এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মেদিনীপুর > “কথা দিয়েও” তৃণমূল নেতারা কথা না রাখায় তৃণমূলকে হারাতে গিয়ে নিজেরাই হেরে গেল বিজেপি? বাড়ছে জল্পনা

“কথা দিয়েও” তৃণমূল নেতারা কথা না রাখায় তৃণমূলকে হারাতে গিয়ে নিজেরাই হেরে গেল বিজেপি? বাড়ছে জল্পনা

সমস্ত কিছু ঠিকঠাকই ছিল – কিন্তু হঠাৎই অনাস্থা প্রস্তাবের ফলাফল প্রকাশ্যে আসাতেই কার্যত মুখ পুড়ল বিজেপির। সূত্রের খবর, রামজীবনপুর পৌরসভার চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা আনার ব্যাপারে প্রথমে একাধিক তৃণমূল কাউন্সিলরদের সমর্থন পেলেও পরে অনাস্থা প্রস্তাবে মূল কাউন্সিলররা বিজেপির পক্ষে না থাকায় শেষপর্যন্ত ৬-৪ভোটে জয়লাভ করলেন তৃণমূলেরই চেয়ারম্যান নির্মল চৌধুরী।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ১১ আসনবিশিষ্ট এই রামজীবনপুর পৌরসভায় পাঁচটি তৃণমূল এবং সিপিএম ও বিজেপির জোট ছয়টি আসন পায়। বোর্ড গঠনের আগে হঠাৎই বিরোধী জোটের এক নির্দল প্রার্থী শিউলি সিংহ ভট্টাচার্য তৃণমূলে যোগদান করেন। ফলে, এখানে বোর্ড গঠন করে শাসকদলই। ভাইস চেয়ারম্যান করা হয় শিউলি সিংহ ভট্টাচার্যকে। কিন্তু গত ১২ ই সেপ্টেম্বর তিনি ভাইস চেয়ারম্যান পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে ফের বিজেপিতে যোগ দেন।

আর এরপরই গত ২৮ শে নভেম্বর ঘাটাল মহকুমা শাসকের কাছে তৃণমূল পরিচালিত এই রামজীবনপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্মল চৌধুরীর বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব জমা দেয় বিজেপি। কিন্তু, মহকুমা শাসকের পক্ষ থেকে সেই অনাস্থা প্রস্তাব জমা না নেওয়ায় গত ৩০ শে নভেম্বর পুরসভাতেই সেই অনাস্থা প্রস্তাব জমা করেন তাঁরা। আর এই অনাস্থা প্রস্তাব মোতাবেক গত শুক্রবার বেলা ১১ টা নাগাদ রামজীবনপুর পৌরসভায় একটি ভোটাভুটি হয়।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না – তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

যেখানে ৬-৪ ভোটে জয়লাভ করে তৃণমূল। আর এখানেই অনেকের প্রশ্ন, যে তৃণমূল কাউন্সিলররা এই অনাস্থা প্রস্তাবে বিজেপির পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছিলেন তাঁরা কোথায় গেলেন? রাজনৈতিক মহলের মতে, সম্প্রতি দেশের পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা ভোটের ফলাফল দেখেই বিজেপির পক্ষে যাওয়া ঠিক হবে না – তা মনস্থির করেই তৃণমূল কাউন্সিলররা নিজেদের বোর্ড টিকিয়ে রাখতে এহেন উদ্যোগ নিয়েছেন।

এদিকে অনাস্থা ভোটে জয়ী হয়ে রামজীবনপুর পৌরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের শিবসেনার এক সমর্থকের বাইক ভাঙচুর করার অভিযোগ ওঠে শাসকদলের বিরুদ্ধে। যা নিয়ে তৃণমূলের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয় বিজেপিও। এদিন এই ভোটাভুটি প্রসঙ্গে রামজীবনপুর পৌরসভার বিজেপি নেতা তথা বিজেপি কাউন্সিলর শিউলি সিংহ ভট্টাচার্যের স্বামী জয়ন্ত সিংহ বলেন, “আমরা যে সমস্ত তৃণমূলের কাউন্সিলরের ভরসায় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা এনেছিলাম, তাঁরা শেষ পর্যন্ত লোভ ও রাজনৈতিক চাপের কাছে নতি স্বীকার করে আমাদের সমর্থন করেননি”।

তিনি আরও বলেন, “রাজনীতি হচ্ছে সাপ-লুডো খেলার মত। অন্য রাজ্যে বিজেপির ফল খারাপ হয়েছে বলে আমরা এখানে অনাস্থা ভোটে জিততে পারলাম না – এই যুক্তি ঠিক নয়”। অন্যদিকে বিজেপির এই সমস্ত অভিযোগ খন্ডন করে রামজীবনপুর পৌরসভা তৃণমূল চেয়ারম্যান নির্মল চৌধুরী বলেন, “এই জয় স্বচ্ছ প্রশাসনের জয়। আমাদের পুরসভা দুর্নীতিমুক্ত হওয়ায় আমাদের দলের কাউন্সিলররা আমাদের পাশে রয়েছেন। অনাস্থা প্রমাণ করতে না পেরে বিজেপি রাজনৈতিক গন্ডগোল হয়েছে বলে নানা রকম নাটক করতে শুরু করেছে”। সব মিলিয়ে রামজীবনপুর পৌরসভায় তৃনমূলের বিরুদ্ধে অনাস্থা এনেও শেষ হাসি হাসতে পারল না বিজেপি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!