এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিজেপির সঙ্গে ছেড়ে অর্থনৈতিক-রাজনৈতিকভাবে হয়েছে ক্ষতি! মমতা-ঘনিষ্ঠের আক্ষেপে জল্পনা চরমে!

বিজেপির সঙ্গে ছেড়ে অর্থনৈতিক-রাজনৈতিকভাবে হয়েছে ক্ষতি! মমতা-ঘনিষ্ঠের আক্ষেপে জল্পনা চরমে!

বছরখানেক আগে বিজেপির সঙ্গ ছেড়ে দেশজুড়ে বিজেপি-বিরোধী মহাজোট গড়ার ডাক দিয়ে মমতা ব্যানার্জীর পাশে দাঁড়িয়েছিলেন তেলুগু দেশম পার্টির সুপ্রিমো চন্দ্রবাবু নায়ডু। এদিকে এর পর বিগত হয়েছে বেশ কয়েক মাস। লোকসভা তথা অন্ধ্রপ্রদেশ বিধানসভা নির্বাচনে শোচনীয় ফল করেছে নায়ডুর তেলুগু দেশম পার্টি। আর এদিন সেই নিয়েই মুখ খুলে নিজের সিদ্ধান্তকে ভুল ছিল বলে দাবি করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘বন্ধু’ চন্দ্রবাবু নায়ডু। যা নিয়ে রীতিমত শোরগোল পরে গেছে জাতীয় রাজনীতিতে।

এদিন বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী জানা যাচ্ছে যে, বিশাখাপত্তনমে দলের নির্বাচনী ফলাফল পর্যালোচনা বৈঠকে চন্দ্রবাবু নাইডু বলেছেন, ‘আমরা অন্ধ্রের বিশেষ মর্যাদার দাবিতে বিজেপির সঙ্গ ত্যাগ করেছিলাম। সেই সিদ্ধান্ত আমাদের বিরাট ক্ষতি করেছে। আমরা যে শুধু অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি তাই নয়, রাজনৈতিকভাবেও রাজ্য এবং লোকসভায় ক্ষমতা হারিয়েছে টিডিপি।’

এখানেই শেষ নয়, ওই সব সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, এদিন নাকি তিনি আরো দাবি করেছেন যে, নরেন্দ্র মোদি তাঁকে সাবধানও করেছিলেন তাঁর হঠকারী সিদ্ধান্ত নিয়ে। এনডিএ না ছাড়ার পরমার্শও দিয়েছিলেন মোদি। কিন্তু, সেসবে কর্ণপাত করেননি তিনি যার ফল এখন তাঁকে ভুগতে হচ্ছে। এদিন নাকি তিনি এও স্বীকার করেছেন যে, কংগ্রেসের সঙ্গে জোট করাও নাকি তাঁর ভুল সিদ্ধান্ত ছিল। প্রসঙ্গত, লোকসভা ভোটের আগে অন্ধ্রপ্রদেশের বিশেষ মর্যাদার দাবি তুলে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট ছাড়েন চন্দ্রবাবু।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

আর তার পরেই বিজেপি-বিরোধী মহাজোট গড়ারও ডাক দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন তিনি। একাধিকবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় থেকে শুরু করে রাহুল গান্ধীর মতো বিরোধী নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন বিজেপি বিরোধী জোট নিয়ে। যদিও এইসব করে বিজেপিকে তিনি আটকাতে তো পারেনই নি, উল্টে বিজেপি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় ফিরেছে। অন্যদিকে, লোকসভা এবং রাজ্য বিধানসভা দুই নির্বাচনেই ধুয়েমুছে সাফ হয়ে গিয়েছে চন্দ্রবাবুর টিডিপি।

আর এদিন নাকি সেই সব নিয়েই আলোচলায় এই মন্তব্য করেন চন্দ্রবাবু বলে দাবি সংবাদমাধ্যমের। আর এই বিষয়টি সামনে আসতেই নানা প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে রাজনৈতিকমহলে। প্রশ্ন উঠছে বিজেপির হাত ছাড়া ভুল হয়েছে বলে কি পরোক্ষে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরাকেই ভুল বলে দাবি করলেন চন্দ্রবাবু? পাশাপাশি এ প্রশ্নও উঠতে শুরু করেছে যে তবে কি এবার ফের বিজেপির হাত ধরতে চলেছেন চন্দ্রবাবু? স্বাভাবিকভাবেই এই নিয়ে তীব্র জল্পনা শুরু রাজনৈতিকমহলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!