এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিস্ফোরক অভিযোগ রাজ্যের বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে, ধামাচাপা দিতে অনুগামীদের মাঠে নামানোর অভিযোগ

বিস্ফোরক অভিযোগ রাজ্যের বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে, ধামাচাপা দিতে অনুগামীদের মাঠে নামানোর অভিযোগ


সদ্য সমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনের পর যখন সারা দেশজুড়ে বিজেপির প্রতি আকর্ষণ বাড়ছে অনেকের, ঠিক তখনই সোশ্যাল সাইটে বিভিন্ন বিজেপি নেতাদের কুকীর্তি প্রকাশ পাওয়ায় অস্বস্তি বৃদ্ধি পাচ্ছে গেরুয়া শিবিরের। কিছুদিন আগেই এক বিজেপি নেতার মহিলা ঘনিষ্ঠতার ছবি প্রকাশ্যে আসায় দেশজুড়ে শোরগোল পড়ে যায়। আর এবার মহিলা ঘনিষ্ঠতার অভিযোগ উঠল সদ্য সমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে দমদম লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী তথা রাজ্য বিজেপি নেতা শমীক ভট্টাচার্যের বিরুদ্ধে।

তবে মহিলা সংস্পর্শে থাকা কোনো অপরাধের বিষয় নয়। তবে এমন কি কাজ করলেন শমীকবাবু! যার কারণে তার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ উঠতে শুরু করল! অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে এক মহিলার সঙ্গে তাঁর ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। কিন্তু এখন তিনি সেই সম্পর্ক রাখতে চাইছে না। উল্টে তার অনুগামীদের দিয়ে সেই মহিলাকে হুমকি দিচ্ছেন।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

সম্প্রতি একটি প্রথমসারির ওয়েব পোর্টালের হাতে বিজেপি নেতা শমীক ভট্টাচার্যের এক অনুগামীর সঙ্গে অভিযোগকারিণীর বিজেপি নেত্রীর কথোপকথনের অডিও প্রকাশ্যে এসেছে। যেখানে শমীক ভট্টাচার্য ঘনিষ্ঠ সমর চক্রবর্তী ওরফে ভোলা নামে ওই বিজেপি কর্মী উক্ত মহিলাকে মুখ বন্ধ রাখার হুমকি দেন বলে শোনা যায়।

বলা হয়, বেশি বাড়াবাড়ি করলে তার পরিবার এবং ছেলেকে বিপদে পড়তে হবে। শুধু তাই নয়, পুলিশে জানিয়েও কোনো লাভ হবে না বলে সেই মহিলা বিজেপি কর্মীকে জানিয়ে দেওয়া হয়। আর এই বিষয়টি নিয়েই এখন তোলপাড় রাজ্য রাজনীতি। কেন এইভাবে কোনো মহিলাকে ফোনে হুমকি দিলেন তিনি!

তাহলে কি রাজ্য বিজেপি নেতা শমীক ভট্টাচার্যের হাত তার মাথায় থাকাতেই সমর চক্রবর্তী ওরফে ভোলা এত সাহস পাচ্ছেন! এদিন এই প্রসঙ্গে সেই সময় চক্রবর্তীর বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, “এফআইআরের কপি আমার কাছে পৌঁছেছে।” তবে এই ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি সেই শমীক ভট্টাচার্য।

কিন্তু তিনি যতই গোটা ব্যাপারটিকে এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করুন না কেন, রাজ্য বিজেপির এই হেভিওয়েট নেতা শমীক ভট্টাচার্যের এই ঘটনায় যে কিছুটা হলেও কালি লাগবে, সেই ব্যাপারে একপ্রকার নিশ্চিত সমালোচক মহলের একাংশ। ফলে সেদিক থেকে শমীকবাবু নিজের ভাবমূর্তি রক্ষার্থে কোনো পদক্ষেপ নেন কিনা, এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!