এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বিজেপিকে চাপে ফেলতে নয়া সিদ্ধান্ত বিরোধীদের, ফের বদল মহারাষ্ট্রে! জানুন বিস্তারিত

বিজেপিকে চাপে ফেলতে নয়া সিদ্ধান্ত বিরোধীদের, ফের বদল মহারাষ্ট্রে! জানুন বিস্তারিত

 

দীর্ঘ টালবাহানার পর পরিস্থিতি যে দিকে এগোচ্ছিল, তাতে মনে করা হয়েছিল, এনসিপি, কংগ্রেস এবং শিবসেনা জোট মহারাষ্ট্র সরকার গঠন করবে। কিন্তু শেষ রাতে বিড়ালটা ভালই মারল ভারতীয় জনতা পার্টি। শেষ পর্যন্ত এখানে সরকার গড়তে সক্ষম হল তারা। যেখানে এনসিপির অজিত পাওয়ারের সমর্থন নিয়ে সরকার গঠন করতে সক্ষম হয়েছে গেরুয়া শিবির।

আর এই পরিস্থিতিতে ব্যক্তিগতভাবে অজিত পাওয়ার বিজেপির পাশে থাকলেও গোটা এনসিপি দল বিজেপির পাশে নেই বলে জানিয়ে দিয়েছেন এনসিপি সুপ্রিমো শরদ পাওয়ার। তবে যেনতেন প্রকারেণ নিজেদের আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে আসা জোটের সরকারকে যে মহারাষ্ট্রে প্রতিষ্ঠা করতে হবে এবং বিজেপিকে সরাতে হবে, সেই ব্যাপারে উদ্যোগী হয়েছে শিবসেনা, এনসিপি এবং কংগ্রেস।

সূত্রের খবর, বিজেপিকে কুপোকাত করতে এবার 24 ঘন্টার মধ্যে বিধানসভায় বিজেপি তাদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করুক বলে দাবি তুলেছে এই তিন রাজনৈতিক দল। ইতিমধ্যেই দেশের শীর্ষ আদালতকে এই ব্যাপারে রিট পিটিশন দাখিল করতে দেখা গেছে শিবসেনা, কংগ্রেস এবং এনসিপিকে। যেখানে রাজ্যপাল ভগৎ সিং কেশিয়াড়ির ভূমিকা নিয়ে তীব্র প্রশ্ন তোলা হয়েছে। তাদের দাবি, রাজ্যপালের কাজকে অবৈধ বলে ঘোষণা করা হোক এবং শিবসেনা এনসিপি ও কংগ্রেস জোটকে সরকার গঠনের ব্যাপারে আমন্ত্রণ জানানো হোক।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

জানা গেছে, শনিবার দেবেন্দ্র ফড়নবিশ মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেওয়ার পরই তার সরকারকে সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণের জন্য 7 দিন সময় দেওয়া হয়েছে। আর এই বিপুল সময় দেওয়ার প্রবল বিরোধিতা করেছে শিবসেনা কংগ্রেস এবং এনসিপি। তাদের আশঙ্কা, এই সময়ের মধ্যে বিজেপি ঘোড়া কেনাবেচা করতে পারে। আর তাই 24 ঘন্টার মধ্যে তাদের যাতে সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করা হয়, তার জন্যই এবার শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হলেন তিন রাজনৈতিক বলে মত ওয়াকিবহাল মহলের।

ইতিমধ্যেই বিজেপির কোপ থেকে নিজেদের বিধায়কদের বাঁচাতে শিবসেনা মুম্বাইয়ের একটি হোটেলে এবং কংগ্রেস জয়পুরে বিধায়কদের নিয়ে গিয়েছে। তবে রাজ্যপাল বিজেপিকে সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণের জন্য 7 দিন সময় দিলেও সেই সময়কে কেন বেশি মনে করছেন বিরোধীরা!

এখন তা নিয়ে নানা মহলে তৈরি হয়েছে গুঞ্জন। অনেকে বলছেন, অজিত পাওয়ার এনসিপি নেতা হয়ে যেভাবে প্রথম দিনে বিজেপিকে সমর্থন দিয়ে দিলেন, তাতে দলে আরও ভাঙ্গন আসতে পারে বলে মনে করেছেন এনসিপি। আর তাইতো এত সময় দিয়ে দিলে বিজেপি তাদের অনেক বিধায়ককে নিজেদের দিকে নিয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করতে শুরু করেছে তারা।

যার ফলেই এখন শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হয়ে বিজেপিকে সাত দিন নয়, বরঞ্চ 24 ঘণ্টার সময়সীমা বেঁধে দেওয়ার আর্জি জানাতে শুরু করেছে এই বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো। এখন শেষ পর্যন্ত বিরোধীদের এই আরজি শীর্ষ আদালত মানে, নাকি রাজ্যপালের সাতদিন সময়সীমাই বজায় থাকে, এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!