এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > “হুগলি জেলাকে কেউ কেউ বিজেপির হাতে তুলে দিতে চেয়েছেন” বিস্ফোরক তৃণমূল সাংসদ

“হুগলি জেলাকে কেউ কেউ বিজেপির হাতে তুলে দিতে চেয়েছেন” বিস্ফোরক তৃণমূল সাংসদ

লোকসভা নির্বাচনে এবার তৃনমূল 22 এসে দাঁড়িয়েছে। যার ফলে উত্তরবঙ্গ থেকে তারা একটি আসন না পেলেও দক্ষিণবঙ্গ থেকেই প্রায 22 টি আসন ঘাসফুল শিবিরের দখলে এসেছে। তবে এবার নির্বাচনে জয়লাভ করার পরও হুগলি জেলা নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করতে দেখা গেল শ্রীরামপুর লোকসভা কেন্দ্রে তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়কে।

বস্তুত, এবারে হুগলি লোকসভা কেন্দ্রে জয়লাভ করতে পারেনি তৃণমূল। শ্রীরামপুরে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় জয়লাভ করলেও পাশের আরামবাগ লোকসভা কেন্দ্রে তৃণমূল প্রার্থী অপরূপা পোদ্দার বিজেপির কানের পাশ দিয়ে বেরিয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন। এদিকে হুগলী কেন্দ্র থেকে তৃণমূলকে হটিয়ে লোকসভা ভোটে বিজেপি ছিনিয়ে নিয়েছে আসন। আর হুগলি জেলায় দলের এই খারাপ ফলাফলে কিছুটা হলেও হতাশ হয়ে গিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আর এই পরিস্থিতিতে এবার নাম না করে কেউ কেউ হুগলি জেলাকে বিজেপির হাতে তুলে দিতে চেয়েছিলেন বলে অভিযোগ করলেন শ্রীরামপুর লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়।কিন্তু ঠিক কী কারণে এই অভিযোগ করলেন তৃণমূলের হেভিওয়েট সাংসদ! তা নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

তাহলে কি দলেরই একাংশের বিরুদ্ধে অভিযোগ করতে চাইলেন কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়! এখন তা নিয়েও উঠতে শুরু করেছে প্রশ্ন। প্রসঙ্গত, সম্প্রতি এই কল্যান বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে কাঠমানি এবং অশ্লীল পোস্টার দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল। আর এই ঘটনায় এখন সন্দেহের তালিকায় রয়েছেন পুলিশ অফিসার সমীর সরকার। জানা গেছে, সমীরবাবু হুগলি জেলায় তৃণমূলের প্রাক্তন জেলা সভাপতি তপন দাশগুপ্তের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ।

সূত্রের খবর, এদিন এই প্রসঙ্গে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “বিরাট ষড়যন্ত্র চলছে। যে ষড়যন্ত্রে বিরোধীদের পাশাপাশি তার দলের একাধিক ব্যক্তিও জড়িত।” অন্যদিকে আরামবাগ লোকসভা কেন্দ্রে তৃণমূল প্রার্থীর জয়ের পেছনে কম ভোট পাওয়া নিয়ে এক প্রবীণ সাংবাদিক রয়েছেন বলেও এদিন জানিয়ে দেন কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়।

সব মিলিয়ে দলের খারাপ ফলাফল থেকে শুরু করে তার বিরুদ্ধে পড়া পোস্টার, বিভিন্ন ব্যাপারে দলের একাংশের বিরুদ্ধেই নাম না করে অভিযোগ তুলতে দেখা গেল শ্রীরামপুর লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল সাংসদকে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!