্যাঙ্ক ও ব্যাঙ্ক অফ মহারাষ্ট্রের লাতুর শাখা থেকে ২০ কোটি করে মোট ৪০ কোটি টাকা ঋণ নেয়।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

প্রথম দু’বছর সুদ দিলেও ২০১১ সাল থেকে সুদ ও মোট ঋণ শোধ করতে ব্যর্থ হয় সংস্থাটি। তাদের শোধ না-হওয়া ঋণের পরিমাণ সুদ-সহ গিয়ে দাঁড়ায় মোট ৭৬ কোটি টাকায়। ওই ঋণ নন-পারফরমিং অ্যাসেটে পরিণত হয়।সংস্থাকে ২৫ কোটি টাকায় নিলামে তোলা হয়েছে। এই সমঝোতার ফলে বাকি ৫১ টাকার ঋণের পরিমাণ মকুব করে দিয়েছে ওই দুই ব্যাঙ্ক। ” ব্যাঙ্কের সাথে সমঝোতার বিষয়েনিলাঙ্গেকরের দাবি মেনে নিয়ে পুণের ব্যাঙ্ক অফ মহারাষ্ট্রের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার এন ওয়াঘচাভারে বলেছেন ”সমঝোতার কারণে উলটে মন্ত্রীর ওই সংস্থা দুই ব্যাঙ্কের কাছ থেকে ১২.‌৫০ কোটি টাকা পাবে।” এছাড়াও মহারাষ্ট্র সরকারের এই মন্ত্রী এদিন জানালেন, “লাতুরের সাকোল এলাকায় দানাশস্য থেকে তৈরি অ্যালকোহলের একটি কারখানা স্থাপনের জন্য ওই ঋণ নেওয়া হয়েছিল। সংস্থাটির সঙ্গে তিনি স্রেফ গ্যারান্টর হিসেবেই যুক্ত, আসলে তাঁর শ্যালক ও অপর এক ব্যক্তি ওই সংস্থার মালিক।” এই ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশ , রাজ্যের শ্রম ও উন্নয়ন দপ্তরের মন্ত্রী শম্ভাজি পাটিল নিলাঙ্গেকরের পাশে আছেন। মুখ্যমন্ত্রী বললেন, ”শুধুমাত্র একটি ঋণ ফাঁকি দেওয়া সংস্থার গ্যারান্টর বলে নিলাঙ্গেকরকে অপরাধী সাব্যস্ত করা যায় না। অথচ, তাঁর বিরুদ্ধেই অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকার অভিযোগ আনা হয়েছে।” প্রসঙ্গত অভিযুক্ত হওয়ার প্রথম দিন থেকেই নিলাঙ্গেকর দাবি করেন, তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন।‌‌

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!