এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > রাতের অন্ধকারে কোলকাতার কাছেই নৃশংসভাবে কুপিয়ে খুন বিজেপি নেতাকে,তীব্র চাঞ্চল্য

রাতের অন্ধকারে কোলকাতার কাছেই নৃশংসভাবে কুপিয়ে খুন বিজেপি নেতাকে,তীব্র চাঞ্চল্য

Priyo Bandhu Media


দক্ষিণ ২৪ পরগনার মন্দিরঘাটা এলাকায় উত্তেজনা তুঙ্গে এক বিজেপি নেতার নৃশংস হত্যার জেরে। শক্তিপদ সর্দার নামের ওই বিজেপি নেতাকে খুন করা হয়েছে শুক্রবার রাতেই। তারপর থেকেই অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি তৈরি হয়ে আছে গোটা এলাকাতেই বলে স্থানীয় সূত্রের খবর। অভিযোগের তীর যথারীতি গিয়ে পড়েছে তৃণমূলের উপর।

স্থানীয় সূত্রের খবর, নিজের কাজ মিটিয়ে শুক্রবার রাতেই বাড়ি ফিরছিলেন শক্তিপদবাবু। তখন তাঁর পিছু নেয় কিছু দুষ্কৃতি এবং সুযোগ বুঝেই বাড়ি থেকে কিছু দূরে পথ আটকায় তাঁর। প্রথমে জোর তরজা শুরু হয় তারপর হঠাৎ করেই ধারালো অস্ত্র দিয়ে শক্তিপদবাবুকে কোপাতে শুরু করে দুষ্কৃতিরা। গুরুতর আহত অবস্থায় অজ্ঞান হয়ে পথেই পরে থাকেন শক্তিপদবাবু, দুষ্কৃতিরা চম্পট দেয়।

এই ঘটনার কিছুক্ষণ পর কাতরানোর আওয়াজ পেয়ে স্থানীয়রাই শক্তিপদবাবুকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করেন এবং নিকটস্থ ডায়মন্ড-হারবার হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখান থেকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে স্থানান্তরিত করা হয় কলকাতায়। তবে কলকাতায় নিয়ে যাওয়ার পথেই মৃত্যু হয় এই বিজেপি নেতার বলে তাঁর পরিবারের তরফ থেকে জানা গেছে।

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে, মুহূর্তেই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে গোটা এলাকা। জেলা বিজেপি নেতৃত্ব এবং মৃতের পরিবার স্থানীয় থানায় সমস্ত কিছু জানিয়ে এফআইআর দায়ের করে। ইতিমধ্যে ঘটনার তদন্তও শুরু করেছে পুলিশ। এই খুনের সঙ্গে কোনো রাজনৈতিক নেতার যোগাযোগ আছে নাকি ব্যক্তিগত শত্রুতার জেরে খুন করা হল তাঁকে, সেটাও খতিয়ে দেখা হবে। তবে এখনো কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি বলেই জানিয়েছেন স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন।

কিন্তু হঠাৎ করে কেন এই প্রাণঘাতী হামলার শিকার হলেন শক্তিপদবাবু? অভিযোগের তীর রয়েছে স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্বদের দিকে। জেলা বিজেপির দাবী, তৃণমূলের মদতপুষ্ট দুষ্কৃতিরাই এই হামলার সঙ্গে যুক্ত। কারণ হিসাবে উল্লেখ করেছেন পঞ্চায়েত নির্বাচনের ফলাফলকে। আসলে পঞ্চায়েত ভোটে এলাকায় তৃণমূলকে ছাপিয়ে গিয়েছিলো বিজেপি। সেটাই সহ্য করতে পারেনি ঘাসফুল শিবির। আর তাই হিংসার বশবর্তী হয়ে বিজেপি নেতা শক্তিপদ সর্দারকে ষড়যন্ত্র করে খুন করা হল বলে অভিযোগ জানিয়েছেন স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ত্ব।

যদিও এ অভিযোগ সম্পূর্ণই অস্বীকার করেছে জেলা তৃণমূল নেতৃত্বরা। পাল্টা দাবীতে তাঁরা জানিয়েছেন, তাঁদের উপর দোষারোপ করা ভিত্তিহীন। বিজেপির দলীয় গোষ্ঠীদ্বন্দ্বই এই খুনের জন্য দায়ী। প্রসঙ্গত, মৃত শক্তিপদ সর্দার প্রথমে তৃনমূল কংগ্রেসেরই সক্রিয় কর্মী ছিলেন। পঞ্চায়েত ভোটের আগেই বিজেপি শিবিরে যোগ দেন তিনি। বিজেপি নেতৃত্ব তাঁকে এলাকার মন্ডক সভাপতির দায়িত্বও দিয়েছিল। এরপর বিজেপি ওই এলাকায় বেশ ভালোই ফল করেছিলো পঞ্চায়েত নির্বাচনে। এখন এর জেরেই তৃণমূলের কোপের শিকার হলেন কিনা তিনি, তা নিয়ে ঘোর জল্পনা চলছে এলাকায়। পরিস্থিতি থমথমে হয়ে আছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার মন্দিরবাজার এলাকা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!