এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > অনুব্রত মন্ডলই আদালতে স্থগিতাদেশ পেতে সাহায্য করেছেন, বিস্ফোরক দাবি বিজেপি নেতার

অনুব্রত মন্ডলই আদালতে স্থগিতাদেশ পেতে সাহায্য করেছেন, বিস্ফোরক দাবি বিজেপি নেতার

বীরভূম জেলায় আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনে জেলা পরিষদের ৪২ টি আসনের মধ্যে ৪১ টিতেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় তৃণমূল কংগ্রেসকে জয় এনে দিয়েছেন অনুব্রত মন্ডল। একটিমাত্র আসনে বিজেপির চিত্রলেখা রায় মনোনয়ন জমা দিয়েছিলেন সমগ্র বিরোধীদের তরফ থেকে। আর মনোনয়ন পর্ব শেষ হতেই সেই প্রসঙ্গে সংবাদমাধ্যমকে অনুব্রত মন্ডল বলেন, জেলা পরিষদে যে একমাত্র বিরোধী প্রার্থী রয়েছেন, তিনি খুব মানসিক কষ্ট পাচ্ছেন। তিনি বুঝতে পারছেন, তিনি উন্নয়নের বিপক্ষে গিয়ে ভুল করেছেন। কষ্ট যখন পাচ্ছেন, তখন মনোনয়ন প্রত্যাহার করতে পারেন বলে মনে হচ্ছে। চিত্রলেখা রায় গত কাল আমাকে ফোন করেছিলেন। তিনি আমাকে বলেন, দাদা আমি মনোনয়ন প্রত্যাহার করতে চাই। আমি জিজ্ঞাসা করি, কেন? তোমাকে কি কেউ জবরদস্তি করেছে? তিনি বলেন, না কেউ জবরদস্তি করেনি। আমার বিবেক দংশন হচ্ছে। বিয়ে হয়ে আসার পর থেকে দেখেছি, রাজনগরে কোনও উন্নয়ন ছিল না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরেই রাজনগরে উন্নয়ন এসেছে। আমি মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বেইমানি করতে পারব না।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

আর অনুব্রতবাবুর দাবি মত আজ তৃণমূল কর্মী-সমর্থক পরিবেষ্টিত হয়ে চিত্রলেখাদেবী মহকুমা শাসকের অফিসে গিয়ে মনোনয়ন প্রত্যাহারের আবেদনপত্র দিয়ে আসেন। এই প্রসঙ্গে বিজেপি রাজ্য নেতা সায়ন্তন বসু বলেন, প্রত্যাহার করিয়ে আর কোনও লাভ নেই। কারণ, হাইকোর্ট পঞ্চায়েত নির্বাচনের যাবতীয় প্রক্রিয়ার উপরে আগামী ১৬ তারিখ পর্যন্ত স্থগিতাদেশ জারি করেছে। অনুব্রত মণ্ডল সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাত্‍কারে বলেছিলেন, বিরোধী প্রার্থীরা মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেবেন, কারণ তাঁরা মানসিক কষ্ট পাচ্ছেন। এ কথা বলে উনি আমাদের উপকারই করেছেন। কারণ, তাঁর এই উস্কানিমূলক মন্তব্য হাইকোর্ট থেকে স্থগিতাদেশ আদায় করতে আমাদের সাহায্য করেছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!